বিজ্ঞাপন
default-image

আগের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে শেখ রাসেলকে জিতিয়েছিলেন জিয়ানকার্লো। লিগে এখন পর্যন্ত তিনটি গোল করেছেন দীর্ঘদেহী এই স্ট্রাইকার। করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় আজ তাঁকে পায়নি দল। তাঁর জায়গা পূরণের জন্য কত কিছুই না করতে হলো দলের সহকারী কোচ মাসুদ কায়সারকে! এই মৌসুমে আজ প্রথমবারের মতো আজ ৪-৪-২ ফরমেশনে খেলল ২০১২-১৩ মৌসুমের ট্রেবল জয়ীরা। স্থানীয় আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে স্ট্রাইকার হিসেবে খেললেন কিরগিজস্তানের মিডফিল্ডার বখতিয়ার দুশবেকভ। প্রথমার্ধে সন্তুষ্ট করতে পারলেন না তাঁরা। দ্বিতীয়ার্ধে জুটির বদল।

আশরাফুলের বদলি হিসেবে মাঠে পাঠানো হলো মোহাম্মদ ইলিয়াসকে আর বখতিয়ারকে মাঝমাঠে নিয়ে এসে স্ট্রাইকার হিসেবে খেলানো হয় নাইজেরিয়ার মিডফিল্ডার ওবি মোনেকেকে। স্ট্রাইকিং জুটি বদলে গোল এসেছে, তা বলা যাচ্ছে না। তবে শেখ রাসেলের আত্মঘাতী গোল পাওয়ায় অবদান মোনেকে ও বখতিয়ারেরই। বাম প্রান্ত দিয়ে ঝড়ের বেগে উঠে গোলমুখে ক্রস করেছিলেন মোনেকে। বখতিয়ারের ফ্লিক মুক্তিযোদ্ধার এক ডিফেন্ডারের পা ছুঁয়ে জালে।

এর আগে পুরো ম্যাচটিই সাদামাটা। প্রথমার্ধের কোনো উল্লেখযোগ্য ঘটনা বলতে শেখ রাসেলের মিডফিল্ডার খালেকুজ্জমান সবুজের গোল মিস। মুক্তিযোদ্ধা গোলরক্ষক মাহফুজ হাসানকে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি তিনি। দ্বিতীয়ার্ধেও জয় পাওয়ার মতো খেলতে পারেনি কোনো দল। শেষ মুহূর্তে ওই আত্মঘাতী গোলেই শেখ রাসেলের স্বস্তি। লিগে এখন পর্যন্ত অপরাজেয় রয়েছে তারা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন