বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ফল ভুলে গেলে, এ ম্যাচটা যেকোনো আর্সেনাল ভক্ত মনে রাখবেন বহুদিন। এ মৌসুমে নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে শুরুর রেকর্ড গড়েছিল আর্সেনাল। কিন্তু মিকেল আরতেতার অধীনে ধীরে ধীরে নিজেদের পরিচয় খুঁজে পাচ্ছে দলটি। করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় আরতেতা আজ মাঠে ছিলেন না। আর তাঁর অনুপস্থিতিতেই তাঁর দল খেলল অবিশ্বাস্য সুন্দর ফুটবল। শেষ কবে আর্সেনালে বড় দলের বিপক্ষে এমন দাপট দেখানো ফুটবল খেলেছিল, সে আলোচনায় ২০১৮ সাল পর্যন্ত কোনো উত্তর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল!

ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে আগের নয়টি প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচই হেরেছে আর্সেনাল। কিন্তু এমিরেটসে আজ প্রথমার্ধ দেখে সে তথ্য অবিশ্বাস্য ঠেকছিল। গোছানো ফুটবলে প্রথম থেকেই দাপট দেখিয়েছে আর্সেনাল। বুকায়ো সাকার গোলে আর্সেনাল এগিয়ে যাওয়ার পর বরং বিস্ময় জেগেছে, গোল পেতে এত দেরি হলো কেন দলটির।

default-image

১০ মিনিটেই মার্টিন ওডেগার্ডকে পেনাল্টি বক্সে ফেলে দিয়েছিলেন ম্যানচেস্টার সিটি গোলরক্ষক এদেরসন। রেফারি পেনাল্টি দেননি, ভিএআর সহকারীও সে সিদ্ধান্ত বদলানোর প্রয়োজন দেখেননি। যদিও রিপ্লেতে স্পষ্ট দেখা গেছে বলে নয়, ওডেগার্ডের পায়েই পা লেগেছিল এদেরসনের।

সাকার আগেই দলকে এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেল্লি। গোলের পরও আর্সেনালই দাপট দেখিয়েছে। প্রথমার্ধটা স্বাগতিকদের দাপট দেখেই শেষ হয়েছে। ১০ মিনিটে রেফারিকে সিদ্ধান্ত বদলাতে না বললেও ৫৫ মিনিটে ঠিকই ভিএআর ম্যাচে ভূমিকা রাখল। আর্সেনাল ডি-বক্সে গ্রানিত শাকাকে কাটিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিলেন বের্নার্দো সিলভা। তাঁকে নিয়ম মেনে আটকাতে পারেননি শাকা। এরই সর্বোচ্চ সুযোগ নিয়েছেন সিলভা। ভিএআর পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দিলে সিটিকে সমতায় ফিরিয়েছেন রিয়াদ মাহরেজ।

default-image

পরের ৪ মিনিট পাগলাটে ফুটবল হয়েছে। ৫৭ মিনিটে প্রথম হলুদ কার্ড দেখেছেন আর্সেনাল ডিফেন্ডার গ্যাব্রিয়েল। পরের মিনিটেই আত্মঘাতী গোল করতে বসেছিলেন দিয়াজ। তাঁর হেড এগিয়ে আসা এদেরসনকে ফাঁকি দিয়ে জালে চলে যাচ্ছিল। বল গোললাইন অতিক্রম করার ঠিক আগমুহূর্তে ফিরিয়ে দিয়েছেন নাথান একে। পরের মিনিটেই এদেরসন লম্বা করে বলে বাড়িয়েছিলেন। মাঝমাঠে সে বল নিয়ে ছোটার জন্য দৌড় দিয়েছিলেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। অযথা তাঁকে আটকাতে গিয়ে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন গ্যাব্রিয়েল। ৫৯ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় আর্সেনাল।

আর্সেনাল প্লেমেকার ওডেগার্ডকে তুলে ডিফেন্ডার রব হোল্ডিংকে নামায়। ওদিকে সিটি মাঝমাঠের খেলোয়াড় বাড়াতে থাকে। তবে খেলায় আর্সেনাল বুঝতে দেয়নি তাদের একজন খেলোয়াড় কম। বরং প্রতি–আক্রমণে বারবার সুযোগ সৃষ্টি করেছে দলটি। কিন্তু ৯৩ মিনিটে সর্বনাশ হয় আর্সেনালের। ডি ব্রুইনার ক্রসে ঠেকাতে পারেননি হোল্ডিং। সেটা তাঁর মাথায় লেগে পড়ে লাপোর্তের সামনে। লাপোর্তের শট আটকে গেলেও সেটা এসে যায় রদ্রির সামনে। রদ্রির শট আর আটকানো যায়নি। হৃদয় ভাঙে আর্সেনালের।

এই জয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ১১ পয়েন্ট এগিয়ে গেছে শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি। ওদিকে চারেই থাকল আর্সেনাল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন