বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তাতে অবশ্য ভাগ্যে কোনো পরিবর্তন আসেনি। প্রথম কয়েক ম্যাচে দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন করিম বেনজেমা ও ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। এ দুজন দলের রক্ষণের খুঁতগুলো ঢেকে দিলেও এখন আর গোলবন্যায় তা ঢাকা যাচ্ছে না। এস্পানিওল আজ যখনই আক্রমণ করেছেন, প্রতিবারই ত্রাস ছড়িয়েছে। রিয়ালের আক্রমণ যেখানে বক্সের আশপাশে ঘুরপাক খাচ্ছিল, সেখানে প্রায় প্রতিটি আক্রমণেই বক্সের মধ্যে ঢুকে পড়ছিলেন রাউল দি তমাস ও অ্যালেক্সিজ ভিদালরা।

১৭ মিনিটে দি তমাসের গোলে রিয়াল রক্ষণের সবার খুঁত ধরা পড়েছে। ডান প্রান্ত দিয়ে দ্রুতগতিতে ঢুকে পড়েন এমবারবা। তাঁকে আটকাতে পারেননি আলাবা। ওদিকে নাচো সেদিকে এগিয়ে যাননি। এমবারবা ক্রস করতে পারেন, এটা ভেবে পথ আটকাতে পারতেন মিলিতাও। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের মধ্যে সে চেষ্টা দেখা যায়নি। আর বক্সে ঢুকে পড়া দি তমাসের সঙ্গে সেটে থেকেও গোল করা থেকে আটকাতে পারেননি ভাসকেজ। গোলের পরও রিয়ালের আক্রমণে কোনো উল্লেখযোগ্য উন্নতি দেখা যায়নি। বরং গোছানো ফুটবল আর প্রতি–আক্রমণে এস্পানিওলই ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছিল।

default-image

রিয়ালের সাবেক খেলোয়াড় দি তমাস এগিয়ে দিয়েছিলেন, আর ব্যবধান বাড়ালেন বার্সেলোনার সাবেক খেলোয়াড়। ৬০ মিনিটে আবারও রিয়াল রক্ষণের কঙ্কাল বেড়িয়ে গেল। এ মৌসুমে এর আগেও বেশ কয়েক ম্যাচে নাচো যে ভুল করেছেন, সেটা করে বসলেন। অ্যালেক্সিজ ভিদালকে আগ বাড়িয়ে চার্জ করতে গেলেন। তাঁর দুই পায়ের মাঝ দিয়ে বল পাঠিয়ে দিয়ে বেড়িয়ে গিয়ে ব্যবধান বাড়ালেন ভিদাল।

খানিক পরই ব্যবধান ৩-০ হতে পারত। ৬৩ মিনিটে এক কর্নার নিতে রিয়ালের প্রায় সবাই এস্পানিওলের বক্সের কাছে চলে গিয়েছিলেন। প্রতি–আক্রমণে ওঠা সের্হি দারদের গোলকিপারকে একা পেয়েও বাইরে মেরেছেন।

default-image

৭১ মিনিটে এমন এক প্রতি–আক্রমণের সুবিধা নিয়ে ম্যাচে ফেরার আশা জাগায় রিয়াল। প্রতি–আক্রমণ থেকে বল পেয়ে লুকা ইয়োভিচ করিম বেনজেমাকে বল দেন। বক্সের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে একেই টেনে নিয়ে গোল করেন বেনজেমা। এ গোলের আগে–পরে বেনজেমা আরও দুবার জালে বল পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু প্রথমটি ইয়োভিচ ও পরেরটি বেনজেমার অফসাইডের কারণে বাতিল হয়েছে।

এ হারের পরও লিগে শীর্ষে আছে রিয়াল। আতলেতিকো মাদ্রিদেরও রিয়ালের মতো ৮ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট হলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে আছে রিয়াল। তবে সেভিয়া তাদের হাতে থাকা দুটি ম্যাচ থেকে ৪ পয়েন্ট পেলে দুই দলকে টপকে যাবে। তবে রিয়ালকে দুশ্চিন্তায় ফেলছে দলের ফর্ম। মায়োর্কাকে ৬-১ গোলে হারানোর পর এ নিয়ে টানা তিন ম্যাচ জয়হীন দলটি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন