পিছিয়ে পড়েও রাসেলের ড্র

অগাস্টিন ওয়ালসনের মুখে হতাশার আঁকিবুঁকি। সৈয়দ নইমুদ্দিন বিরক্ত। আর শফিকুল ইসলাম মানিক যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন। জোড়া গোল করেও জিততে পারেননি বলে ব্রাদার্সের হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড হতাশা লুকাতে পারলেন না। পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নিয়ে রাগে গজগজ করতে করতে মাঠ ছাড়লেন ব্রাদার্স কোচ নইমুদ্দিন। আর ৬২ মিনিট পর্যন্ত ০-২ গোলে পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত একটা পয়েন্ট পাওয়ায় খুশি শেখ রাসেলের কোচ মানিক। শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়ামে পিছিয়ে পড়েও কাল ব্রাদার্সের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে শেখ রাসেল।
ব্রাদার্সের দুটি গোলই করেছেন ওয়ালসন। শেখ রাসেলের গোল দুটি মিন্টু শেখ ও জাঁ পল ইকাঙ্গার। এই জয়ে ১৮ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে রইল ব্রাদার্স। সমান ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে আটে শেখ রাসেল।
ম্যাচের প্রথমার্ধে একচেটিয়া খেলেছে ব্রাদার্স। পরিষ্কার করে বললে ওয়ালসন। ম্যাচের ২০ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত কমলা দলটি। তাদের দুর্ভাগ্য যে বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া ওয়ালসনের ফ্রি-কিকটি ক্রসবারে লেগে বাইরে যায়। তবে বেশিক্ষণ গোলের জন্য অপেক্ষা করতে হয়নি ব্রাদার্সকে। ডান প্রান্ত দিয়ে আক্রমণে ওঠা ওয়ালসন বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে পরাস্ত করেন শেখ রাসেলের গোলরক্ষক বিপ্লব ভট্টাচার্যকে। ওয়ালসনের দ্বিতীয় গোলটি ছিল দেখার মতো। ৫৮ মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে গড়ানো শটে বল ঢোকান জালে (২-০)। পিছিয়ে পড়ে গোল শোধে তখন মরিয়া শেখ রাসেল। ৬৩ মিনিটে তাদের ম্যাচের ফেরার সুযোগটা করে দেন ব্রাদার্সের মনির। বক্সের মধ্যে বল ছাড়া দাঁড়িয়ে থাকা নাসিরকে অহেতুক হাঁটু দিয়ে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন। রেফারি আনিসুর রহমানের নজর সেটি এড়ায়নি, পেনাল্টি থেকে ১-২ করেন মিন্টু শেখ। ৭৫ মিনিটে হেডে ম্যাচের সমতাসূচক গোলটি করেন ইকাঙ্গা। বাকি সময় কোনো দলই আর গোলের দেখা পায়নি।
পয়েন্ট খুইয়ে কোচ নইমুদ্দিন রেফারি আনিসুর রহমানকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন, ‘কেমন রেফারিং হয়েছে তা মাঠের সবাই দেখেছে। আমরা তাঁর কাছে কোনো সাহায্য চাইনি, শুধু চেয়েছিলাম যেন স্বচ্ছভাবে ম্যাচ পরিচালনা করেন।’ তবে শেখ রাসেলের কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক ড্রয়ের পর ফেলেছেন স্বস্তির নিশ্বাস, ‘আমাদের রক্ষণভাগ খুবই দুর্বল ছিল। তাই প্রথমে একটা বাজে গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়ি। তবে ব্রাদার্সের দ্বিতীয় গোলটি অসাধারণ ছিল। আর আমাদের খেলোয়াড়েরাও গোল মিসের মহড়ায় মেতেছিল। এই ড্রয়ে খুশি হওয়ার কিছু নেই। অন্তত ১ পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পারছি এতেই স্বস্তি।’
আজকের খেলা: রহমতগঞ্জ-ফেনী সকার (বিকেল ৩টা, শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়াম, গোপালগঞ্জ)।