বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে এই তিন ম্যাচের প্রথমটিতে নেইমারকে পাবে না ব্রাজিল। পেরুর বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে ৯০ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেছেন নেইমার, এবারের বাছাইপর্বে যা পিএসজিতে খেলা ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের দ্বিতীয় হলুদ কার্ড। সে কারণে অক্টোবরের তিন ম্যাচের প্রথমটিতে নেইমার নিষিদ্ধ থাকছেন।

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এবার ব্রাজিলের খেলা কতটুকু মন ভরাতে পারছে, সে নিয়ে প্রশ্ন তোলা যায়। তবে হিসাব যখন হবে জয়-পরাজয়ের, ব্রাজিল রীতিমতো উড়ছে। ৬ সেপ্টেম্বর আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচটি স্থগিত হয়ে গেছে মাঠের বাইরের জটিলতায়।

ইংল্যান্ডের ক্লাবে খেলা আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড় ব্রাজিলে ঢোকার ক্ষেত্রে করোনাসংক্রান্ত বিধিনিষেধ মানেননি—এ অভিযোগে ৬ সেপ্টেম্বর ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ শুরুর ৭ মিনিটের মাথায় মাঠে ঢুকে পড়েন ব্রাজিলের স্বাস্থ্যবিষয়ক নিয়ন্ত্রক সংস্থা আনভিসার কর্মকর্তারা। এরপর ম্যাচ বাতিল হয়। বিতর্ক ছড়ানো ম্যাচটি বাদ দিলে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এবার আট ম্যাচের আটটিতেই জিতেছে ব্রাজিল।

শতভাগ জয়ের ধারা ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়েই আগামী মাসে আবার তিনটি ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল। ভেনেজুয়েলা, কলম্বিয়ার পর উরুগুয়ের বিপক্ষে এই তিন ম্যাচে আরেকটা লক্ষ্যও থাকবে নেইমারদের। এবারই কাতারে জায়গা পাওয়া নিশ্চিত করে ফেলা!

এই ৩ ম্যাচে জিতলে ৩৩ পয়েন্ট হয়ে যাবে ব্রাজিলের, আর দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বের ইতিহাস বলে, ২৭–২৮ পয়েন্টের বেশি পাওয়াই বিশ্বকাপের মূল পর্বে নিশ্চয়তা দিয়ে দেয়!

৮ অক্টোবর ব্রাজিলের ম্যাচ ভেনেজুয়েলার মাটিতে। ১১ অক্টোবর কলম্বিয়ার মাটিতে। ১৫ অক্টোবর নিজেদের মাঠে ম্যাচ উরুগুয়ের বিপক্ষে। এই ৩ ম্যাচে জিতলে ৩৩ পয়েন্ট হয়ে যাবে ব্রাজিলের।

সেটি পরের ব্যাপার। আপাতত দল ঘোষণার ক্ষেত্রে বিতর্ক হয়ে দেখা দিয়েছে দানি আলভেজকে না ডাকা। বয়স ৩৮ বছর হয়ে গেলেও এখনো আলভেজ দারুণ ক্ষুরধার, কিন্তু তাঁর জায়গায় এবার জুভেন্টাসের দানিলোর পাশাপাশি তিতে ডেকেছেন বার্সেলোনা থেকে এই মৌসুমেই টটেনহামে যাওয়া ২২ বছর বয়সী রাইটব্যাক এমারসন রয়ালকে।

এখনো টটেনহামের জার্সিতে ছন্দ খুঁজে পাননি এমারসন। কিন্তু এদিকে আলভেজ যে কোনো ক্লাবেই খেলছেন না! এই মাসের শুরুতেই বেতন নিয়ে ঝামেলার পর সাও পাওলোর সঙ্গে ‘বিচ্ছেদ’ হয় আলভেজের। সে কারণেই তাঁকে দলে ডাকেননি বলে জানিয়েছেন তিতে।

দল ঘোষণার পর আরেকটি প্রসঙ্গও আলোচনায় এসেছে। সেপ্টেম্বরের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ইংল্যান্ডের ক্লাবে খেলা ৯ ব্রাজিলিয়ান খেলতে পারেননি ইংল্যান্ড ও ব্রাজিলের মধ্যে করোনাসংক্রান্ত জটিলতায়, তাহলে এবার ডাক পাওয়া ৮ খেলোয়াড় খেলতে পারবেন? পরিস্থিতি অবশ্য এখনো একই আছে

সেপ্টেম্বরের ম্যাচগুলোর সময়ে ব্রাজিলে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বিবেচনায় দেশটি ইংল্যান্ডে ঢোকার ক্ষেত্রে ‘লাল তালিকা’য় ছিল। ব্রাজিলও উল্টো ইংল্যান্ডকে ‘লাল তালিকা’য় রাখে।

ইংল্যান্ডের ক্লাবে খেলা ব্রাজিলিয়ানরা সে কারণে জাতীয় দলের হয়ে খেলতে গেলে তাঁদের ব্রাজিল থেকে ইংল্যান্ডে ঢোকার পর ১০ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হতো। ইংল্যান্ড থেকে ব্রাজিলে যাওয়ার পর কোয়ারেন্টিন করতে হতো বলে শোনা গিয়েছিল।

default-image

সে কারণে তখন ইংলিশ ক্লাবগুলো ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়দের ছাড়েনি। এ নিয়ে ব্রাজিলের ফুটবল ফেডারেশনও (সিবিএফ) খেপেছিল। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে এখনো ব্রাজিল ইংল্যান্ডের ‘লাল তালিকা’তেই আছে!

কিন্তু ব্রাজিলের দৈনিক গ্লোবোএস্পোর্তে লিখেছে, ব্রাজিলের কোচদের আশা, এবার ইংল্যান্ডে খেলা ব্রাজিলিয়ানদের ঠিক সময়ে ছাড়া হবে। সিবিএফ অবশ্য বলছে, এই ৮ খেলোয়াড়ের খেলার বিষয়ে আরও কিছু খুঁটিনাটি দিক চূড়ান্ত করার বাকি আছে। সিবিএফ এরই মধ্যে ব্রাজিল সরকারের কাছে অনুরোধ করেছে, এই খেলোয়াড়দের ব্রাজিলে ঢোকার ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টিনের বিধিনিষেধ যাতে শিথিল করা হয়।

অক্টোবরে বাছাইপর্বের তিন ম্যাচের ব্রাজিল দল:

গোলকিপার: আলিসন (লিভারপুল), এদেরসন (ম্যান সিটি), ওয়েভারতন (পালমেইরাস)

ডিফেন্ডার: দানিলো (জুভেন্টাস), এমারসন রয়াল (টটেনহাম), আলেক্স সান্দ্রো (জুভেন্টাস), গিয়ের্মে আরানা (আতলেতিকো মিনেইরো), থিয়াগো সিলভা (চেলসি), মারকিনিওস (পিএসজি), এদের মিলিতাও (রিয়াল মাদ্রিদ), লুকাস ভেরিসিমো (বেনফিকা)।

মিডফিল্ডার: কাসেমিরো (রিয়াল মাদ্রিদ), ফাবিনিও (লিভারপুল), ফ্রেদ (ম্যান ইউনাইটেড), এদেনিলসন (ইন্তারনাসিওনাল), গেরসন (অলিম্পিক মার্শেই), লুকাস পাকেতা (অলিম্পিক লিওঁ), এভারতন রিবেইরো (ফ্লামেঙ্গো)।

ফরোয়ার্ড: নেইমার (পিএসজি), আন্তনি (আয়াক্স), রাফিনিয়া (লিডস ইউনাইটেড), ভিনিসিয়ুস জুনিয়র (রিয়াল মাদ্রিদ), গাব্রিয়েল জেসুস (ম্যান সিটি), গাব্রিয়েল বারবোসা (ফ্লামেঙ্গো), মাতেউস কুনিয়া (আতলেতিকো মাদ্রিদ)।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন