default-image
>দলে এসেছিলেন নেইমারের বিকল্প হিসেবে। সেই এভারটন সোয়ারেসই কোপ আমেরিকার সেরা গোলদাতার পুরস্কার পেলেন যৌথভাবে!

কোপ শুরুর আগে বেশ দুশ্চিন্তায় পড়ে গিয়েছিল ব্রাজিল। দলের সবচেয়ে বড় তারকা নেইমার থাকছেন না—চিন্তায় তো পড়বেই দল! সেরা তারকা না খেললে কীভাবে এক যুগ ধরে চলে আসা কোপার খরা ঘোচাবে তারা? নেইমারের জায়গায় দলে নেওয়া হলো গ্রেমিওর এক অখ্যাত তরুণকে। এভারটন নামের সেই তরুণের ওপর ভরসা রেখেছিলেন কোচ তিতে। তিনি এর প্রতিদান দিয়েছেন দুর্দান্তরূপেই।


দুই বছর আগে গ্রেমিওর হয়ে কোপা লিবার্তোদোরেস জেতা এই তরুণ বহু দিন ধরেই প্রতিভাবান হিসেবে পরিচিত। গ্রেমিওর সভাপতি তো তাঁকে এরই মধ্যে বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে আখ্যা দিয়ে দিয়েছেন, ‘শুধু দক্ষিণ আমেরিকারই নয়, বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় এই এভারটন।’

প্রতি মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, শাখতার, জুভেন্টাস, বায়ার্ন মিউনিখ, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটির মতো ক্লাবগুলোর সঙ্গে এভারটনের নাম আসে। কিন্তু এখনো ইউরোপের কোনো ক্লাবে নাম লেখাননি তিনি। তবে এবার কোপা আমেরিকায় যা দেখালেন, তাতে তাঁকে নিয়ে কাড়াকাড়ি পড়ে যাবে, নিশ্চিত। নিজের ক্লাবে নেইমারের একজন যোগ্য বিকল্প কে না চায়! ব্রাজিল সতীর্থ ফিলিপে লুইস এর মধ্যেই এভারটনকে ইউরোপে খেলার সার্টিফিকেট দিয়ে দিয়েছেন, ‘আমি দেখতে পাচ্ছি, ও খুব শিগগিরই ইউরোপে খেলবে। সে ইউরোপে খেলার জন্য প্রস্তুত।’

নেইমারের অভাব এবার একদমই বুঝতে দেননি এভারটন। নেইমার যে জায়গায় খেলেন, সে বাম উইংয়ে খেলেই আলো ছড়িয়েছেন এভারটন। সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে আয়াক্সের হয়ে আলো ছড়ানো উইঙ্গার ডেভিড নেরেস তো নেইমারের বিকল্প হওয়ার সুযোগ পাননি তাঁর কারণেই। দুর্ধর্ষ গতি নিয়ে বিপক্ষ রক্ষণভাগকে তটস্থ রেখেছেন, ডান পায়ের বুলেট শটে গোল করেছেন বলিভিয়া আর পেরুর সঙ্গে। সঠিক সময়ে নেইমারের মতো প্রতিপক্ষের ডি-বক্সে ঢুকে যাওয়ারও একটা প্রবণতা আছে এই তারকার, সেটা বোঝা গেছে ফাইনাল ম্যাচে। ফাইনালে পেরুর বিপক্ষে প্রথমে গোল করেছেন এই তারকা। এই তিন গোল নিয়েই পেরুর অধিনায়ক পাওলো গেরেরোর সঙ্গে যৌথভাবে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

নেইমারের বিকল্প যে এক অখ্যাত তরুণ হয়ে উঠবেন, এমনটা হয়তো পাঁড় ব্রাজিল–সমর্থকেরাও আশা করেননি!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন