ইউরোর শিরোপা ধরে রাখতে কঠিন পরীক্ষতেই বসতে হবে রোনালদো ও পর্তুগালকে।
ইউরোর শিরোপা ধরে রাখতে কঠিন পরীক্ষতেই বসতে হবে রোনালদো ও পর্তুগালকে।ফাইল ছবি

সার্বিয়াকে পেনাল্টি শুটআউটে হারিয়ে ২২ বছর পর কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ পেল স্কটল্যান্ড। পিছিয়ে পড়েও আইসল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়ে জিতেছে হাঙ্গেরি। অতিরিক্ত সময়ের গোলে একই স্কোরলাইনে উত্তর আয়ারল্যান্ডকে হারিয়েছে স্লোভাকিয়া। ওদিকে জর্জিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মতো কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে খেলতে যাচ্ছে উত্তর মেসিডোনিয়া। এই চার দলের জয়েই নিশ্চিত হয়ে গেল, আগামী বছর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ইউরো ২০২০-তে কোন ২৪ দল খেলবে। করোনাভাইরাসের কারণে এ বছর হতে পারেনি ইউরো। সেটি পিছিয়ে গেছে ২০২১-এর জুন পর্যন্ত।

এবারের ইউরোর আয়োজন বেশ অদ্ভুত। নির্দিষ্ট করে একটি বা দুটি দেশ এর স্বাগতিক নয়। গোটা ইউরোপের ১১ ভেন্যুতে হবে ‘২০২০’ ইউরো। ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে—ইংল্যান্ডের লন্ডন, জার্মানির মিউনিখ, ইতালির রোম, নেদারল্যান্ডসের আমস্টারডাম, স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো, স্পেনের বিলবাও, রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ, হাঙ্গেরির বুদাপেস্ট, আয়ারল্যান্ডের ডাবলিন, আজারবাইজানের বাকু, ডেনমার্কের কোপেনহেগেন ও রোমানিয়ার বুখারেস্টে।

default-image
বিজ্ঞাপন

২৪ দলকে ভাগ করা হয়েছে ছয়টি গ্রুপে। গ্রুপ ‘এ’ তে ইম্মোবিলে-ইনসিনিয়া-বোনুচ্চিদের ইতালির সঙ্গে খেলবে গ্যারেথ বেলের ওয়েলস, গ্রানিত জাকা-জের্দান শাকিরিদের সুইজারল্যান্ড, অন্য দলটা তুরস্ক। মোটামুটি বেশ কঠিন গ্রুপই বলা চলে এটাকে।

গ্রুপ ‘বি’ তে লুকাকু-হ্যাজার্ড-ডি ব্রুইনাদের বেলজিয়ামের সঙ্গী হচ্ছে ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের ডেনমার্ক। বাকি দুই দল ফিনল্যান্ড ও ২০১৮ বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়া। রাশিয়া ও ফিনল্যান্ড তেমন চমক না দেখাতে পারলে বেলজিয়াম-ডেনমার্কেরই পরের রাউন্ডে ওঠার কথা।

প্রথমবারের মতো বৈশ্বিক কোনো টুর্নামেন্টে খেলতে এসে ফন ডাইক-ডি ইয়ংদের নেদারল্যান্ডসের সামনে পড়েছে উত্তর মেসিডোনিয়া। বাকি দুই দল ইউক্রেন ও অস্ট্রিয়া। নেদারল্যান্ডসের জন্য গ্রুপটা বেশ সহজই বলা চলে। ওদিকে ২০০৪ ইউরোর কথা মনে করিয়ে দিয়ে আবারও একই গ্রুপে পড়েছে ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া। গ্রুপ ‘ডি’–এর বাকি দুই দল স্কটল্যান্ড ও চেক প্রজাতন্ত্র। মোটামুটি প্রতিটি দলেরই কোনো না কোনো শক্তির জায়গা আছে, যা এই গ্রুপকে করে তুলেছে অননুমেয়।

২০০৮ ও ২০১২ সালের জোড়া ইউরোজয়ী স্পেন গ্রুপ ‘ই’ তে সঙ্গী হিসেবে পেয়েছে রবার্ট লেফানডফস্কির পোল্যান্ডকে। বাকি দুই দল স্লোভাকিয়া ও সুইডেন।

তবে সব আলো কেড়ে নিয়েছে শেষ গ্রুপটা। গ্রুপ ‘এফ’ কে মৃত্যুফাঁদ বলা হলেও ভুল হবে না হয়তো। একই গ্রুপে যে পড়েছে পর্তুগাল, ফ্রান্স ও জার্মানির মতো তিন পরাশক্তি! ইউরো ধরে রাখার লড়াইয়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরা গ্রুপ পর্বেই লড়বেন গতবারের ফাইনালিস্ট ও বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা ফ্রান্স ও চারবারের বিশ্বজয়ী জার্মানির সঙ্গে। গ্রুপের আরেক দল হাঙ্গেরি।

করোনার প্রকোপ থেমে গেলে ২০২১ সালের ১১ জুন পর্দা উঠবে ইউরোর।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0