আজ নেপাল কিরগিজদের বিপক্ষে না হারলেই বাংলাদেশ চলে যাবে তিনজাতি টুর্নামেন্টের ফাইনালে।
আজ নেপাল কিরগিজদের বিপক্ষে না হারলেই বাংলাদেশ চলে যাবে তিনজাতি টুর্নামেন্টের ফাইনালে।ছবি: বাফুফে

কাঠমান্ডুর পাঁচ তারকা হোটেলে একসঙ্গেই আছে তিন দল—কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব-২৩, বাংলাদেশ ও স্বাগতিক নেপাল। লবিতে বসলেই বোঝা যায়, নেপাল আর বাংলাদেশের ফুটবলারদের ব্যক্তিগত সম্পর্কগুলো কেমন! আড্ডা চলছে ধুমছে। মাঠের লড়াইয়ে প্রতিপক্ষ হলেও বাংলাদেশি আর নেপালি ফুটবলারদের মধ্যে বন্ধুত্ব চোখ এড়ায় না। আন্তর্জাতিক ফুটবলে দুই দল এতবার মুখোমুখি হয়েছে, খেলোয়াড়দের সম্পর্কটাও পৌঁছে গেছে ব্যক্তিগত পর্যায়ে।

এমনিতেই বাংলাদেশের প্রতি নেপালি সাধারণ মানুষের অন্য রকম একটা ভালো লাগা কাজ করে। সেটির দেখা মিলেছে অনেকবারই। নেপালি ফুটবলার রোহিত চাঁদের কথা শুনলে রীতিমতো অবাকই হতে হয়। তিনি তো তিন জাতি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশকে ফাইনালেই তুলে দিতে চান!

বাংলাদেশের ফুটবলারদের সঙ্গে সম্পর্কটা উপভোগ করেন রোহিতও, ‘বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী। মাঠে আমরা একে অপরের প্রতিপক্ষ হলেও বাংলাদেশের ফুটবলারদের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কটা অনেক ভালো। আমরা একে অপরকে চিনি। আমাদের মধ্যে ফুটবল নিয়ে অনেক কথাও হয়।’

default-image
বিজ্ঞাপন

আজ নেপাল খেলবে কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব-২৩ দলের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ ১-০ গোলে কিরগিজ দলটাকে হারিয়ে ফাইনালে এক পা দিয়েই রেখেছে। আজ নেপাল কিরগিজদের বিপক্ষে যদি না হারে, তাহলেই নিশ্চিত হয়ে যাবে বাংলাদেশের ফাইনালে না খেলাটা।

রোহিত ইন্দোনেশীয় লিগে খেলেন টানা তিন মৌসুম ধরে। সে ব্যস্ততার কারণেই গত নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু সিরিজে খেলতে ঢাকায় আসেননি। তিনি চান আজই বাংলাদেশকে ফাইনালে তুলে দিতে। এর কারণও ব্যাখ্যা করেছেন রোহিত, ‘নেপাল-বাংলাদেশ ফাইনালে খেললে খুব জমজমাট ম্যাচ হবে। দর্শকদের মধ্যে সাড়া পড়বে অনেক। কিন্তু কিরগিজস্তান হলে দর্শকদের মধ্যে তেমন সাড়া না–ও পড়তে পারে।’

নেপালি ফুটবলার ফাইনালে বাংলাদেশকে প্রতিপক্ষ হিসেবে কেন চান, এটার একটা গূঢ় কারণও আছে। সেটি তিনি ইঙ্গিতে স্বীকারও করেছেন। গত নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু সিরিজে দুটি ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ ও নেপাল। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছিল ২-০ গোলে। শেষ ম্যাচটা ড্র করে। তাই ট্রফি ঘরেই রেখে দিয়েছিলেন জামাল ভূঁইয়ারা। রোহিতও চান নিজেদের ট্রফি নিজেদের কাছে রেখে দিতে। আর সেটি বাংলাদেশকে হারিয়েই।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন