বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অক্টোবরে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে তিনটি ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল। বাংলাদেশ সময় ৮ অক্টোবর ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে প্রথম ম্যাচ ভেনেজুয়েলার মাটিতে। এরপর ১১ অক্টোবর দিবাগত রাত তিনটায় ম্যাচ কলম্বিয়ার মাটিতে। তার পরের ম্যাচটি ঘরের মাটিতে, বাংলাদেশ সময় ১৫ অক্টোবর সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে। সে ম্যাচে প্রতিপক্ষ লুইস সুয়ারেজের উরুগুয়ে।

এই তিন ম্যাচের জন্য গতকাল ঘোষিত দলে নেইমার, ভিনিসিয়ুস জুনিয়র, আলিসন, কাসেমিরো, লুকাস পাকেতার মতো চেনা মুখগুলোর সবাইকেই রেখেছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। শুধু উপেক্ষিত থেকে গেছেন আলভেজ।

রাইটব্যাক হিসেবে যে দুজনকে তিতে ডেকেছেন, তাঁরা হলেন জুভেন্টাসের দানিলো ও এই মৌসুমেই বার্সেলোনা থেকে টটেনহামে যাওয়া এমারসন রয়াল

আলভেজকে কেন ডাকেননি, সে ব্যাখ্যা আকারে-ইঙ্গিতে পরে দিয়েছেন তিতে। সেখানে আলভেজের ক্লাবহীন থাকার কথাই উঠে এসেছে।

ব্রাজিলের দৈনিক গ্লোবোএস্পোর্তে তিতেকে উদ্ধৃত করে লিখেছে, ‘দানি আলভেজের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে আমার। খুদে বার্তা চালাচালি হয়েছে। তবে সেটা ছিল ও যাতে নিজের জন্য সেরা পথটা খুঁজে পায় সে জন্য ওকে উৎসাহ দিতে। ও শুধু ব্রাজিল জাতীয় দলের জন্যই নয়, ব্রাজিলের ফুটবলের জন্যই কত গুরুত্বপূর্ণ সেটা বোঝাতে।’

default-image

আলভেজের পরের ক্লাব নিয়ে ঝামেলাটা তাড়াতাড়িই চুকেবুকে যাক, এমন আশায়ই আছেন তিতে, ‘ওকে অনেক সম্মান করি আমি। তবে (দলে জায়গা পেতে) ওকে অনেকের সঙ্গে লড়তেও তো হচ্ছে। আমরা আশায় আছি, ওর (ক্লাব পাওয়া ঘিরে) পরিস্থিতিটার সবচেয়ে সুন্দর সমাধান হোক। (ব্রাজিল) দলে জায়গা পেতে ওকে ফাগনার, দানিলো, এমারসন, গাব্রিয়েল মেনিনো ও অন্য কয়েকজনের সঙ্গে লড়তে হচ্ছে।’

অবশ্য ৩৮ বছরের আলভেজকে বাদ দিয়েই তিতে এখন থেকে কাতার বিশ্বকাপের দল গোছানোর দিকে মনোযোগ দিচ্ছেন কি না, সে প্রশ্ন উঠছে। বিশ্বকাপের এখনো বছর খানেক বাকি। সে কারণেই এখন থেকে দানিলোর পাশাপাশি ২২ বছর বয়সী এমারসনকে হয়তো গড়ে তুলতে চাইছেন তিতে।

তবে আলভেজ জানিয়ে দিচ্ছেন, এখনই লড়াই ছাড়ছেন না। ইনস্টাগ্রামে কাল একটা ছবি পোস্ট করেছেন ফুটবল ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ৪৩টি শিরোপাজয়ী এই ফুটবলার। ফুটবলে আগুন জ্বলছে, সেই ফুটবলটা তিনি হাতে ধরে আছেন—এমন একটা ছবি দিয়ে ক্যাপশনে আলভেজ লিখেছেন লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞার কথা।

default-image

‘সবাইকে জানিয়ে দিতে এসেছি যে এই বছরের শেষ নাগাদ কোনো ক্লাবে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি। শৈশবের একটা স্বপ্ন পূরণে ব্রাজিলে ফিরেছিলাম, সে স্বপ্নটা পূরণ হয়েছে। হৃদয়ের ক্লাবের হয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অনুভূতিটা অমূল্য। এখানে অর্থ কোনো ব্যাপার নয়। মূল ব্যাপারটা এখানে নিজের নীতির, পৌরুষের, চরিত্রের। মূল ব্যাপারটা এখানে সুন্দর একটা পরম্পরা রেখে যাওয়ার’ - ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন আলভেজ।

পোস্টের শেষে হ্যাশট্যাগে ‘এখনই শেষ নয়’ এবং ‘আমি ফিরে আসব’ লিখে আলভেজ বুঝিয়ে দিচ্ছেন, এখনই অবসর নিচ্ছেন না তিনি। ২০২২ সালে নতুন ক্লাব খোঁজার চেষ্টা করবেন।

তাঁকে পেতে আগ্রহী ক্লাবের অভাবও হয়তো হবে না। ব্রাজিলিয়ান সংবাদমাধ্যম ও সংবাদ সংস্থা এএফপি জানাচ্ছে, ফ্লুমিনেন্সে, ফ্লামেঙ্গো, আতলেতিকো পারানেন্সের মতো কয়েকটি ব্রাজিলিয়ান ক্লাব আলভেজকে পেতে আগ্রহী ছিল। সর্বশেষ ফ্লুমিনেন্সেতে তাঁর যাওয়ার গুঞ্জন বেশ জোরাল হয়েছিল, কিন্তু সেখানে শেষ পর্যন্ত দুইয়ে দুইয়ে চার মেলেনি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন