আতলেতিকোর হয়ে চলতি মৌসুমে লা লিগায় ৬ ম্যাচ খেলে ৫ গোল করেছেন সুয়ারেজ।
আতলেতিকোর হয়ে চলতি মৌসুমে লা লিগায় ৬ ম্যাচ খেলে ৫ গোল করেছেন সুয়ারেজ। ছবি: রয়টার্স

বার্সেলোনা ছাড়ার ইচ্ছা তাঁর ছিল না। বন্ধু লিওনেল মেসির সঙ্গে আরও কয়েকটা মৌসুম ন্যু ক্যাম্পেই থেকে যেতে চেয়েছিলেন লুইস সুয়ারেজ। কিন্তু পেশাদার পৃথিবীতে ব্যক্তির চাওয়া-পাওয়ার পাত্তা কোথায়? বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষ ভেবেছে সুয়ারেজ বুড়িয়ে গেছেন, এখন আর তাঁকে প্রয়োজন নেই! সর্বশেষ দলবদলের বাজারে তাই তাঁকে ন্যু ক্যাম্প ছাড়তে বাধ্য করে বার্সেলোনা। ন্যু ক্যাম্পে ব্রাত্য হয়ে পড়া সুয়ারেজ নাম লেখান আতলেতিকো মাদ্রিদে।

২০১৪ সালে লিভারপুল ছেড়ে বার্সেলোনায় নাম লেখানো সুয়ারেজের অবশ্য সর্বশেষ দুটি মৌসুম তেমন ভালোও কাটেনি। সব মিলিয়ে বার্সার হয়ে ২৮৩ ম্যাচ খেলে ১৯৮ গোল উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের। আর সর্বশেষ মৌসুমে করেছেন মাত্র ৪৬ গোল। তা যাই–হোক, বার্সা ছাড়ার সময় আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিজ্ঞার মতো করেই একটি ঘোষণা দিয়েছিলেন—নিজের ছায়া থেকে বেরিয়ে আসবেন এবং সেটা আরও শক্তিশালী হয়ে।

বিজ্ঞাপন
default-image

নিজের দেওয়া কথা রেখে চলেছেন ৩৩ বছর বয়সী সুয়ারেজ। নতুন মৌসুমে আতলেতিকোর হয়ে অসাধারণ খেলছেন তিনি। ফিরে পেয়েছেন গোলের সেই পুরোনো ঝরনাধারা। আতলেতিকো তো বটেই, চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত যৌথভাবে লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতা সুয়ারেজ। আতলেতিকোর হয়ে লিগে ৬ ম্যাচ খেলে ৫ গোল লিভারপুলের সাবেক স্ট্রাইকারের। আতলেতিকোর জোয়াও ফেলিক্স আর রিয়াল সোসিয়েদাদের মিকেল ওইয়ারজাবাইয়ের গোলও পাঁচটি করে।

কাদিজের বিপক্ষে কাল আতলেতিকোর ৪-০ গোলের জয়েও একটি গোল করেছেন সুয়ারেজ। এই গোলে একটি কীর্তিও গড়া হয়ে গেছে উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের। ৫১ মিনিটে দলের তৃতীয় গোলটি করে লা লিগায় খেলা ২৯টি প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই গোল পাওয়া হয়ে গেছে তাঁর। গোলের সামনে এখনো সুয়ারেজ কতটা নিখুঁত সেটা স্পষ্ট হবে আরেকটি পরিসংখ্যানে। লা লিগায় এবার যে পাঁচটি গোল তিনি পেয়েছেন তা গোলে করা মাত্র আটটি শট থেকে। অন্যদিকে মেসি চলতি মৌসুমে লা লিগায় তিন গোল পেতে গোলে শট নিয়েছেন ১৬টি। বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন তারকার তিন গোলের দুটিই আবার পেনাল্টি থেকে।

default-image

কাদিজের বিপক্ষে জয়ের পর এখন হয়তো সুয়ারেজ উরুগুয়ে নিয়ে ভাববেন। এ মাসেই যে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে উরুগুয়ে মুখোমুখি হবে কলম্বিয়া ও ব্রাজিলের। ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচে হয়তো তাঁর দেখা হয়ে যাবে বার্সেলোনার পুরোনো সতীর্থ নেইমারের সঙ্গে। এটা অবশ্য নির্ভর করছে নেইমারের চোট থেকে সেরে ওঠার ওপর। ব্রাজিল কোচ তিতে দলের সেরা তারকাকে স্কোয়াডে রেখেছেন। কিন্তু পিএসজির ফরোয়ার্ড এই মুহূর্তে চোট নিয়ে আছেন দলের বাইরে।

নেইমারের সঙ্গে দেখা হবে—এটি মনে হলেই হয়তো আরেকটি বিষয় নিয়েও ভাববেন সুয়ারেজ। আন্তর্জাতিক ম্যাচের বিরতি থেকে ফিরলেই যে তাঁর ক্লাব আতলেতিকো মুখোমুখি হবে বার্সেলোনার। সেখানে বন্ধু মেসির মুখোমুখি হতে হবে তাঁকে। ২১ নভেম্বর বার্সেলোনা-আতলেতিকোর সেই ম্যাচে মনের মধ্যে একটা বিষয় নিশ্চয়ই ঘুরপাক খাবে সুয়ারেজের—বার্সা তাঁর সঙ্গে অন্যায় করেছে। আর এর জবাব মাঠেই দিতে হবে!

কে জানে নিজেদের মাঠে বার্সেলোনার বিপক্ষে ম্যাচে জবাব দিতে পারবেন কি না সুয়ারেজ! সেটা পারলে লা লিগায় খেলা ৩০ দলের সব কটির বিপক্ষেই গোল পাওয়া হয়ে যাবে উরুগুয়ের স্ট্রাইকারের।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0