ভিয়ারিয়ালের বর্তমান দলের কোনো খেলোয়াড়ই নিজেদের ক্যারিয়ারে অ্যানফিল্ডে কখনো জিততে পারেননি। আটজন খেলোয়াড় এবং কোচ এমেরি এর আগে অ্যানফিল্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন, কিন্তু জিততে পারেননি। ভিয়ারিয়ালের ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার এতিয়েন কাপোউ ওয়াটফোর্ডে থাকতে চারবার লিভারপুলের মাঠে খেলে সব ম্যাচেই হেরেছেন। সেই চার ম্যাচের মধ্যে ওয়াটফোর্ড দুবার পাঁচ গোল এবং একবার ছয় গোল হজম করেছে। দলটির আরেক ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ফ্রান্সিস ককলে আর্সেনালে থাকতে অ্যানফিল্ডে দুই ম্যাচ খেলেই হেরেছেন। ভিসেন্তে ইবোরাও লেস্টার সিটিতে থাকতে ২০১৮ সালে লিভারপুলের মাঠে ২–১ গোলে হারেন।

default-image

ভিয়ারিয়ালের রাইটব্যাক সের্হেই অউরিয়ের টটেনহামে থাকতে অ্যানফিল্ডে দুই ম্যাচেই হেরেছেন। ক্লাবটির মিডফিল্ডার জিওভান্নি লো সেলসো মৌসুমের শুরুতে টটেনহামের হয়ে অ্যানফিল্ডে গিয়ে জয়ের মুখ দেখেননি। ডিফেন্ডার রাউল আলবিওলও নাপোলির হয়ে ২০১৮–১৯ মৌসুমে অ্যানফিল্ডে গিয়ে হেরেছেন। ভিয়ারিয়াল কোচ উনাই এমেরি আর্সেনালের দায়িত্বে থাকতে একাধিকবার হেরেছেন অ্যানফিল্ডে। ভিয়ারিয়াল আজ জিতলে চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনালে প্রথম ‘অ্যাওয়ে’ দল হিসেবে অ্যানফিল্ডে জয়ের নজির গড়বে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন