বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

নেপাল গোলরক্ষকের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন গোলাম রব্বানী, ‘আমি বলেছিলাম, মেয়েরা কঠোর অনুশীলন করেছে, ভালো ফুটবল খেলবে। তারা সেটাই করেছে। দর্শকদের আনন্দ দিয়েছে। ম্যাচজুড়ে আধিপত্য করেছে, কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা গোল পাইনি, যেটা পাওয়া উচিত ছিল। মনিকার শেষ যে শটটা যেভাবে বাঁচিয়েছে ওদের গোলরক্ষক, সেই কৃতিত্ব দিতেই হবে ওকে। আসলে শেষ পর্যন্ত খেলায় ভাগ্যেরও একটা ব্যাপার আছে। অঞ্জনা আজ অনেকগুলো নিশ্চিত গোল বাঁচিয়ে দিয়েছে।’

ম্যাচে আঁখির শট সাইড পোস্টে লেগেছে। মনিকার শট অল্পের জন্য গোল হয়নি। ফিনিশিংয়ের অভাবে গোল পায়নি বাংলাদেশ। তবে গোল না পেলেও মেয়েদের খেলায় সন্তুষ্ট কোচ, ‘আমাদের অনেকগুলো ভালো আক্রমণ হয়েছে। কিন্তু আমরা গোল পাইনি। আজকে মেয়েরা পুরো ৯০ মিনিট একই রকম ছন্দে ফুটবল খেলেছে। দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ও নেপালের ঐতিহ্য আমরা সবাই জানি। তবে আজকে আমাদের মেয়েরাও দেখিয়েছে, তারাও উন্নতি করেছে।’

default-image

প্রথম ম্যাচে ড্র করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু এতেই হতাশ হচ্ছেন না কোচ। এখনো ফাইনালে চোখ রাখছেন গোলাম রব্বানী, ‘এটা লিগভিত্তিক খেলা। সবার সঙ্গে সবার খেলা হবে। নেপালও ৩ পয়েন্ট পায়নি। ওরাও আমাদের সঙ্গে আছে। এটা একটা ভালো দিক। তবে ৩ পয়েন্ট পেলেই খুশি হতাম। এখনো অবশ্যই ফাইনালে ওঠার আশা রয়েছে আমাদের।’

কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ স্টেডিয়ামে ১৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশ পরের ম্যাচটি খেলবে ভুটানের বিপক্ষে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন