বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ম্যাচে ঠিকমতো গা গরম হওয়ার আগেই গোল হজম করে তিতের দল। ১১ মিনিটে ভেনেজুয়েলা ফরোয়ার্ড এরিক রামিরেজ হেডে গোল করেন। এই গোলে পিছিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল।

৭১ মিনিটে মারকিনিওসের হেডে সমতায় ফেরার পর ৮৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে এগিয়ে যায় অতিথিরা। গোল করেন গ্যাব্রিয়েল। যোগ করা সময়ের ৫ মিনিটে ম্যাচের শেষ গোলটি বদলি হিসেবে অভিষেক ঘটা আন্তনির।

default-image

ব্রাজিল দুই গোল ব্যবধানে জিতলেও খেলা মন ভরাতে পারেনি। আক্রমণভাগে হতাশ করেছেন কোপা আমেরিকা কোয়ার্টার ফাইনালে লাল কার্ড দেখার পর এই প্রথম ব্রাজিলের একাদশে সুযোগ পাওয়া গ্যাব্রিয়েল জেসুস। ৬৩ মিনিটে লুকাস পাকেতার বদলি হয়ে নামা ভিনিসিয়ুস জুনিয়রও কার্যকরি ভূমিকা রাখতে পারেননি।

তবে ৪৫ মিনিটে এভারটন রিবেইরোর বদলি হয়ে নামা রাফিনহার পারফরম্যান্স ছিল দেখার মতো। মারকিনিওস ও আন্তনির গোলের উৎস ছিলেন লিডস ইউনাইটেড মিডফিল্ডার।

ব্রাজিলের হয়ে অভিষেকেই ২১টি পাস খেলেছেন, যার মধ্যে ৩টি গোল হওয়ার মতো পাস দিয়ে দুটি আদায় করিয়েছেন দুই সতীর্থকে দিয়ে।

default-image

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এর আগে ১৭ ম্যাচে ভেনেজুয়েলা কখনো ব্রাজিলকে হারাতে পারেনি। আজ ব্রাজিলিয়ান রক্ষণে ফাবিনিও ও মারকিনিওসের ভুলের ‍সুযোগে গোল করে জয়ের সুবাস ছড়ার ভেনেজুয়েলার রামিরেজ।

কিন্তু পিছিয়ে পড়ার পর প্রথমার্ধে তেমন আক্রমণ করে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ব্রাজিল।

বিরতির পর বুদ্ধিদীপপ্ত কিছু বদলি করে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়েছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। ভিনিসিয়ুস হতাশ করলেও ৮৫ মিনিটে খেলা তৈরিতে দারুণ ভূমিকা রাখেন, এই মুভ থেকেই পেনাল্টি পায় ব্রাজিল।

বক্সে ফাউল করে বসেন ভেনেজুয়েলার অস্কার গনজালেজ। গ্যাব্রিয়েল পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্রাজিলকে এগিয়ে দেওয়ার পর ভেনেজুয়েলা আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি। উল্টো একদম শেষ মুহূর্তে আরও একটি গোল হজম করে বসে।

default-image

২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে শতভাগ জয়ের ধারা বজায় রাখল ব্রাজিল। ৯ ম্যাচে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এ নিয়ে টানা ১০ ম্যাচ জিতল ব্রাজিল। এই টুর্নামেন্টের ইতিহাসে টানা সর্বোচ্চ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়ল তিতের দল। উরুগুয়ে-কলম্বিয়া ম্যাচ গোলশুন্য ড্র হয়।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন