লিভারপুলের বিপক্ষে খেলতে পারবেন না রাফায়েল ভারানে। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি সেন্টার–ব্যাক।
লিভারপুলের বিপক্ষে খেলতে পারবেন না রাফায়েল ভারানে। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি সেন্টার–ব্যাক। ছবি: এএফপি

কী বিপদ! লিভারপুলের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটের প্রথম লেগের মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ আজ রিয়াল মাদ্রিদের। এমন একটি ম্যাচের আগে কিনা জিনেদিন জিদানের দলের ওপর দুই ধরনের ভাইরাস আক্রমণ করল। রিয়ালকে প্রথম আক্রমণ করেছে ‘ফিফা ভাইরাস’, যার কবলে পড়ে হারাতে হয়েছে অধিনায়ক ও দলের রক্ষণের অন্যতম ভরসা সের্হিও রামোসকে। আর এবার রিয়ালকে আঘাত করেছে করোনাভাইরাস। এবার তারা হারিয়েছে আরেক অভিজ্ঞ সেন্টারব্যাক রাফায়েল ভারানকে।

আন্তর্জাতিক ফুটবলের জন্য খেলোয়াড় ছাড়তে হয় ক্লাবগুলোকে। আর জাতীয় দলের হয়ে খেলতে গিয়ে অনেকেই ফেরেন চোট নিয়ে। ক্লাব ফুটবলে এই চোটের একটা নাম আছে—ফিফা ভাইরাস! এবারের আন্তর্জাতিক বিরতিতে স্পেনের হয়ে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপের জন্য ইউরোপিয়ান অঞ্চলের বাছাইপর্ব খেলতে গিয়ে ফিফা ভাইরাসের শিকার হয়েছেন রামোস। চোট নিয়ে রামোসকে না পাওয়ার বিষয়টি সেই থেকেই জানা। রিয়ালের কোচ জিনেদিন জিদান লিভারপুলের বিপক্ষে তাই পরিকল্পনাও সেভাবেই সাজিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন
default-image

জিদানের রামোসবিহীন পরিকল্পনায় রক্ষণে ছক নিশ্চয়ই আঁকা হয়েছিল ফরাসি ডিফেন্ডার ভারানকে কেন্দ্র করে। এ ম্যাচে ভারানকে পুরো সতেজ অবস্থায় পাওয়ার জন্য গত শনিবার লা লিগায় এইবারের বিপক্ষে তাঁকে বিশ্রামে রেখেছিলেন জিদান। কিন্তু জিদান আর রিয়ালের ভাগ্যটাই খারাপ। লিভারপুলের বিপক্ষে আজ ম্যাচের দিনই কিনা খবর এল ভারান করোনায় আক্রান্ত। তাঁকে ছাড়াই লিভারপুলের বিপক্ষে মহাপরীক্ষায় নামতে হবে রিয়ালকে।

ভারানের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর এক বিবৃতিতে আজই দিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ, ‘আমাদের খেলোয়াড় রাফায়েল ভারান কোভিড–১৯ পরীক্ষায় পজিটিভ হয়েছে। খবরটি আমরা আজ সকালেই জেনেছি।’ ভারান করোনায় আক্রান্ত হওয়াতে লিভারপুলের বিপক্ষে পরিকল্পনা নতুন করে সাজাতে হবে জিদানকে। কী হতে পারে জিদানের সেই নতুন পরিকল্পনা? সেন্টারব্যাকে তাহলে এখন কাকে খেলাবেন ফরাসি এই কোচ?

default-image

এইবারের বিপক্ষে জিদান রক্ষণ সাজিয়েছিলেন মিলিতাও, নাচো, লুকাস ভাসকেজ ও মেন্দিকে দিয়ে। মার্সেলোও দলে ছিলেন। তবে ভাসকেজ ও মার্সেলো খেলেছেন উইং ব্যাক হিসেবে। মার্সেলো তো পুরোপুরি উইঙ্গার হিসেবেই খেলেছেন। কিন্তু লিভারপুলের বিপক্ষেও কি এভাবে দল সাজাতে পারবেন জিদান? প্রথম লেগ না হয় কোনোভাবে চালিয়ে নিলেন, দ্বিতীয় লেগে কি মাঠে ফিরতে পারবেন ভারান?

করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ হওয়া যেকোনো খেলোয়াড়কেই একটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আইসোলেশনে থাকতে হয়। বৈশ্বিক মহামারির এই সময়ে সেই কোয়ারেন্টিন এক সপ্তাহের চেয়ে বেশি হয়। যার মানে একটাই দাঁড়ায়—আগামী সপ্তাহে অ্যানফিল্ডে দ্বিতীয় লেগেও খেলা হচ্ছে না ভারানের। শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দুই লেগই নয়, ভারানে থাকতে পারবেন না পরবর্তী এল ক্লাসিকোও। বার্সেলোনার বিপক্ষে ঘরের মাঠে রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাচটি খেলবে আগামী শনিবার। আর চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটি পরের সপ্তাহে বুধবার।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন