বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুনে অনেকে হয়তো চমকে উঠেছেন। বাংলাদেশ বিশ্বের সেরা দল কবে, কীভাবে হয়ে গেল! অনেকে বলতে পারেন, আগে সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়েই দেখাক বাংলাদেশ! কোচ অস্কার ব্রুজোন অবশ্যই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার চ্যালেঞ্জটা নিচ্ছেন। তিনি বলেছেন, ‘একাগ্রতা ও আত্মবিশ্বাসে বাংলাদেশ বিশ্বের সেরা দল।’

ঢাকায় ২০১০ সাফ গেমসের আগে বাংলাদেশ কোচ জোরান জর্জেভিচের কথা কখনো ভোলার নয়। তিনি খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতেন দারুণভাবে। খেলোয়াড়দের জড়িয়ে ধরে স্নেহ, ভালোবাসায় ভরিয়ে দিতেন। তাঁর অধীন ঢাকায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল ২০১০ এসএ গেমসে সোনার পদক জিতেছিল। এবার অস্কারের দল সাফে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে এসে প্রথম ম্যাচ জিতেছে।

default-image

আগামীকাল দ্বিতীয় ম্যাচ সামনে রেখে আজ সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ কোচ বলেছেন, ‘আমরা জিততে চাই ভারতের বিপক্ষে।’ কিন্তু জয়ের জন্য গোল দরকার। সেই গোল করার সামর্থ্যের অভাব রয়েছে বাংলাদেশের। তাহলে কীভাবে জয় আসবে? এ প্রশ্নে তাঁর কথা, ‘সমস্যা দূর করে আমরা প্রতি ম্যাচেই গোল করতে চাই এবং করব আশা করি।’

বাংলাদেশের জন্য বড় দুশ্চিন্তা ভারত অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী। তাঁকে নিয়ে ব্রুজোনের কথা, ‘ছেত্রীকে আমি ভালোভাবে চিনি ও জানি। ওর কোচ ছিলাম। ও বক্সে ভয়ংকর এক খেলোয়াড়। অল্প জায়গা থেকে গোল করে দিতে পারে। তবে ওকে কীভাবে থামাতে হয়, সেটা আমি জানি। কাজেই আমরা সেভাবেই পরিকল্পনা করছি।’

এ সাফে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্যতম মুখ মালদ্বীপের আলী আশফাক, ভারতের সুনীল ছেত্রী ও বাংলাদেশর জামাল ভূঁইয়া। তিনজনের মধ্যে নেতৃত্বগুণের দিক থেকে পাশে বসা জামালকে এগিয়ে রাখলেন। ব্রুজোন বলেন, ‘তিনজনের সঙ্গেই আমি কাজ করেছি। যদি বলেন আট সপ্তাহ কাজ করে কার সঙ্গে আমি যাব? অবশ্যই জামালকে বেছে নেব। সে বাংলাদেশ দলকে ভালোভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছে।’

প্রতিপক্ষ হিসেবে ভারতকে রাখলেন ওপরে, ‘আমি আগেই বলেছি, ভারত এখানে ফেবারিট। উপমহাদেশ তাদেরই অন্যদের চেয়ে ভালো লিগ রয়েছে। বিভিন্ন পজিশনে তাদের অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে। তবে আমি মনে করি, কাল ভালো লড়াই হবে। আমরা লড়াই করব এবং জয়ের জন্যই খেলব।’

default-image

বাংলাদেশ কোচ যোগ করেন, ‘ভারত শক্তিশালী, সেটা ঠিক আছে। তবে আমরাও শক্তিশালী। আমরা এখানে এসেছি ভালো কিছু করার লক্ষ্য নিয়েই। যদিও আমি মাত্র আটটি অনুশীলন সেশন পেয়েছি।’ ভারতের বিপক্ষে ব্রুজোনের বড় চাওয়া, ম্যাচে নিয়ন্ত্রণ হাতে রাখতে হবে। বলের দখল রেখে খেলার পরিকল্পনা। দ্রুত বল দেওয়া–নেওয়া করে আক্রমণ ওঠার প্রতিই জোর দেওয়ার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ কোচ।

ভারতের ক্রোয়েশিয়ান কোচ ইগর স্টিমাচ একটু চাপেই আছেন। কারণ, ভারত এ টুর্নামেন্টে ফেবারিট এবং চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলে সমালোচনা হবে তাঁর। সেটা মনে রেখেই কি না বললেন, ‘আমরা এখানে এসেছি চ্যাম্পিয়ন হতেই।’ প্রতিপক্ষ হিসেবে বাংলাদেশকে সমীহ করে তাঁর কথা, ‘বাংলাদেশ কোচ বদল করেছে। নতুন কোচ কোনো কৌশলে যাবেন। কাজেই আমাদের জন্য ম্যাচটা কঠিন হতে পারে। আমরা সবকিছু সহজ ভাবছি না।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের পাওয়া পেনাল্টিকে হাস্যকর বলেছেন ভারতের কোচ। কেন তিনি হাস্যকর মনে করেন? সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রশ্নের উত্তরই দিতে চাইলেন না তিনি। একটু মেজাজ হারিয়েই বললেন, ‘আমার কাছে মনে হয়েছে হাস্যকর, তাই হাস্যকর বলেছি। এ নিয়ে আমার বলার কিছু নেই।’

ভারতের কোচ বাংলাদেশের প্রাপ্ত পেনাল্টি নিয়ে কটাক্ষ করেছেন। কী বলবেন? একই প্রশ্ন গেল জামাল ভূঁইয়ার কাছেও। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘এটা ভারতীয় কোচের মতো। হতে পারে ম্যাচের আগে মানসিক খেলা খেলছেন তিনি। ম্যাচের আগের এমনটা হয়ে থাকে। কাজেই এটাকে গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নেই।’ ভারতের বিপক্ষে জয়ের আশা জানিয়ে জামালের সংযোজন, ‘আমারা জয় নিয়েই ভাবছি। অবশ্যই জিততে চাই।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন