বেলজিয়ামের হয়ে গোল করেছেন থরগান হ্যাজার্ড ও কেভিন ডি ব্রুইনা। ওদিকে ম্যাচের দুই মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দিয়েও শেষমেশ জয়ের স্বাদ পাননি ডেনমার্কের স্ট্রাইকার ইউসুফ পোলসেন।

প্রথম থেকেই বেলজিয়ামকে বেশ ভালোভাবে চেপে ধরে ডেনমার্ক। ড্যানিশদের কার্যকরী প্রেসিংয়ের চাপে টানা পাঁচটা পাসও ঠিকঠাক দিতে পারছিল না বিশ্বের এক নম্বর দলটা।

যার ফলাফল চলে আসে দুই মিনিটেই। মাঝমাঠ থেকে টটেনহামের মিডফিল্ডার পিয়েরে এমিল হইবিয়ার পাস থেকে ডান পায়ের শটে দুর্দান্ত গোল করেন লাইপজিগের স্ট্রাইকার পোলসেন। গোলের জন্য বেলজিয়ামের ডিফেন্ডার জেসন দেনায়েরের ‘ভূমিকা’ও হেলাফেলা দেওয়া যাবে না। দেদ্রিক বোয়াতার জায়গায় সুযোগ পাওয়া এই ডিফেন্ডারের চোখেমুখে তখন দুঃস্বপ্ন!

প্রথম দিকে বেলজিয়ামের খেলা দেখে মোটেও মনে হয়নি এই ম্যাচ তাঁদের পক্ষে জেতা সম্ভব। দুই দলই নেমেছিল ৩-৪-২-১ ছকে। কিন্তু ছক, কৌশল সব পরের কথা, খেলার তীব্রতায়, মানসিকতায়, উদ্যমের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল ডেনমার্কই।

এদিকে দশ মিনিটে দুর্দান্ত এক ঘটনার সাক্ষী হয় ইউরো। ডেনমার্কের অসুস্থ মিডফিল্ডার, দশ নম্বর জার্সিধারী ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনকে সম্মান জানাতে ঠিক দশ মিনিটে মাঠের সবাই দাঁড়িয়ে করতালি দিতে থাকেন। হাসপাতাল থেকে এই দৃশ্য দেখলে এরিকসেনের মুখে হাসি ফুটবে নিশ্চিত!

প্রথমার্ধে এরিকসেনের জায়গায় খেলতে নামা ডামসগার্ড কিংবা মার্টিন ব্রাথওয়াইট গোল করার সুযোগ পেয়েছিলেন, গোল করতে পারেননি। কিন্তু এটা স্পষ্ট হচ্ছিল, ম্যাচ জিততে হলে একাদশে পরিবর্তন আনতে হবেই বেলজিয়ামকে। সেটাই হয় দ্বিতীয়ার্ধে। দ্রিস মের্তেন্সের জায়গায় মাঠে নামেন কেভিন ডি ব্রুইনা।

ব্যস, সেরা খেলোয়াড়টি দলে আসলে খেলার খোলনলচে যেভাবে পালটে যায়, সেটাই হল। লুকাকু-ডি ব্রুইনার জাদুতে বল পেয়ে যান হ্যাজার্ড পরিবারের ছোটজন। ৫৪ মিনিটে থরগান হ্যাজার্ডের সমতায় ফেরে বেলজিয়াম।

থরগানের বড় ভাই, রিয়াল মাদ্রিদ তারকা এদেন হ্যাজার্ডকে নামানো হয় এর একটু পরেই, খেলার রাশ আরেকটু চলে আসে বেলজিয়ামের হাতে। এই এদেন হ্যাজার্ডের পাস থেকেই ৭০ মিনিয়ে বাঁ পায়ের জোরালো শটে বক্সের বাইরে থেকে গোল করেন ডি ব্রুইনা।

শেষে ডামসগার্ড, ওলসেন, ব্রাথওয়াইট হাজারো চেষ্টা করেও ম্যাচের ফল নিজেদের পক্ষে আনতে পারেননি। ম্যাচশেষে তাঁদের ফিরতে হয় খালি হাতেই।

তবে হারলেও ডেনমার্ক যা খেলেছে, হাসপাতাল থেকে ম্যাচ দেখে থাকলে এরিকসেন সতীর্থদের নিয়ে গর্বিত হবেনই!