সুইজারল্যান্ডভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সিআইএস চলতি মাসের শুরুতে ফুটবলার রপ্তানির বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ১ মে পর্যন্ত ব্রাজিল থেকে বিদেশে বিভিন্ন লিগে খেলা ফুটবলারের সংখ্যা ১২১৯। ৯৭৮ জন ফুটবলার রপ্তানি করে দুইয়ে ফ্রান্স।

আর্জেন্টিনা ৮১৫ ফুটবলার রপ্তানি করে তিনে। তবে বিদেশের বিভিন্ন লিগে খেলা ফুটবলারদের শতকরা হারে তিনটি দেশের ফেডারেশনের অবস্থানের তারতম্য আছে। ফ্রান্সের শতকরা ৯০ শতাংশ খেলোয়াড় খেলছেন বিদেশের লিগে। আর্জেন্টিনা থেকে ৪৬.১ শতাংশ এবং ব্রাজিল থেকে বিদেশে খেলছেন ৩.৫ শতাংশ ফুটবলার।

default-image

ইংল্যান্ড থেকে বিদেশের লিগে খেলছেন ৫২৫ জন ফুটবলার। বিদেশে খেলোয়াড় রপ্তানিতে চারে ইংল্যান্ড। ৪৪১ ফুটবলার রপ্তানি করে পাঁচে জার্মানি, ছয়ে থাকা কলম্বিয়া থেকে বিদেশের লিগে খেলে থাকেন ৪২৫ ফুটবলার। স্পেনের ৪০৯ জন ফুটবলার খেলে থাকেন বিদেশের লিগে, এ তালিকায় দেশটি সাতে।

সিআইএসের গত বছরের হিসাব বলছে, সেবারের তুলনায় এবার ব্রাজিল থেকে বিদেশের লিগে খেলা ফুটবলারের সংখ্যা কিছুটা কমেছে। গত বছরের হিসাব অনুযায়ী, ১২৮৭ জন ফুটবলার বিদেশের লিগে রপ্তানি করেছে লাতিন আমেরিকার দেশটি।

খেলোয়াড় রপ্তানিতে গত বছর থেকে এবার শীর্ষ তিন দেশের অবস্থানের অবশ্য কোনো নড়চড় হয়নি। গত বছর ৯৪৬ ফুটবলার রপ্তানি করে দুইয়ে ছিল ফ্রান্স, ৭৮০ ফুটবলার রপ্তানি করে তিনে আর্জেন্টিনা।

default-image

তবে ২০১৭ সাল থেকে সিআইএসের করা হিসাব অনুযায়ী, খেলোয়াড় রপ্তানিতে এ সময় ব্রাজিলের বৃদ্ধির হার ৪ শতাংশ এবং আর্জেন্টিনার বেড়েছে ৬ শতাংশ। এই পাঁচ বছরে ফ্রান্সের বেড়েছে ২৭ শতাংশ। ইংল্যান্ডের বেড়েছে ২৫ শতাংশ, জার্মানির ৩১ শতাংশ এবং স্পেনের বেড়েছে ১৪ শতাংশ।

সিআইএসের হিসাব অনুযায়ী, ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারদের বেশির ভাগ খেলছেন পর্তুগিজ লিগে। বর্তমান হিসাব অনুযায়ী, পর্তুগিজ লিগে এখন ২৩১ ফুটবলার খেলছেন। এরপরই আছে জাপান—সেখানে ৭৯ জন ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার রয়েছেন।

আর্জেন্টাইন ফুটবলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক খেলছেন চিলির বিভিন্ন লিগে। সংখ্যাটা ১২৭। এরপর যথাক্রমে স্পেন (৬৭) ও ইতালিয়ান (৫৬) লিগে খেলছেন আর্জেন্টাইনরা। ফ্রান্স থেকে সর্বোচ্চ ১২৩ ফুটবলার খেলছেন লুক্সেমবার্গের লিগে। এরপরই বেলজিয়ামের (৯৬) লিগে খেলছেন ফরাসি ফুটবলাররা।

স্প্যানিশদের পছন্দ ইংল্যান্ডের লিগ এবং ইংলিশ ফুটবলারদের অধিকাংশ খেলেন স্কটিশ লিগে (১৪৬)।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন