লেঁসের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয়ে নায়কও ব্রাজিলিয়ান তারকা
লেঁসের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয়ে নায়কও ব্রাজিলিয়ান তারকাছবি : রয়টার্স

এ মৌসুমে পিএসজি তাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি খেলবে আগামী মঙ্গলবার। চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগের সেই ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ম্যানচেস্টার সিটি। ম্যাচটির জন্য খেলোয়াড়দের সতেজ রাখতে হবে—এ ভাবনা থেকেই কাল লিগে লেঁসের বিপক্ষে ম্যাচে অনেককেই বিশ্রাম দিয়েছেন কোচ মরিসিও পচেত্তিনো। কিলিয়ান এমবাপ্পে এমনিতেই চোটের কারণে খেলতে পারেননি, বিশ্রামে ছিলেন আনহেল দি মারিয়া। তবে নেইমার ঠিকই খেলেছেন লেঁসের বিপক্ষে। আর একটি গোল করে এবং আরেকটি গোলে সহায়তা করে লেঁসের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয়ে নায়কও ব্রাজিলিয়ান তারকাই।

নেইমার, সারাবিয়া ও ড্রাক্সলারকে নিয়ে গড়া পিএসজির আক্রমণভাগ শুরু থেকেই লেঁসের রক্ষণে চাপ তৈরি করে খেলতে থাকে। তবে ভালো কিছু সুযোগ তৈরি করেও গোল পাচ্ছিল না তারা। নেইমারের আড়াআড়ি একটি শট গোলকিপারকে পরাস্ত করলেও একটুর জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়। আরেকটি শট ফিরে আসে পোস্টে লেগে। প্রথম গোল পেতে পিএসজিকে অপেক্ষা করতে হয় ৩৩ মিনিট পর্যন্ত।

default-image
বিজ্ঞাপন

৩৩ মিনিটে পিএসজিকে এগিয়ে দেওয়া গোলটি করেছেন নেইমারই। মাঝমাঠের একটু ওপর থেকে আসা একটি পাস ধরে নেইমার বল নিয়ে ঢুকে পড়েন লেঁসের বক্সে। এগিয়ে আসা একজন ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে তিনি বল পাঠিয়ে দেন জালে। পিএসজি দ্বিতীয় গোলটি পায় ৫৯ মিনিটে। নেইমারের নেওয়া কর্নার থেকে হেডে গোলটি করেছেন আরেক ব্রাজিলিয়ান, মিডফিল্ডার মার্কিনিওস। ৬১ মিনিটে লেঁস একটি গোল শোধ করলেও ম্যাচের ফলে সেটা কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি।

লেঁসের বিপক্ষে জয়ে অল্প সময়ের জন্য পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠেছিল পিএসজি। কিন্তু পরে লিল নিজেদের মাঠে নিসকে ২-০ গোলে হারিয়ে আবার শীর্ষে উঠে যায়। ৩৫ ম্যাচ খেলে লিলের পয়েন্ট ৭৬। সমান ম্যাচে ৭৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে পিএসজি। লিল নিজেদের বাকি তিনটি ম্যাচ জিতলেই শিরোপা ঘরে তুলবে।

default-image

শিরোপা জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে চার ম্যাচের চারটিই জিততে হবে—এমন হিসাব নিয়েই কাল লেঁসের বিপক্ষে খেলতে নেমেছিল পিএসজি। ম্যাচ শেষে ডিফেন্ডার কিমপেম্বে বলেছেন, ‘ম্যাচটি আমাদের জন্য কঠিন ছিল, বিশেষ করে দ্বিতীয়ার্ধে। ম্যাচটি খেলতে নামার আগে আমাদের হিসাব ছিল চার ম্যাচে চারটি জয় পেতে হবে। তাই আমাদের ৩টি পয়েন্ট পেতেই হতো। এটাই গুরুত্বপূর্ণ।’

পচেত্তিনো অবশ্য লেঁসের বিপক্ষে ম্যাচের চেয়ে বেশি ভাবছেন ম্যান সিটির বিপক্ষে মঙ্গলবারের ম্যাচ নিয়ে। প্যারিসের সংবাদমাধ্যমের নজরও সেদিকেই বেশি। তাই তো ম্যাচ শেষ পচেত্তিনোকে তারা প্রশ্ন করেছে এমবাপ্পের চোটের অবস্থা নিয়ে। সেই প্রশ্নের উত্তরে আমার কথাই শুনিয়েছেন পচেত্তিনো, ‘আমি সব সময়ই আশাবাদী। এখনো (এমবাপ্পের সিটির বিপক্ষে) খেলা নিয়ে আশাবাদী। সে দলের সঙ্গে সিটির মাঠে যাবে। তবে আমরা তাকে খেলাব কি না, সেই সিদ্ধান্ত ম্যাচের আগেই নেব।’

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন