রিয়াল-বার্সা-আতলেতিকোসহ ১২ দল মিলে গড়তে চেয়েছে ইউরোপিয়ান সুপার লিগ।
রিয়াল-বার্সা-আতলেতিকোসহ ১২ দল মিলে গড়তে চেয়েছে ইউরোপিয়ান সুপার লিগ। ছবি: রয়টার্স

এক দিনের মধ্যেই কি তবে শেষ যত হাঁকডাক!

ইউরোপের ফুটবলে বদল আনার ডাক দিয়ে এক দিন আগেই ‘কুলীন’ ১২টি ক্লাব ইউরোপিয়ান সুপার লিগের ঘোষণা দিয়েছিল। উয়েফার আয়োজনে চ্যাম্পিয়নস লিগ আর ইউরোপা লিগের বদলে টুর্নামেন্টটা আনছে তারা, এ-ই ছিল ঘোষণা। যেটিকে বলা হচ্ছিল বিদ্রোহী লিগ!

default-image

রিয়াল মাদ্রিদের সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ আর জুভেন্টাসের আন্দ্রেয়া আনেয়েল্লি এর পেছনে সবচেয়ে বড় নাটের গুরু। তাঁদের পরিকল্পনার সঙ্গে যোগ দিয়েছিল বার্সেলোনা, আতলেতিকো মাদ্রিদ, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল, চেলসি, ম্যানচেস্টার সিটি, আর্সেনাল, টটেনহাম, এসি মিলান আর ইন্টার মিলান।

ফুটবলে বদলটদল আর কী! সাদা চোখের বিশ্লেষণই বলে দিচ্ছিল, লোভই এই ‘বিদ্রোহে’র মূল কারণ। চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে যে টাকা পাচ্ছিল, তাতে ক্লাবগুলোর পেট হয়তো ভরছিল, তবে মন ভরছিল না নিশ্চিত। এর মধ্যে করোনাভাইরাস আসায় ক্লাবগুলোর অর্থের বানে টান লেগেছে। ফল? তড়িঘড়ি করে ‘বিদ্রোহে’ নামল ১২ ক্লাব!

বিজ্ঞাপন

কিন্তু লোভের গর্ভে জন্ম নেওয়া বিদ্রোহের যে দম থাকে না!

ইতিহাস তা-ই বলে। ইতিহাস আরেকবার শিখিয়ে দিয়ে গেল ইউরোপের কুলীন ক্লাবগুলোকেও।

ক্লাবের সমর্থক, খেলোয়াড়, কোচ কী চান; তার তোয়াক্কা না করে ক্লাবগুলোর অর্থলোভী মালিকপক্ষ বিদ্রোহী টুর্নামেন্টে টেনে নিয়ে গেল ক্লাবগুলোকে। রিয়াল মাদ্রিদ, লিভারপুল, এসি মিলান, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, বার্সেলোনা...ক্লাবগুলোর এত বছরের কৌলিন্যের ভাগ এই মালিকদের আছে, কিন্তু সেগুলোকে নিজেদের স্বার্থে, নিজেদের লোভে ব্যবহারের অধিকার তো কেউ দেয়নি তাঁদের!

default-image

সমর্থকেরা তা-ই মনে করিয়ে দিলেন! লিভারপুল থেকে শুরু, ‘ইউ উইল নেভার ওয়াক অ্যালোন’কে বিশ্বাসে গেঁথে নেওয়া সমর্থকেরা ক্লাবটার মালিকপক্ষ এফএসজিকে জানিয়ে দিলেন, ‘এ বেলা তোমরা একাই হাঁটবে! ’ একে একে ইংল্যান্ডের সব ক্লাবের সমর্থকেরা বিদ্রোহে নামলেন। ওদিকে উয়েফা-ফিফা এই টুর্নামেন্টে যাওয়া ক্লাবগুলোকে নিষিদ্ধ করার হুমকি দিয়েছে। ফল? ইংল্যান্ডের ছয় ক্লাব কাল রাতে সরে গেছে বিদ্রোহী লিগ থেকে। বিদ্রোহ? দমিত!

কিন্তু স্পেন থেকে এখনো কোনো আওয়াজ আসেনি। ইতালি থেকেও নয়। বার্সা-রিয়াল কিংবা জুভেন্টাস-মিলানের মতো ক্লাবগুলো কী করবে? সুপার লিগ যে আর হচ্ছে না, তা মোটামুটি নিশ্চিত। এখন শুধু বাকি ছয় ক্লাবেরও সরে আসার ঘোষণার অপেক্ষা। কিন্তু তা কি আসবে? নাকি পেরেজ-আনেয়েল্লি কিংবা বার্সা সভাপতি হোয়ান লাপোর্তার মতো লোকজন অন্য কোনো বিকল্পের খোঁজে আছেন?

পাঠক, আপনার কী মনে হয়, বার্সা-রিয়াল-জুভের মতো ক্লাবগুলোরও উচিত ইংলিশ ক্লাবগুলোর পথ অনুসরণ করা?

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন