default-image

বার্সেলোনার সাবেক তারকা ইতো মরিনিওর অধীনে খেলেছেন ইন্টার মিলানে। এরপর চেলসিতেও কিছুদিন তাঁর অধীনে খেলেছেন। পর্তুগিজ কোচের হার না মানা মানসিকতা আর কিছু পাওয়ার জন্য সবকিছু উজাড় করে দেওয়ার পদ্ধিতিতে ২০১০ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছিল ইন্টার। যেটা ইতালিয়ান ক্লাবটির ৪৫ বছরের মধ্যে প্রথম চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা। ২০০৯–১০ মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের সঙ্গে ইতালির সিরি ‘আ’ ও ইতালিয়ান কাপও জিতেছিল ইন্টার মিলান।

৪১ বছর বয়সী ইতো কাতার বিশ্বকাপে ক্যামেরুনের সম্ভাবনার বিষয়ে বলেছেন, ‘ক্যামেরুন বিশ্বকাপ জিততে পারবে কি না? আমি ক্যামেরুনের বিশ্বকাপ জিততে না পারার কোনো কারণ দেখি না!’ তবে এর জন্য যে দলটিকে পাহাড় ডিঙানোর মতো পরিশ্রম করতে হবে, ইতো বললেন তা–ও, ‘বিশ্বকাপ জিততে আপনাকে দৈত্য বা ভিনগ্রহের কিছু হওয়ার দরকার নেই বলে মনে করি আমি। আপনার দরকার ভালো প্রস্তুতি, দৃঢ় মানসিকতা আর একটু খ্যাপাটে মনোভাব।’

default-image

২০০৯–১০ মৌসুমে ইন্টার এসবের সমন্বয়েই ট্রেবল জিতেছিল বলে মনে করেন ইতো। ক্যামেরুনকে উদ্বুদ্ধ করতে ইন্টারের সেই মৌসুমের উদাহরণই দিয়েছেন তিনি, ‘আমিও আমার ক্যারিয়ারে কিছু জিতেছি। নিজের সর্বস্ব উজাড় করে দিয়েই সেগুলো জিতেছি। আমি সব সময়ই ইন্টারের উদাহরণ দিই। ২০০৯–১০ মৌসুমের শুরুর দিকে কেউ ভাবেনি আমরা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতব। কিন্তু মরিনিও একদল যোদ্ধা নিয়ে পাগুলে কিছু করে ফেললেন।’

ইতো এরপরই যেন আসল কথাটা বললেন, ‘আমি চাইব, ক্যামেরুনও তেমন কিছু করে ফেলুক।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন