ভাইয়ের বিয়েতে সালাহ
ভাইয়ের বিয়েতে সালাহছবি: টুইটার

লিভারপুলের এখন শনির দশা। লিগ টেবিলে বেশ ভালো অবস্থানে থাকলেও দলের মূল খেলোয়াড়েরা যে হারে চোটে পড়ছেন ও করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন, তাতে যেকোনো মুহূর্তেই লিগ ও অন্যান্য ট্রফি জয়ের দৌড়ে ছিটকে যেতে পারে দলটি।

চোট প্রায় পুরো মৌসুমের জন্য কেড়ে নিয়েছে দুই ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইক ও জো গোমেজকে। অত সময়ের জন্য না হলেও চোটে মাঠের বাইরে ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ড, ফাবিনিও, অ্যালেক অক্সলেড-চেম্বারলেইন, নাবি কেইতারা। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে করোনার হানা।

এর আগে সাদিও মানে, কনস্তানতিনোস সিমিকাস ও থিয়াগো আলকানতারার মতো খেলোয়াড়েরা কোভিড পজিটিভ হয়েছিলেন। এবার সে তালিকায় নাম লিখিয়েছেন সালাহ।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু এত সতর্ক ও জৈব সুরক্ষিত পরিবেশে বাস করার পরেও কীভাবে করোনায় আক্রান্ত হলেন সালাহ? এই প্রশ্নের জবাবে বেরিয়ে এসেছে চমকপ্রদ এক তথ্য।

আন্তর্জাতিক ফুটবলের জন্য এখন ক্লাব ফুটবলে বিরতি চলছে। ফুটবল তারকারা জাতীয় দলের হয়ে অনুশীলন ও খেলার আগে-পরের বাকি সময়টুকু পরিবারের সঙ্গে কাটাচ্ছেন। সালাহও তার ব্যতিক্রম নন।

default-image

এই বিরতিতে আবার সালাহ পরিবার একটা আনন্দের উপলক্ষও উদযাপন করছে। সালাহর ভাই নাসর সালাহর বিয়ে হয়েছে কয়েক দিন আগে, মিসরের রাজধানী কায়রোতে। ভাইয়ের বিয়ে উদযাপন করে সালাহ মিসরের ক্যাম্পে যোগ দেবেন, টোগোর সঙ্গে আসন্ন দুটি ম্যাচ খেলবেন, এমনটাই কথা ছিল। কিন্তু ওই উদযাপন করতে গিয়েই ঝামেলা বাধিয়েছেন সালাহ।

জানা গেছে, ভাইয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে কোভিড প্রোটোকল তেমন মেনে চলেননি লিভারপুলের মিসরীয় ফরোয়ার্ড। মাস্ক পরেননি, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলেননি।

উল্টো মাস্ক ছাড়াই আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে নেচে-গেয়ে সময় কাটিয়েছেন। নাচের সেই ভিডিওগুলো আবার ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সেই অনুষ্ঠান থেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সালাহ, সেটি নিশ্চিত করে তো আর বলার উপায় নেই, তবে অনুমান তেমনই।

বিজ্ঞাপন

এত মানুষের ভিড়ে মাস্ক ছাড়া কেন গেছেন সালাহ, সেই প্রশ্নও উঠছে। যদিও কায়রোর মেয়র মাহের শেতায়েহ এমন অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন।

গোল ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শেতায়েহ বরং সালাহর পাশেই দাঁড়িয়েছেন, ‘যা যা বলা হচ্ছে সব মিথ্যা। এক বিয়েতে কেউ একজনকে পাঁচবার জড়িয়ে ধরে না। এক ঘণ্টার বিয়ের অনুষ্ঠানে সালাহ অনেক সতর্ক ছিল। ও কখনোই মাস্ক খোলেনি মুখ থেকে, ছবি তোলার সময়টুকু ছাড়া।’ যদিও ভিডিওতে দেখা গেছে, নাচের একটা পর্যায়ে সালাহর মুখে মাস্ক ছিল না।

তবে মন্দের ভালো, সালাহ কোনো উপসর্গে ভুগছেন না। মিসরের ফেডারেশন আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতেই জানিয়েছিল তথ্যটা, শেতায়েহ সেটাই নিশ্চিত করেছেন আবারও, ‘সালাহ এখন ভালোই আছে। আমি ওর বাবা ও চাচার সঙ্গে কথা বলেছি এ ব্যাপারে।’

সালাহর করোনা হওয়া নিয়েও অবশ্য নাটক হচ্ছে। কাল বাংলাদেশ সময় রাত ১০টার দিকে মিসরের ফুটবল দলের অফিশিয়াল টুইটার থেকে ঘোষণা আসে, সালাহ করোনা পজিটিভ। সেখানে লেখা ছিল, কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আবার করোনা টেস্ট হবে সালাহর।

কিন্তু সে সময় খবর ছড়িয়ে পড়ে, সালাহর করোনা হওয়া পুরোপুরি নিশ্চিত নয়! আজ বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় আফ্রিকান নেশনস কাপের বাছাইপর্বে টোগোর বিপক্ষে ম্যাচ মিসরের, তার আগে মিসর ও টোগোর তিন খেলোয়াড়ের করোনা পরীক্ষা হবে বলে তখন জানানো হয় মিসর জাতীয় দলের টুইটার থেকে।

কিন্তু সেই তিন খেলোয়াড়ের মধ্যে সালাহ আছেন কি না, তা জানানো হয়নি। পরে অবশ্য একই অ্যাকাউন্ট থেকে আবার টুইট করে জানানো হয়, দ্বিতীয় সোয়াব টেস্টেও করোনা পজিটিভ হয়েছেন সালাহ। লিভারপুলের জন্য দুঃসংবাদ আর কি!

মন্তব্য পড়ুন 0