পিএসজির ফ্রেঞ্চ লিগে রাজপাট বসানো সারা বহু আগেই। ইউরোপে নিজেদের বড় দল বানানোর ইচ্ছা থেকেই ২০১৭ সালে বড় চমক দেখিয়েছিল দলটি। বার্সেলোনা থেকে ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরোতে নেইমারকে কিনে এনেছে তারা। মোনাকো থেকে প্রথমে ধার ও পরে ১৮ কোটি ইউরোতে কিলিয়ান এমবাপ্পেকে কিনেছে তারা। তবে ইউরোপে রাজত্ব করার জন্য নেইমারের ওপরই ভরসা রেখেছিল দলটি।

সে মৌসুমে গ্রুপ পর্বে নেইমার-এমবাপ্পে গোলবন্যায় ভাসিয়ে দিয়েছিলেন প্রতিপক্ষকে। শেষ ষোলোর ড্রতে রিয়াল মাদ্রিদকে পাওয়ার পরও পিএসজিকে এগিয়ে রাখছিল অনেকে।

সে মৌসুমে ঘরোয়া লিগে ধুঁকছিল রিয়াল। তবু বার্নাব্যুতে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে ৩-১ গোলে হেরে বসেছিল নেইমার-এমবাপ্পের পিএসজি। ফিরতি লেগে এর প্রতিশোধ নেবেন কী, উল্টো ম্যাচের আগে চোট পেয়ে মৌসুমের বাকি সময়ের জন্য মাঠের বাইরে চলে গিয়েছিলেন নেইমার।

default-image

পরের মৌসুমেও গল্পটা বদলায়নি। এবার শক্তিতে অনেক পিছিয়ে থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মুখোমুখি হয়েছিল পিএসজি। এবার অবশ্য নেইমারকে ছাড়াই প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমে জয় নিয়ে ফিরেছিল প্যারিসের ক্লাবটি। দ্বিতীয় লেগে আরও সুবিধাজনক অবস্থায় ছিল পিএসজি। চোটের কারণে মূল একাদশের গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু খেলোয়াড় ছিল না ইউনাইটেডের। তবু শেষ মুহূর্তের গোলে হেরে বিদায় নেয় পিএসজি। ভিআইপি গ্যালারি থেকে দলের বিদায়ে নেইমারের বিস্মিত মুখ তো এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিখ্যাত এক মিম হয়ে গেছে।

পরের মৌসুমে করোনার আঘাতের আগেই অবশ্য নেইমার গল্পটা বদলে ফেলেছিলেন। ডর্টমুন্ডের কাছে প্রথম লেগে হারলেও দ্বিতীয় লেগে ঠিকই জয় পেয়েছিল পিএসজি। প্রথমবারের মতো নেইমারকে পাওয়ার কারণেই হয়তো নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালেও উঠেছিল প্যারিসের দলটি।

গত মৌসুমে আবারও শেষ ষোলো পর্বে নেইমারকে পায়নি পিএসজি। এমবাপ্পে-ঝলকে বার্সেলোনাকে ঘরের মাঠে উড়িয়ে দিয়েছিল তারা। নেইমার ফেরার পর কোয়ার্টার ফাইনাল পেরোলেও ফাইনালে আর যেতে পারেনি পিএসজি।

default-image

এই মৌসুমেও নেইমারকে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিচ্ছে পিএসজি। গত ২৮ নভেম্বর সেতঁ এতিয়েনের বিপক্ষে মাঠে চোট পান নেইমার। সে চোটের কারণে এ বছর আর মাঠে নামা হচ্ছে না তাঁর। তবে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে প্রথম লেগে ঘরের মাঠে খেলবেন, এমন আশা ছিল সমর্থকদের। নেইমারও চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচের আগেই ফেরার জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছিল।

এই মৌসুমেই লিওনেল মেসিকে ক্লাবের সঙ্গী হিসেবে পেয়েছেন নেইমার। মেসিকে পেয়ে পাঁচ বছর পর আবার মাঠে থেকে রিয়ালকে হারানোর চেষ্টায় নামার কথা নেইমারের। কিন্তু ফরাসি সংবাদমাধ্যম বলছে, ক্লাবের মধ্যে নেইমারের মাঠে ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। আরএমসি স্পোর্টস বলছে, নেইমারের পুনর্বাসন পর্ব যেভাবে এগোচ্ছে, ১৫ ফেব্রুয়ারির ম্যাচে গোড়ালির চোট কাটিয়ে এই ফরোয়ার্ডের নামার সম্ভাবনা কম।

পিএসজি নাকি এখন বার্নাব্যুতে ৯ মার্চের দ্বিতীয় লেগেই নজর দিচ্ছে বেশি। প্রতিপক্ষের মাঠে যেকোনোভাবেই হোক, নিজেদের সেরা আক্রমণভাগ, অর্থাৎ মেসি-নেইমার-এমবাপ্পেকে নামাতে চায় পিএসজি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন