নেইমারের ক্লাব পিএসজি বার্সার শত হুমকি-হুঁশিয়ারিকে যেন পাত্তাই দিচ্ছে না।
নেইমারের ক্লাব পিএসজি বার্সার শত হুমকি-হুঁশিয়ারিকে যেন পাত্তাই দিচ্ছে না। ছবি: রয়টার্স

কী একটা রশি টানাটানিই না শুরু হলো বার্সেলোনা আর পিএসজির মধ্যে!

লিওনেল মেসিকে বার্সা ধরে রাখতে চায়, ওদিকে এই মৌসুমে বার্সার সঙ্গে মেসির চুক্তি শেষ হওয়ার পর তাঁকে পাওয়ার ইচ্ছার কথা পিএসজি মোটামুটি বাজার করে ফেলেছে। কিন্তু বার্সার আবার সেসব একেবারেই পছন্দ হচ্ছে না। পইপই করে জানিয়ে দিয়েছে, পিএসজির এভাবে মেসিকে নিয়ে আগ বাড়িয়ে কথা বলা তাদের পছন্দ হচ্ছে না।

এদিকে এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোতে বার্সা আর পিএসজি মুখোমুখি হচ্ছে, ১৬ ফেব্রুয়ারি বার্সার মাঠ ক্যাম্প ন্যুতে প্রথম লেগ। অনেক বার্সা সমর্থকের ধারণা, পিএসজি এসব বলে মেসির মনোযোগ নাড়িয়ে দিতে চাইছে।

কিন্তু বার্সা কর্মকর্তাদের হুঁশিয়ারি কিংবা বার্সা সমর্থকদের উষ্মা, পিএসজি যেন কোনো কিছু গায়েই মাখছে না! নতুন করে পিএসজির মেসিকে দলে নিতে চাওয়ার ইচ্ছার কথা বলেননি কেউ, তবে পিএসজিতে মেসির সঙ্গে খেলার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন পিএসজির ইতালিয়ান মিডফিল্ডার মার্কো ভেরাত্তি। মাঝমাঠে তিনি আর সামনে নেইমার আর মেসির যুগলবন্দী—এমনটা দেখতে যেন তর সইছে না ভেরাত্তির।

বিজ্ঞাপন

নেইমার থেকে শুরু, এরপর পিএসজির ক্রীড়া পরিচালক লিওনার্দো, পিএসজিতে খেলা আর্জেন্টিনা জাতীয় দলে মেসির দুই সতীর্থ লিয়ান্দ্রো পারেদেস ও আনহেল দি মারিয়ার পর পিএসজির আর্জেন্টাইন কোচ মরিসিও পচেত্তিনোও পিএসজির মেসিকে দলে নিতে চাওয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। কেউ সরাসরি, কেউবা আকারে ইঙ্গিতে। এর মধ্যে বার্সার পক্ষ থেকে দুবার হুমকি এসেছে।

default-image

প্রথমে বার্সার আগামী সভাপতি নির্বাচনে প্রার্থী হোয়ান লাপোর্তা প্রতিবাদ জানালেন। বললেন, পিএসজির এভাবে মেসিকে দলে নিতে চাওয়ার ইচ্ছার কথা বলা বার্সাকে অপমান করা।

তারপর আবার উল্টো যুক্তিও দিয়েছেন, উয়েফার বেঁধে দেওয়া আর্থিক সংগতির নীতি না ভাঙলে পিএসজির পক্ষে মেসিকে কেনা সম্ভব নয়। তেমন হলে আগে থেকেই উয়েফা, ফিফা ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আদালতকেও এদিকে চোখ রাখতে আহ্বান জানিয়েছেন লাপোর্তা। পিএসজির প্রতি যেটিকে প্রচ্ছন্ন হুমকিই!

লাপোর্তার পর বার্সেলোনার কোচ রোনাল্ড কোমানও এ নিয়ে বিরক্তি জানিয়ে দিয়েছেন। তাঁর চোখেও বার্সার একজন খেলোয়াড়কে নিয়ে পিএসজির এভাবে প্রকাশ্যে কথা বলা মানে বার্সাকে অপমান করা।

মেসি অবশ্য এসব ব্যাপারে পাত্তা দিচ্ছেন না। জুনে বার্সার সঙ্গে তাঁর চুক্তি শেষ, জুনের পর কোন ক্লাবে যেতে চান—সে ব্যাপারে চাইলে জানুয়ারি থেকে যেকোনো ক্লাবের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন মেসি। কিন্তু ৩৩ বছর বয়সী আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড গত মাসেই এক সাক্ষাৎকারে জানিয়ে দিয়েছেন, জুনের আগে তিনি অন্য কোনো ক্লাবের সঙ্গে কথা বলবেন না।

এর মধ্যে বার্সেলোনাভিত্তিক স্প্যানিশ দৈনিক স্পোর্ত জানিয়েছে, পিএসজির তাঁকে নিয়ে এত কথায় মেসি নিজেও বিরক্ত। জুনের আগে তিনি এসব ভাবতে চান না। আর বার্সায় চুক্তি নবায়ন করবেন কি না, সেই সিদ্ধান্ত নেবেন আগামী মার্চের নির্বাচনে বার্সার সভাপতি হিসেবে কে নির্বাচিত হন আর বার্সাকে আবার প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ দল হিসেবে গড়তে তাঁর পরিকল্পনা কী—সেসব দেখার পর।

default-image

এর মধ্যেও পিএসজির মেসিকে নিয়ে কথা থেমে নেই। সংবাদমাধ্যমের কাছে এটি আগ্রহের বিষয়, তাই পিএসজির কাউকে পেলেই প্রশ্ন ছুটে যাচ্ছে মেসিকে ঘিরে। পিএসজির খেলোয়াড়-কর্মকর্তারাও উত্তর দিয়ে যাচ্ছেন। কাল যেমন দিলেন ভেরাত্তি।

বিজ্ঞাপন

ফরাসি টিভি চ্যানেল কানাল প্লুসে ইতালিয়ান মিডফিল্ডার বললেন, ‘অবশ্যই আমি মেসির সঙ্গে খেলতে চাইব। ওকে দলে পাওয়া খুব দারুণ কিছুই হবে। সেটা হবে ফুটবলের কাছ থেকে আমার আরেকটি প্রাপ্তি।’

নেইমার নিজে গত ডিসেম্বরে মেসির সঙ্গে আগামী মৌসুমে একই দলে খেলার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। ভেরাত্তিও নেইমারের পাশে মেসিকে দেখার কল্পনায় বিভোর, ‘আমি শুধু নেইমার আর মেসিকে পাস দেব আর পেছনে (মাঝমাঠে) দাঁড়িয়ে থেকে ওদের খেলা উপভোগ করব।’

শুধু পিএসজির খেলোয়াড়-কর্মকর্তাই কেন, ফরাসি সংবাদমাধ্যমও তো বসে নেই! ব্যালন ডি’অর পুরস্কার যারা দেয়, ফ্রান্সের বিখ্যাত সেই সাময়িকী ‘ফ্রান্স ফুটবল’–এর প্রচ্ছদজুড়ে মেসির গায়ে পিএসজির জার্সি এঁকে এক ছবি প্রকাশিত হয়েছে। সঙ্গে লেখা, ‘লিও মেসির জন্য পিএসজির গোপন কার্ড।’

প্রচ্ছদেই গোপন সেই কার্ডগুলোর ধারণা দেওয়া আছে—পর্দার আড়ালে নেইমারের দিক থেকে মেসিকে রাজি করানো, মেসিকে আনার ক্ষেত্রে পিএসজির সুবিধাজনক শর্তগুলো আর সম্ভাব্য আর্থিক প্রণোদনা।

পিএসজিতে নেইমার আছেন। পিএসজির টাকাপয়সা আছে। পিএসজিতে আর্জেন্টিনার অনেক খেলোয়াড় আছেন, পিএসজির কোচও আর্জেন্টাইন। প্যারিস থেকে বার্সেলোনা বিমানে ঘণ্টা দেড়েকের পথ, সে ক্ষেত্রে মেসির পরিবার বার্সায় থাকলেও তাঁর পক্ষে প্যারিসে থাকা খুব একটা ঝামেলার হবে না। প্যারিসের আবহাওয়া ইংল্যান্ডের মতো এত শীতল নয়, ম্যানচেস্টার সিটিতে গেলে যে আবহাওয়া সহ্য করতে হবে মেসিকে।

এত সব যুক্তি বিবেচনায় নিয়েই মেসির পিএসজিতে যাওয়ার গুঞ্জন দিন দিন বাড়ছেই।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন