সেই ২০০৬ চ্যাম্পিয়নস লিগ নিয়ে মেসির নিজেরও একটা আক্ষেপ আছে। আসলে একটি নয়, দুটি আক্ষেপ। একটি আক্ষেপ তো ফাইনালে খেলতে না পারার, সেটি সবাই জানেন। অন্যটির কথা নতুন করে জানা গেল মেসির সর্বশেষ সাক্ষাৎকারে। ফাইনালে বার্সেলোনার শিরোপা জয়ের পর সেদিন অভিমানে শিরোপা উৎসবেই যোগ দেননি মেসি। অদৃষ্টে সেই অভিমান ছিল ফাইনালে খেলতে না পারা নিয়ে। কিন্তু সেদিনের তরুণ মেসির শেষ পর্যন্ত শিরোপা উৎসবে শামিল না হওয়া নিয়ে আক্ষেপের কথা এখন এসে জানালেন এই ৩৪ বছরের মেসি।


পুরোনো আক্ষেপের কথা নতুন করে আসছে মেসির সর্বশেষ সাক্ষাৎকারের পর। দিন চারেক আগে ক্যারিয়ারের সপ্তম ব্যালন ডি’অর জিতে অনন্য উচ্চতায় উঠেছেন মেসি। তাঁর ছয় ব্যালন ডি’অরই রেকর্ড ছিল, সেটিকে আরেকটু বাড়িয়ে নিয়েছেন। এমন কীর্তি ফুটবল আর কখনো কারও কাছে দেখবে কি না, সন্দেহ থাকে বটে!

তা সেই কীর্তি গড়ার পর ব্যালন ডি’অরের আয়োজক প্রতিষ্ঠান ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীতে একটা সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মেসি। সেখানেই উঠে এসেছে তাঁর ২০০৬ চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল নিয়ে আক্ষেপের কথা।


সে সময়ে ১৮ বছর বয়সের মেসির সিনিয়র ক্যারিয়ারের প্রথম বড় ফাইনাল ছিল সেটি। কিন্তু সেবার দারুণ খেলতে থাকা মেসি চেলসির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে বড় চোট পান। এর আগে প্রথম লেগে চেলসির ডিফেন্ডারদের রীতিমতো নাচিয়ে ছেড়েছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। কিন্তু চেলসির বিপক্ষে দ্বিতীয় লেগে সেই যে চোট পেলেন, কোয়ার্টার আর সেমিফাইনালে খেলা হয়নি। কোনোরকমে ফাইনালের আগে চোট কাটিয়ে ওঠেন বটে, কিন্তু তাঁর ফিটনেস নিয়ে শঙ্কা থাকায় সে সময়ের বার্সা কোচ ফ্রাঙ্ক রাইকার্ড মেসিকে দলেই রাখেননি। আক্রমণে রোনালদিনিও-ইতোর সঙ্গে নামেন লুদোভিক জুলি। প্যারিসে আর্সেনালের বিপক্ষে সেই ফাইনালে শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জেতে বার্সা।

কিন্তু নিজের প্রথম স্বপ্নের ফাইনালে খেলতে না পেরে মেসি এতটাই মুষড়ে পড়েছিলেন যে ম্যাচ শেষে দলের শিরোপা উৎসবের সময় ড্রেসিংরুমেই একা বসে ছিলেন! এ নিয়ে আক্ষেপের কথা আগেও জানিয়েছেন, নতুন করে ফ্রান্স ফুটবলের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এ প্রসঙ্গে মেসি বলেছেন, ‘এমনটা করার কারণে আমি খুব লজ্জিত। কী হচ্ছে, সেটা আসলে বুঝতে পারিনি তখন। ওই মুহূর্তে শুধু ম্যাচ খেলতে না পারার কষ্টের কথাই মাথায় আসছিল। সেদিন অন্তত বেঞ্চে থাকতে পারলেও ভালো লাগত।’


চোটে পড়ার আগে ভালো খেলছিলেন বলেই চোট থেকে ফিরে এসে খেলার আশা ছিল তাঁর। কিন্তু সেটি এক পাশে রেখেই উদ্‌যাপনে না যাওয়ার আক্ষেপের শেষ নেই মেসির, ‘(চেলসির বিপক্ষে) চোটে পড়ার আগপর্যন্ত আমি চ্যাম্পিয়নস লিগে ভালোই খেলছিলাম। অনেক হতাশ ছিলাম সেদিন। কিন্তু (ম্যাচের পরের) ওই ঘটনার জন্য এখন অনেক বেশি অনুতাপ হয়।’


কেন সেদিন কষ্টটা বেশি হয়েছিল, সেটি আরও পরিষ্কার হয় মেসির পরের কথায়, ‘আমরা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছিলাম, তখন মনে হচ্ছিল, এরপর হয়তো আর কখনো জেতাই হবে না এটা। কারণ, এ টুর্নামেন্ট জেতা অনেক কঠিন। সৌভাগ্যবশত পরে সেটা (চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জয়) উপভোগ করার সুযোগ হয়েছিল আমার।’