default-image

এ বছরের ব্যালন ডি’অর ঘোষণা করা হবে আজ রাতে। এ নিয়ে ভোটাভুটি শেষ হয়ে গেছে বেশ আগেই। এর মাঝেই অবশ্য গুঞ্জন উঠেছে বিজয়ীর নাম ফাঁস হয়ে যাওয়ার। ষষ্ঠবারের মতো নাকি ব্যালন ডি’অর জিততে চলেছেন লিওনেল মেসি। ভোটাভুটির সুযোগ থাকলে গত কাল রাতেই সে ক্ষেত্রে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নিতে পারতেন মেসি। বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড আরও একবার দেখালেন ম্যাচ বদলে দেওয়ার ক্ষমতায় তাঁর ধারে কাছে কেউ নেই। মেসির একমাত্র গোলে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে ওয়ান্ডা মেট্রোপলিতানো থেকে জয় নিয়ে ফিরেছে বার্সেলোনা।

রিয়াল মাদ্রিদকে টপকে বার্সেলোনাকে লিগের শীর্ষে নেওয়া মেসির গোলটি এসেছে ৮৬ মিনিটে। লা লিগার সেরা দুই গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন ও ইয়ান অবলাকের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের ম্যাচে এর আগে দুই দল বহু চেষ্টা করেও গোলের দেখা পাচ্ছিল না। ফলে গোলশূন্য এক ড্রয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিল অনেকেই। কিন্তু কোচ আরনেস্তো ভালভার্দে যুগের সেই পরিচিত দৃশ্য হাজির হলো আরও একবার। আরও একবার যখন শেষ বলে মনে হচ্ছিল, তখনই এক মুহূর্তের মেসি-ঝলক, আর তাতেই ব্যবধান গড়ে দেওয়া।

ম্যাচ শেষে ভালভার্দেই স্বীকার করেছেন, মেসিকে পেয়ে কতটা সৌভাগ্যবান তিনি, ‘কঠিন ম্যাচে লিওকে দলে পাওয়া সব সময়ই বাড়তি সুবিধা।’ ম্যাচে ঘরের মাঠের সুবিধা নিয়ে অ্যাটলেটিকোই আক্রমণ করেছে বেশি। বার্সেলোনা যে কয়েকটি সুযোগ সৃষ্টি করেছে সবই মেসির সুবাদে। এর মাঝে একটি তো প্রায় নিশ্চিত গোল করার সুযোগ ছিল। কিন্তু এ মৌসুমেই অ্যাটলেটিকো থেকে বার্সেলোনায় যাওয়া আঁতোয়ান গ্রিজমান দর্শকের দুয়োর চাপে বল গ্যালারিতে পাঠিয়েছেন। আর অন্যদিকে হারমোসো ও মোরাতার দুটি নিশ্চিত গোল বাঁচিয়ে দিয়েছেন টের স্টেগেন।

মেসির সুবাদে আবারও বেঁচে যাওয়া ভালভার্দে অবধ্য নিজের দলের খেলায় সন্তুষ্ট, ‘আমার ম্যাচের সবকিছুই ভালো লাগে। শুরুতে একটু কষ্ট হয়েছে এবং তিন পয়েন্ট পেয়েছি। খারাপ বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের এখনই ভাবতে হবে না। এ মাঠে কষ্ট করতেই হবে। কিন্তু আমরা জিতেছি এবং গুরুত্বপূর্ণ তিনটি পয়েন্ট পেয়েছি।এটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন