নেচে–গেয়ে জয় উদ্‌যাপন আর্জেন্টিনা গোলকিপারের

আর্জেন্টিনা গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।ছবি: রয়টার্স

১৯৯০ ইতালি বিশ্বকাপে গোলবারের নিচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে নায়ক বনে গিয়েছিলেন আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক সের্হিও গয়কোচিয়া।

আজ কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে কলম্বিয়ার বিপক্ষে টাইব্রেকারে তিনটি পেনাল্টি ঠেকিয়ে বারবার যেন গয়কোচিয়াকেই মনে করিয়ে দিলেন আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।

ইতালি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা টাইব্রেকারে জিতেছিল যুগোস্লাভিয়া ও ইতালির বিপক্ষে। সে দুটো ম্যাচেই পেনাল্টি ঠেকিয়ে সবার নজর কেড়েছিলেন গয়কোচিয়া। আজও তেমনি তিনটি পেনাল্টি শট ঠেকিয়ে দেন মার্তিনেজ। এমন এক রোমাঞ্চকর জয় উদ্‌যাপন না করে কি আর থাকা যায়?

তাই তো দলকে জিতিয়ে ড্রেসিংরুমে উদ্দাম নাচে মেতে ওঠেন এই আর্জেন্টাইন ফুটবলার। সেই নাচের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। যেখানে দেখা গেছে, সতীর্থরা সবাই গান গাইছেন, হাতে তালি দিচ্ছেন। সেই গানের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কোমর দুলিয়ে নাচছেন মার্তিনেজ।

টাইব্রেকারে আর্জেন্টিনার জয়ের সতীর্থদের সঙ্গে মার্তিনেজ।
ছবি: রয়টার্স

ইতালি বিশ্বকাপে যেমন শুরুতে দলে সুযোগ পাননি গয়কোচিয়া। গ্রুপ পর্বে আর্জেন্টিনার খেলা ছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে চোটে পড়েন আর্জেন্টিনার নিয়মিত গোলরক্ষক নেরু পম্পেদু। সুযোগ মেলে দলের তৃতীয় গোলরক্ষক গয়কোচিয়ার।

এবার কোপার শুরুতেও কোচ লিওনেল স্কালোনির প্রথম পছন্দ ছিল ফ্রাঙ্কো আরমানি। কিন্তু করোনার কারণে দল থেকে ছিটকে যান আরমানি। এরপর সুযোগ মেলে অ্যাস্টন ভিলার এই গোলকিপারের। গত জুনে চিলির বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে জাতীয় দলে অভিষেক মার্তিনেজের। এরপর কোপায় সবার আলো কাড়লেন তিনি।

পেনাল্টি শুটআউটের পুরো গল্পটাই যেন মার্তিনেজের। তিন–তিনটি পেনাল্টি সেভ করে দলকে তুলেছেন ফাইনালে। শুরুতে কলম্বিয়ার হয়ে কুয়াদ্রাদো ও আর্জেন্টিনার মেসি গোল করেন। এরপর জ্বলে ওঠেন মার্তিনেজ।

বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে আটকে দেন সেন্টারব্যাক দাভিনসন সানচেজের শট। একইভাবে আটকে দেন ইয়েরি মিনার শটও। আর্জেন্টিনার লাওতারো ও পারেদেস গোল করে দলকে চিন্তামুক্ত করেন। কার্দানোর শেষ পেনাল্টি শট আবারও আটকে দিয়ে নায়ক বনে যান মার্তিনেজ।