বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

আজীবন শীর্ষস্থানীয় ক্লাবের দায়িত্বে থাকা, ফি-সপ্তাহ মিডিয়ার মনোযোগ পাওয়া, পাদপ্রদীপের নিচে থাকা মরিনিওর জন্য এ পরিবর্তনটা একটু হলেও অচেনা। প্রায় দুই দশক আগে পোর্তোতে আলো ছড়ানোর পর যে আজীবন শীর্ষস্থানীয় ক্লাবের কোচ হয়ে শীর্ষস্থানীয় প্রতিযোগিতার শিরোপার জন্যই লড়ে গেছেন!

এককালে যে গার্দিওলা, ক্লপ কিংবা আনচেলত্তিদের সঙ্গে প্রতি সপ্তাহে টক্কর দিতেন, রোমের আলো বাতাসে সেই হাড্ডাহাড্ডি প্রতিযোগিতার গন্ধ এখন আর পান না। যেখানে ক্লপ-আনচেলত্তি নিজ নিজ ক্লাবকে নিয়ে এবারও উঠে গেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে, ইন্টার মিলান আর পোর্তোর হয়ে দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগজয়ী কোচ মরিনিওর রোমা এখন খেলছে তৃতীয় সারির ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায়, উয়েফা কনফারেন্স লিগে।

default-image

তবে যা–ই হোক, ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতা তো! দিন শেষে শিরোপা তো শিরোপাই! রোমার কিংবদন্তি খেলোয়াড় ফ্রান্সেসকো টট্টি একবার বলেছিলেন, ‘রোমার হয়ে একবার শিরোপা জয়ের আনন্দ রিয়াল মাদ্রিদের মতো ক্লাবের হয়ে দশটা শিরোপা জয়ের সমান।’ গতরাতে মরিনিওর কর্মকাণ্ড দেখেও টট্টির সে কথাটার সত্যতা মিলল।

রোমাকে কনফারেন্স লিগের ফাইনালে তুলেছেন মরিনিও। ইংলিশ ক্লাব লেস্টার সিটির সঙ্গে প্রথম লেগে ১-১ গোলে ড্র করার পর দ্বিতীয় লেগে নিজেদের মাঠে গত রাতে ইংলিশ স্ট্রাইকার ট্যামি আব্রাহামের গোলে ১-০ গোলে জিতেছে রোমা। ফলে শ্রেয়তর গোল ব্যবধানে ফাইনালে উঠেছে মরিনিওর রোমাই। ২০০৭-০৮ মৌসুমে সর্বশেষ কোনো শিরোপার স্বাদ পাওয়া রোমাকে ফাইনালে তুলে আবেগের জোয়ারে ভেসে গেছেন মরিনিও। বাধা মানেনি চোখের জল। যে মরিনিও শেষ হয়ে গিয়েছেন বলে কিছুদিন আগেও কথাবার্তা চলত, মরিনিওর কান্না কি সেসব সংশয়বাদীদের একটা বার্তাও দিল না?

রোমাকে ফাইনালে তুলে বেশ কিছু চমক-জাগানো রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন এই কিংবদন্তি কোচ। মরিনিওই প্রথম এমন কোনো কোচ, যিনি তিন স্তরের ইউরোপীয় প্রতিযোগিতারই ফাইনালে উঠলেন। প্রথম ম্যানেজার হিসেবে উঠলেন চ্যাম্পিয়নস লিগ, ইউরোপা লিগ ও কনফারেন্স লিগের ফাইনালে। ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় চার-চারটা আলাদা আলাদা ক্লাবের হয়ে ফাইনালে ওঠা প্রথম কোচও মরিনিও।

পোর্তো, ইন্টারকে তুলেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে, পোর্তোকে তুলেছেন উয়েফা কাপের ফাইনালে, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে তুলেছিলেন ইউরোপা লিগের ফাইনালে, এবার রোমাকে তুললেন কনফারেন্স লিগের ফাইনালে। ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতার ফাইনালে মরিনিও কখনো হারেননি। তাই রোমা ২০০৭-০৮ মৌসুমের পর প্রথম শিরোপা জয়ের আশাটা চাইলে ভালোভাবে করতেই পারে!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন