করোনা রিয়ালের সঙ্গে ব্রাজিলের রক্ষণেও প্রভাব ফেলছে।
করোনা রিয়ালের সঙ্গে ব্রাজিলের রক্ষণেও প্রভাব ফেলছে। ছবি: রয়টার্স

রিয়াল মাদ্রিদের মূল একাদশে সহজে জায়গা মেলে না এদের মিলিতাওয়ের। সের্হিও রামোসকে বিশ্রাম দেওয়া হলেই কেবল সুযোগ মেলে এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের। আর এমনই দুর্ভাগ্য তাঁর, রামোস না থাকলে দিগ্‌বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে পড়ে গোটা রিয়াল দল। আর সে বাজে পারফরম্যান্সের দায়টা মিলিতাওর কপালেই জোটে। সপ্তাহের শুরুতে এবার ভিন্ন কিছু হয়েছে। উয়েস্কার বিপক্ষে তাঁকে সুযোগ দিয়েছিলেন জিনেদিন জিদান।

এদিন একটু ব্যতিক্রম ছিল পরিস্থিতি। সার্জিও রামোসের সঙ্গে জুটি বাঁধতে পেরেছিলেন মিলিতাও। তাঁর পারফরম্যান্সেও এর প্রভাব পড়েছে। সেদিন রিয়াল এক গোল খেলেও মিলিতাওয়ের পারফরম্যান্স নিয়ে খুব একটা প্রশ্ন ওঠেনি। এই ডিফেন্ডারের খেলা দেখে নির্ঘাত স্বস্তি পেয়েছিলেন ব্রাজিল কোচ তিতে। ক্লাবে নিয়মিত সুযোগ না পাওয়া মিলিতাওকে নভেম্বরের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দুই ম্যাচের জন্য দলে ডেকেছিলেন তিতে। কিন্তু শনিবার পাওয়া স্বস্তি সোমবারেই উবে গেছে ব্রাজিল কোচের। কোভিড-১৯ ধরা পড়েছে মিলিতাওয়ের।

বিজ্ঞাপন

গতকাল রোববার রাতেই খবর ছড়িয়ে পড়েছিল ইউরোপিয়ান সংবাদমাধ্যমগুলোতে, রিয়াল মাদ্রিদ স্কোয়াডে একজনের করোনা ধরা পড়েছে। কিন্তু একবারের পরীক্ষায় ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় কাল নাম ঘোষণা করা হয়নি। ফলে প্রায় গোটা একটা দিন কার করোনা হয়েছে, এ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা করে কাটিয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদ সমর্থকেরা। দ্বিতীয়বার পরীক্ষার ফল পাওয়ার পর আর দেরি করেনি রিয়াল। আজ এক ক্লাব বিবৃতিতে জানিয়ে দিয়েছে করোনায় আক্রান্ত খেলোয়াড়টির নাম এদের মিলিতাও।

বিবৃতিতে মাদ্রিদ লিখেছে, ‘গতকাল শনিবার (১ নভেম্বর) সকালে অনুশীলনে যে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হয়েছিল, তাতে একটি পজিটিভ ফল এসেছে। মূল দলের অন্য সব খেলোয়াড় ও কোচিং স্টাফ এবং মূল দলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ক্লাবের সব কর্মকর্তার করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। আরও জানানো যাচ্ছে, এদের মিলিতাও ছাড়া আজ সকালে (সোমবার, ২ নভেম্বর) নেওয়া করোনা পরীক্ষায়ও বাকিদের ফল নেগেটিভ এসেছে।’

আগামীকাল চ্যাম্পিয়নস লিগে মহাগুরুত্বপূর্ণ এক ম্যাচ রিয়ালের। গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে মাত্র ১ পয়েন্ট পেয়েছে জিনেদিন জিদানের দল। শেষ ষোলোর আশা টিকিয়ে রাখতে হলে ঘরের মাঠে কাল ইন্টার মিলানের বিপক্ষে জয় ছাড়া অন্য কিছুর কথা ভাবতেও পারছেন না জিদান। এ অবস্থায় রক্ষণে চোটের কারণে এমনিতেও দানি কারভাহাল, আলভারো ওদ্রিওসোলা ও নাচো হার্নান্দেজকে পাচ্ছেন না। সংশয় আছে রাইটব্যাকে ‘ঠেকায় কাজ চালানো’ উইঙ্গার লুকাস ভাসকেজের খেলা নিয়েও। এর মধ্যেই রাইটব্যাক ও সেন্টারব্যাক দুই ভূমিকাতেই স্বচ্ছন্দ মিলিতাও-ও হলেন করোনায় আক্রান্ত!

বিজ্ঞাপন
default-image

আগামীকাল ম্যাচের অন্তত ছয় ঘণ্টা আগে আবার করোনা পরীক্ষা হবে মিলিতাওর। সেটাতেও যদি পজিটিভ হন, তাহলে রক্ষণভাগের চারজন ছাড়া নামতে হবে জিদানকে। রাইটব্যাক হিসেবে কাকে খেলাবেন ‘জিজু’?

মিলিতাও সম্ভবত আগামীকাল স্কোয়াডে থাকার আশা ছেড়েই দিয়েছেন। তাঁর এখন সব আশা নিজেকে ১৩ নভেম্বরের আগে করোনামুক্ত প্রমাণ করার। না হলে ১৩ ও ১৭ নভেম্বর ভেনেজুয়েলা ও উরুগুয়ের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ব্রাজিলের দুই ম্যাচের স্কোয়াড থেকে ছিটকে পড়া নিশ্চিত তাঁর। হাতে দুই সপ্তাহেরও কম সময় আছে মিলিতাওয়ের। করোনার কারণে গত মাসে জাতীয় দলের ম্যাচ খেলতে না পারা রোনালদোর কিন্তু নিজেকে করোনামুক্ত প্রমাণ করতে এর চেয়ে বেশি সময় দরকার হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0