বিশ্বকাপে মেসির শেষ ছবি হয়ে থাকবে এই দৃশ্য?
বিশ্বকাপে মেসির শেষ ছবি হয়ে থাকবে এই দৃশ্য?ফাইল ছবি

ইউরোপিয়ান সুপার লিগ ফুটবলকে ধাক্কা দিয়েছে বললে বাড়াবাড়ি রকমের সরলীকরণ হয়ে যায়। মাত্র এক রাতের ব্যবধানেই ফুটবল মানচিত্র বদলে যাওয়ার দশা ইউরোপে। চ্যাম্পিয়নস লিগের ড্র হচ্ছে কিন্তু সেখানে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা কিংবা জুভেন্টাস নেই—ভাবা যায়?

২০ দল নিয়ে বিদ্রোহী এক লিগের স্বপ্ন দেখছেন জুভেন্টাসের সভাপতি আন্দ্রেয়া আনেয়েল্লি ও রিয়াল মাদ্রিদের সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ। চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে গত কয়েক বছরে লাভের যে ভাগ পাচ্ছিলেন, তাতে এমনিতেও সন্তুষ্ট ছিলেন না। আর করোনাকালে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে বড় সব ক্লাবই। এ সময়েই আর্থিক দিকটার প্রলোভন দেখিয়েই ইউরোপের পরাশক্তিদের নিজেদের পক্ষে টেনে নিয়েছেন আনেয়েল্লি ও পেরেজ। স্পেন, ইংল্যান্ড ও ইতালির সেরা সব ক্লাব নিয়ে এক বিদ্রোহী লিগ আয়োজনের ঘোষণা দিয়েই দিয়েছেন তাঁরা।

১২ ক্লাবের এই ঘোষণা উয়েফা ও ফিফার বিরুদ্ধে একপ্রকার যুদ্ধ ঘোষণা। কিন্তু ক্লাব ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার এই লড়াইয়ে প্রাণ যাওয়ার দশা খেলোয়াড়দের। ক্লাবগুলোকে শাস্তি দেওয়ার পাশাপাশি এই ক্লাবগুলোর খেলোয়াড়দেরও বিপদে ফেলতে চাইছে উয়েফা। এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়ে দিয়েছে, উয়েফা ও ফিফা আয়োজিত কোনো টুর্নামেন্টেই খেলতে দেওয়া হবে না বিদ্রোহী লিগে যোগ দেওয়া ক্লাবগুলোর কোনো খেলোয়াড়কে।

গত এক যুগের বেশি সময় বিশ্ব ফুটবলকে বুঁদ করে রাখা দুজনকে নিয়ে তাই সংশয় জাগে। তবে কি লিওনেল মেসিকে আর্জেন্টিনার জার্সিতে আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে পর্তুগালের জার্সিতে আর দেখা যাবে না?

বিজ্ঞাপন

রিয়াল, জুভেন্টাস, বার্সেলোনা, আতলেতিকো মাদ্রিদ, ইন্টার মিলান, এসি মিলান, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি, চেলসি, আর্সেনাল ও টটেনহাম। আপাতত এই ১২ ক্লাবের নামই পাওয়া যাচ্ছে সুপার লিগে। শিগগিরই আরও ৮ ক্লাবের নাম এখানে যুক্ত হতে পারে। স্কোয়াড, যুবদল ও একাডেমি মিলিয়ে ২০ ক্লাবে প্রায় এক হাজার ফুটবলার আছেন। তাঁদের সবার জাতীয় দলের দরজা এক ধাক্কায় বন্ধ হয়ে যাবে উয়েফা সভাপতি আলেক্সান্দর সেফেরিনের হুমকি সত্যি হলে।

সুইজারল্যান্ডের মত্রে আজ আলোচনায় বসেছিল উয়েফার নির্বাহী কমিটি। সে আলোচনা শেষে এই সুপার লিগের প্রসঙ্গে নিজের সব রাগ ঝেড়েছেন সেফেরিন, ‘সম্পূর্ণ লোভের বশে দেওয়া এই লজ্জাকর, স্বার্থান্বেষী প্রস্তাবের বিরুদ্ধে উয়েফা ও ফুটবল বিশ্ব কতটা কঠোর, সেটা আমি বলে বোঝাতে পারব না। এটা একটা আজগুবি প্রস্তাব। এ প্রস্তাব ফুটবল সমর্থক ও আমাদের সমাজের মুখে থুতু মারার মতো। ফুটবলকে আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নিতে দেব না আমরা।’

এরপরই ১২টি ক্লাবে খেলা খেলোয়াড়দের সতর্ক করে দিয়েছেন সেফেরিন। বলে দিয়েছেন, ক্লাবের দায়টা খেলোয়াড়দেরও নিতে হবে, ‘যেসব খেলোয়াড় এই লিগে খেলবে, তাদের বিশ্বকাপ ও ইউরোতে নিষিদ্ধ করা হবে। ওদের জাতীয় দলে খেলতে দেওয়া হবে না। আমাদের পক্ষে যতটা সম্ভব সব ব্যবস্থা নেব।’

default-image

সেফেরিন যদি নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন, তবে জাতীয় দলের খেলা রং হারাতে বাধ্য। আর্জেন্টিনা দলে লিওনেল মেসি, পাওলো দিবালা, লওতারো মার্তিনেজ, লো চেলসো, আনহেল কোরেয়ার মতো খেলোয়াড়েরা না থাকলে আক্রমণভাগ গড়তেই হিমশিম খেতে হবে। পর্তুগাল দলও শুধু ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকেই হারাবে না। সে সঙ্গে জোয়াও ফেলিক্স, ব্রুনো ফার্নান্দেজ, বের্নার্দো সিলভা, দিয়েগো জোতা, জোয়াও কানসেলো, রুবেন দিয়াজদেরও আর দেখা যাবে না!

ব্রাজিল এদিক থেকে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে। তাদের মূল তারকা নেইমার এই তালিকায় পড়ছেন না। এখন পর্যন্ত পিএসজি যে সুপার লিগে খেলার ঘোষণা দেয়নি। কিন্তু মূল দুই গোলরক্ষক আলিসন বেকার ও এদেরসনকে পাবে না ব্রাজিল। ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডে কাসেমিরো, ফাবিনিও এবং ফার্নান্দিনিও বাদ পড়বেন। রক্ষণে থিয়াগো সিলভা, রেনান লোদি, দানিলো, আলেক্স সান্দ্রো, মার্সেলো, এদের মিলিতাও—বাদ পড়ার তালিকা বেশ লম্বা। আক্রমণেও নেইমার অনেকটা সঙ্গীহারা হয়ে পড়বেন। গত কয়েক বছরে যাঁদের সঙ্গে খেলেছেন, সেই রবার্তো ফিরমিনো, ফিলিপ কুতিনিও, গাব্রিয়েল জেসুস, উইলিয়ান থাকবেন না। তরুণদের মধ্যে ভিনিসিয়ুস জুনিয়স, রদ্রিগোরাও আর থাকবেন না ব্রাজিল দলে!

শুধু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা কেন, প্রায় সব দলই ক্ষতিগ্রস্ত হবে উয়েফার এ সিদ্ধান্তে। ১২টি ক্লাবে যত ফুটবলার আছেন, তাঁরা নিষিদ্ধ হলে আন্তর্জাতিক ফুটবল কতটা বদলে যাবে, সেটা বোঝা যায় আরেকটি তথ্যে। ফুটবল র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ২২ দলের কোনো না কোনো খেলোয়াড় আছেন এই ১২টি ক্লাবে। ২৩তম র‍্যাঙ্কিংয়ে থাকা অস্ট্রিয়াই প্রথম কোনো দেশ, যাদের কোনো খেলোয়াড় এখন পর্যন্ত এই ১২ ক্লাবে খেলছেন না। মজার ব্যাপার, আগামী মৌসুমেই বায়ার্ন মিউনিখ ছেড়ে অন্য কোনো ক্লাবে যাবেন অস্ট্রিয়ার সবচেয়ে বড় তারকা ডেভিড আলাবা। তাঁর সম্ভাব্য গন্তব্য কিন্তু নিষিদ্ধ হওয়ার মুখে থাকা ১২ ক্লাবেরই রিয়াল, বার্সেলোনা কিংবা লিভারপুল!

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন