বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আর ইংল্যান্ড গড়েছে রেকর্ড। র‍্যাঙ্কিংয়ের ৩ নম্বরে উঠে এসেছে ইংলিশরা, যা দেশটির ইতিহাসের সেরা র‍্যাঙ্কিং। ৯ বছর আগে ২০১২ সালেও র‍্যাঙ্কিংয়ের ৩-এ ছিল ইংলিশরা। গত ইউরোতে রানার্সআপ ইংল্যান্ড গত মাসে ছিল ৪ নম্বরে, এবার এক ধাপ ওপরে উঠেছে।

default-image

র‍্যাঙ্কিংয়ে যথারীতি ১ নম্বর অবস্থানটা ধরে রেখেছে বেলজিয়াম। বড় কোনো টুর্নামেন্ট না জিতেও ২০১৮ সাল থেকে শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছে তারা। ইংলিশদের ৩ নম্বরে জায়গা দিতে গিয়ে অবনমন হয়েছে বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের। ৩ থেকে ৪–এ নেমে গেছে ফরাসিরা। ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালি আছে তাদের আগের অবস্থান ৫ নম্বরে। স্পেন ও পর্তুগাল নিজেদের মধ্যে জায়গা বদল করেছে—৭ নম্বরে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দল, এক ধাপ নিচে স্পেন।

শীর্ষ দশের ৭টি দেশই ইউরোপিয়ান, বাকি তিনটি ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা ও মেক্সিকো। বিশ্ব ফুটবলে জনপ্রিয়তম দুই দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা সেরা দশে নিজেদের অবস্থান সুসংহত রেখেছে। ব্রাজিল আছে ২ নম্বরে, আর্জেন্টিনা ৬ নম্বরে, মেক্সিকো ৯। র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে বড় উন্নতি হয়েছে আফ্রিকার দেশ লিবিয়ার। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে অ্যাঙ্গোলা ও গ্যাবনকে হারিয়ে ১২ ধাপ লাফিয়ে ১১০ নম্বরে উঠে এসেছে তারা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন