default-image

প্রিমিয়ার লিগ শুরু হতে যাচ্ছে ১৭ জুন। এ নিয়ে ভালোই প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। গতকাল এক হাজারের ওপর খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের করোনা পরীক্ষা করে নেতিবাচক ফল পাওয়া গেছে। নিঃসন্দেহে সুখবর এটি। তবু যুক্তরাজ্যে করোনা সংক্রমণ এখনো নিয়ন্ত্রণে না আসায় খেলা শুরু করা নিয়ে অস্বস্তি রয়েছে অনেকের মধ্যে। অনেকেই বলছেন স্বাস্থ্যের কথা না ভেবে এভাবে খেলোয়াড়দের ঝুঁকির মুখে ফেলে দেওয়া হচ্ছে অর্থের লোভে।

অ্যাস্টন ভিলার টাইরন মিংসেরও ধারণা, অর্থযোগই ফুটবল ফেরানোর পেছনে ভূমিকা রাখছে এবং এতে নিজেদের পণ্য হিসেবে মানতেও আপত্তি নেই তাঁর, 'এটা ফেরানোর পেছনে অর্থই শতভাগ ভূমিকা রাখছে, অন্য সব কিছু বাজে কথা। আমিও খেলার পক্ষে কারণ আমাদের আর কোনো সুযোগ নেই। খেলা শুরু করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে খেলোয়াড়দেরই সবার শেষে জানানো হয়েছে। কারণ, গুরুত্বের দিক থেকে ফুটবলারদের স্থান ওখানেই।'

এই ডিফেন্ডার পরিস্কারভাবেই জানিয়ে দিয়েছেন, 'এটা সমস্যা না। এই খেলায় আমরা আসলে পণ্য এবং আমরা সেটা মেনেও নিয়েছি। আমাদের অনুশীলনে ফেরার কথা বলা হয়েছে এবং এটাও মেনে নিয়েছি। কারণ, আমরা যদি তা না-ও চাই, কিন্তু লিগ কমিটি, ইংলিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন, সরকার এবং উয়েফা যদি বলে তোমাকে খেলতে হবে, তাহলে আমরা খেলোয়াড়েরা কী বলছি তাতে কিছু যায় আসে না। কারণ, তোমাকে খেলতেই হবে। হয় খেলো নইলে বের হও।'

কর্মকর্তাদের এমন চাপের মুখেও নতি স্বীকার করেননি ওয়াটফোর্ডের ট্রয় ডিনি। এ সিদ্ধান্তকে সম্মান করছেন মিংস, 'খেলোয়াড়দের সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ দেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটা ব্যাক্তিগত ব্যাপার। যদি তুমি না চাও, সেটা করো না। মানুষ তাদের পরিবার নিয়ে দুশ্চিন্তার কথা জানিয়েছে, আমি তাদের শতভাগ সমর্থন দিচ্ছি।'

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন