default-image

বাংলাদেশে ফুটবল যে এককালে অত্যন্ত জনপ্রিয় খেলা ছিল, তা ভুলতে বসেছেন নতুন প্রজন্ম। তাঁদের ক্রেজ ক্রিকেটে। অথচ এই দেশ ফুটবলে বুঁদ ছিল।
একসময় ফুটবল নিয়ে মাতামাতির অন্ত ছিল না। কখনো তা মারামারিতে পর্যন্ত গড়াত; বিশেষ করে ঘরোয়া টুর্নামেন্টে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবহানী- মোহামেডানের খেলা হলে তো কথাই নেই।
মাঠে যাওয়ার জন্য সকাল থেকে প্রস্তুতি। ব্যানার-ফেস্টুন তৈরি। খেলা শুরুর অনেক আগে থেকেই স্টেডিয়ামে ঢোকার জন্য দীর্ঘ সারি। মাঠভর্তি দর্শক। সবার মধ্যে টান টান উত্তেজনা। যেন ময়দানে যুদ্ধে নেমেছে দুই দল।
উত্তেজনা কেবল মাঠে নয়, বাইরের পরিস্থিতিও থাকত গরম। চায়ের কাপে ঝড়। মাঠে-ঘাটে, অফিসে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সবার মাঝে দারুণ তর্ক-বিতর্ক। কে পরবে জয়মাল্য? কার হাতে উঠবে শিরোপা?নিজ নিজ দলের পক্ষে সমর্থকেরা ধরতেন বাজি। জয়-পরাজয় নির্ধারিত হওয়ার পরও রেশ থেকে যেত। জয়ের আনন্দে মাতোয়ারাদের বিপরীতে দেখা যেত পরাজয়ে ভারাক্রান্ত সমর্থকদের শোক। অতীতে ফুটবল নিয়ে কী অসাধারণ সব সময়ই না কাটিয়েছে এ দেশের মানুষ।
এ দেশের ফুটবল নিয়ে এসব কথা এখন গল্পের মতো লাগে। আজকাল তো অনেক সময় ফুটবলের মাঠে দর্শকই পাওয়া যায় না। উৎসব-উত্তেজনা তো আরও পরের কথা।
তবে হাল না ছেড়ে ফুটবলের দিন ফেরানোর চেষ্টা অব্যাহত আছে। সাড়াও পাওয়া যাচ্ছে বেশ। শত হলেও তো বাঙালির প্রাণে লুকিয়ে আছে—ফুটবল। ফুটবল তো বাংলাদেশের মানুষের প্রাণেরই খেলা।
বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ঘিরে বাংলাদেশে আবার প্রাণ ফিরে পেয়েছে ফুটবল। ভক্তদের মাঝে জোয়ার এসেছে। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দর্শকের ঢল তো বলছে সেটাই। আজ রোববার বিকেল পাঁচটায় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে এই প্রতিযোগিতার ফাইনাল। বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ মালয়েশিয়া।
স্টেডিয়ামে আজ ঠাঁই মিলবে না বলেই আশা করা যায়। টিকিটের চাহিদা থেকে অন্তত তা-ই মনে হচ্ছে। ফুটবলের এই দুর্দিনে টিকিটের কালোবাজারিও নাকি চলছে। ফাইনাল ঘিরে স্টেডিয়ামপাড়ায় উন্মাদনা দেখা গেছে। স্টেডিয়ামে যাঁরা যাবেন না কিংবা যেতে পারছেন না, তাঁদের চোখ থাকবে টিভির পর্দায়।
দেশের অবস্থা ভালো না। চারদিকে ভীতি, আশঙ্কা। যেখানে-সেখানে ওত পেতে আছে যমদূত। পেট্রলবোমায় নিরীহ মানুষ মরছে। মনের ভার পাহাড় ছুঁয়েছে। এরই মাঝে মানুষ আজ আশায় বুক বেঁধেছে। রাজনৈতিক মেরুকরণে দারুণভাবে আক্রান্ত এ দেশের সব মানুষ আজ এক মেরুতে এসে মিলেছে। সবার লক্ষ্য এক, স্বপ্ন এক—জয় চাই ফুটবলে।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন