বার্সেলোনা তারকা লিওনেল মেসি
বার্সেলোনা তারকা লিওনেল মেসিছবি: টুইটার

অনেক হয়েছে। আর না! লিওনেল মেসি এখন ক্লান্ত-বিরক্ত, তিনি মুক্তি চান। অন্তত মেসির কথা শুনলে এমনই মনে হয়। আঁতোয়ান গ্রিজমানকে ঘিরে অভিযোগ উঠেছিল বার্সেলোনা তারকার বিরুদ্ধে। তা শুনে কড়া প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন মেসি।

এদিকে বার্সা কোচ রোনাল্ড কোমান দাঁড়িয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকার পাশে। কোমানের ভাষ্য, গ্রিজমানের সঙ্গে মেসির কোনো সমস্যা নেই।

বিজ্ঞাপন
default-image

বিতর্ক মেসির সঙ্গী হয়ে আছে বছরজুড়েই। হালে বার্সার সঙ্গে তাঁর সম্পর্কটা মোটেও আগের মতো নেই। ঘরে-বাইরে নানা সমস্যায় জর্জরিত ক্লাব নিয়ে মোটেও সন্তুষ্ট নন মেসি।

তবে এবার বার্সা তারকার বিরক্তি সাম্প্রতিক এক বিতর্ক নিয়ে। আতলেটিকো মাদ্রিদ থেকে গ্রিজমান বার্সায় এসে এখনো পায়ের তলায় মাটি শক্ত করতে পারেননি। নিয়মিত সুযোগ পাচ্ছেন না একাদশে।

ফরাসি তারকা নিজেও যে খুব ভালো ফর্মে আছেন, তা নয়। এমন পরিস্থিতিতে গ্রিজমানের চাচা ও সাবেক এজেন্ট বার্সায় ফরাসি ফরোয়ার্ডের অবস্থান যথেষ্ট শক্ত না হওয়ার পেছনে দায়ী করেছেন মেসিকে।

গ্রিজমানের আত্মীয় ইমানুয়েল লোপেজ ও সাবেক এজেন্ট এরিক ওলহাটসের মতে, তাঁদের মক্কেলকে নাকি সফল হতে দিচ্ছেন না মেসি। লোপেজ স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দেন, মেসির প্রভাবেই বার্সায় ভালো করতে পারছেন না গ্রিজমান।

নির্দিষ্ট করে বললে, মেসি যেহেতু চান না গ্রিজমান বার্সেলোনায় ভালো করুক, তাই বাকিরাও এই ফরাসি তারকার ওপর আলোটা ফেলছেন না। পরিস্থিতি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যেন গ্রিজমান ভালো করতে না পারেন।

আন্তর্জাতিক বিরতিতে এ নিয়ে সংবাদকর্মীরা প্রশ্ন করেছিলেন মেসিকে। ভীষণ বিরক্ত মেসি সোজাসাপ্টা বলে দেন, ‘আমি সত্যি সত্যি এসব বানোয়াট অভিযোগের জবাব দিতে দিতে ক্লান্ত। আমি এর থেকে মুক্তি চাই।’

বিজ্ঞাপন

আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের কথায় বিরক্তিটা স্পষ্ট। এর আগেও তাঁকে ঘিরে নানা অভিযোগ তোলা হয়েছে বার্সায়। অবস্থা এমন যে মেসি তাঁর ভালোবাসার ক্লাব থেকে মুক্তি পেলেই যেন বেঁচে যান! অন্তত মেসির কথায় তেমন সুর স্পষ্ট।

দলের সেরা খেলোয়াড় এমন বিরক্তি প্রকাশ করলে কোচের নিশ্চিতভাবেই দুশ্চিন্তায় পড়ার কথা। সেরা খেলোয়াড়টিকে মানসিকভাবে চাঙা রাখতে তাই এগিয়ে এসেছেন বার্সা কোচ কোমান। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন মেসিকে অমন কথা জিজ্ঞেস করার সময়জ্ঞান নিয়ে।

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে পেরুর বিপক্ষে ম্যাচ শেষে গ্রিজমানকে নিয়ে সংবাদকর্মীরা প্রশ্ন করেছিলেন মেসিকে। কোমান বলেন, ‘লিওর রাগের কারণটা আমি বুঝি। সে দীর্ঘ একটা ভ্রমণ করে এসেছে, তখন অমন প্রশ্ন করাটা অসম্মানের সমতুল্য।’

কোমান মনে করেন, সম্ভবত বিতর্ক সৃষ্টি করতেই এমন প্রশ্ন করা হয়েছে, ‘হয়তো বিতর্ক তৈরি করাই লক্ষ্য। কিন্তু আমি ড্রেসিংরুমে তাদের মধ্যে কোনো সমস্যা দেখিনি। যে লোক এমন কথা বলেছে, সে অনেক দিন গ্রিজমানের সঙ্গে কাজ করে না।’

ডাচ্‌ কোচ সরাসরি বলেন, ‘মেসির মতো মানুষকে আমাদের আরও সম্মান করা উচিত। মাঠে ও অনুশীলনে দেখেছি তাদের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই।’

মন্তব্য পড়ুন 0