বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বড় তারকা মানেই তাঁদের জীবনের সব খুঁটিনাটি আতশি কাচের নিচে থাকে। কখন কোথায় গেলেন, নতুন জীবনসঙ্গী হিসেবে কাকে বেছে নিয়েছেন, কী খাচ্ছেন, একটু মুটিয়ে গেলেন কি না, নৈশজীবনেই বেশি ব্যস্ত কি না—ছিদ্রান্বেষী সব চোখ ওত পেতে আছে ভুল ধরার জন্য। এমনিতে নেইমার বরাবরই আলোচনার কেন্দ্রে ছিলেন, পিএসজিতে যাওয়ার পর মাঠের চেয়ে মাঠের বাইরের নেইমারই বেশি আলোচনায়।

এমনকি নেইমারের পেশাদারি মানসিকতা নিয়ে প্রশ্ন শুরু করেছিল সংবাদমাধ্যম। কোপা আমেরিকা শেষে ছুটি কাটানোর সময় নেইমারের একটি ছবি ছড়িয়ে পড়েছিল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। একটু মোটা মনে হচ্ছিল নেইমারকে। আর এ নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছিল। একজন পেশাদার ফুটবলার কীভাবে তাঁর শরীরকে এভাবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে দিচ্ছেন, সে প্রশ্ন করা হচ্ছিল।

default-image

ফুটবল মৌসুম শুরু হতেই অবশ্য শরীর থেকে মেদ ঝরিয়ে ফেলেছেন নেইমার। কিন্তু ছুটিতে থাকার সময় তাঁকে নিয়ে বিরূপ আলোচনার খেদ যে মনে রয়ে গেছে, সেটা সম্প্রতি জানিয়ে দিয়েছেন এক সাক্ষাৎকারে। গত বৃহস্পতিবার ইউটিউব চ্যানেল ফুইর ক্লিয়ারের সঙ্গে কথোপকথনে বলেছেন, ‘আমি সম্মান দেখানোর ব্যাপারে বলছি। কারণ মানুষ বলে, “আহা, নেইমার নিজের যত্ন নেয় না, নেইমার এমন, নেইমার অমন।” নিজের যত্ন না নিয়ে শীর্ষ পর্যায়ের ফুটবলে আপনি ১২ বছর কীভাবে টিকে থাকবেন? কেউ এটাই বোঝে না।’

ফুটবলার হিসেবে কিসে নিজের ভালো, আর কোনটা করা যাবে না, সেটা ভালোই জানেন নেইমার, ‘আমি জানি কীভাবে নিজের যত্ন নিতে হয়। আমার সঙ্গে দিনের ২৪ ঘণ্টা একজন ফিজিও ও একজন ট্রেনার থাকে। কী জন্য, কোনো কারণ ছাড়াই?’

default-image

এ প্রজন্মের ফুটবলারদের জন্য আদর্শ মানা হয় লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। অন্য সবকিছু বাদ দিয়ে শুধু ফুটবলেই ধ্যানজ্ঞান তাঁদের। মধ্যত্রিশের দুই দিকে থাক দুজন। এখনো নিজেদের উন্নতির জন্য পরিশ্রম করছেন। বাইরের সবকিছু থেকে নিজেদের সরিয়ে রাখছেন। কিন্তু নেইমার এ দুজনের মতো সব সময় ফুটবলেই ডুবে থাকতে চান না।

সাধারণ মানুষের মতোই জীবনে বিনোদনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন ব্রাজিলিয়ান তারকা, ‘সুযোগ পেলেই ঘুরতে যাই আমি। যখন পরদিন অনুশীলন থাকে না, সম্ভব হলে আমি বাইরে যাই। আমি কোনো কিছুই থামাব না। এতে কার কী সমস্যা? আমি মাঠে কী করছি, তার সমালোচনা করুন। এ নিয়ে কথা বলুন, আপত্তি নেই। কিন্তু মাঠের বাইরে আমি কী করলাম, তা নিয়ে কথা বলার অধিকার কাউকে দেব না।’

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন