২৩ জুলাই অলিম্পিক শুরু হলেও এর দুই দিন আগেই শুরু হবে ফুটবল ইভেন্ট। বর্তমানে ইউরো খেলা দল থেকে স্পেন অলিম্পিক ফুটবল দলে ডাক পেয়েছেন ছয়জন। তাঁরা হলেন পেদ্রি, উনাই সিমন, মিকেল ওইয়ারসাবাল, এরিক গার্সিয়া, পাও তোরেস ও দানি অলমো। এঁদের মধ্যে অলমোকে টোকিওতে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে তাঁর জার্মান ক্লাব লাইপজিগ। তবে নিজেদের খেলোয়াড় পেদ্রি ও গার্সিয়ার অলিম্পিকে যাওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন বার্সেলোনা। তাঁদের পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিয়ে চিন্তিত ক্লাবটি।

default-image

২০২০-২১ মৌসুমে ব্যস্ত সময় পার করেছেন পেদ্রি। ১৮ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার বার্সেলোনা দলের নিয়মিত খেলোয়াড়। স্পেন জাতীয় দলের সঙ্গে খেলে থাকেন অনূর্ধ্ব-২১ দলেও। সব মিলিয়ে টোকিও যাওয়ার আগে তাঁর ম্যাচ খেলা হয়ে যেতে পারে ৬৭টি। তাঁর শরীরের ওপর দিয়ে ধকল যাওয়ায় ক্লাব উদ্বিগ্ন। স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক মার্কা লিখেছে ‘বার্সেলোনা মোটেও খুশি নয় বরং তারা উদ্বিগ্ন যে পেদ্রি ও গার্সিয়া জাতীয় দলের সঙ্গে বিভিন্নভাবে থাকছে। গত বছর ক্লাব ফুটবলেও ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন তাঁরা।’

default-image

মার্কা জানিয়েছে এ নিয়ে অন্যান্য ক্লাবগুলোরও ফোন ধরতে ব্যস্ত সময় পার করছে স্পেন ফুটবল ফেডারেশন। ক্লাবগুলো স্পেন দল থেকে তাদের খেলোয়াড়ের নাম প্রত্যাহার করে নিতে চায়। এদিকে ফিফার নিয়ম অনুযায়ী অলিম্পিকের জন্য খেলোয়াড় ছাড়তে বাধ্য নয় ক্লাবগুলো। তাই ফেরান তোরেস ও রদ্রিকে দলে নেওয়ার ইচ্ছা থাকলেও ম্যানচেস্টার সিটির আপত্তিতে তাঁদের নিতে পারেনি স্পেন। অবশ্য অলিম্পিকের ক্ষেত্রে স্পেনের নিয়মটা ভিন্ন। দেশটির আইন বলছে অলিম্পিকের জন্য ক্লাবগুলোকে খেলোয়াড় ছাড়তে হবে।

default-image

ক্লাবগুলো যা–ই বলুক না কেন, খেলোয়াড়েরা অলিম্পিকে যেতে চান বলে স্পেন ফুটবল ফেডারেশনের পরিচালক হোসে ফ্রান্সিসকো মলিনার কাছে মতামত দিয়েছে বলে জানিয়েছে মার্কা। ১৩ জুলাই টোকিওর উদ্দেশে দেশ ছাড়বে স্পেন ফুটবল দল। অর্থাৎ স্পেন যদি ইউরোর ফাইনালে ওঠে, এর দুদিন পরই টোকিও রওনা হতে হবে। আগামীকাল ইউরোর কোয়ার্টার ফাইনালে খেলবে তারা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন