বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে মেসির শূন্যতা পূরণে যার ওপর বার্সা সমর্থকেরা ভরসা রাখছেন, সেই আনসু ফাতির চুক্তি নবায়ন সম্ভবত হবে। ২০২২ সালে বার্সার সঙ্গে ফাতির বর্তমান চুক্তির মেয়াদ ফুরোবে।

এদিকে কাতালান সংবাদমাধ্যম ‘দারিও এআরএ’ জানিয়েছে, সর্বশেষ দলবদলের মৌসুমেও বার্সায় ফাতির ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল। এর কারণও মেসি—আর্জেন্টাইন তারকাকে ধরে রাখতে স্প্যানিশ ফরোয়ার্ডকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য বার্সা সভাপতি হোয়ান লাপোর্তাকে চাপ দেওয়া হয়েছিল। ক্লাবের অভ্যন্তরীণমহলই এই চাপ তৈরি করেছিল লাপোর্তার ওপর।

default-image

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, লাপোর্তার ওপর এই চাপ তৈরি করেছিল বার্সার আর্থিক বিভাগ। লা লিগার বেঁধে দেওয়া বেতন সীমা নিয়মের মধ্যে থেকে মেসিকে ধরে রাখতে পারত না বার্সা। এ কারণেই তাঁকে ছাড়তে বাধ্য হয় কাতালান ক্লাবটি। আর্থিক বিভাগ থেকে ক্লাব সভাপতিকে বলা হয়েছিল, মেসিকে নিবন্ধিত করতে ১৮ বছর বয়সী ফাতিকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য।

ক্লাবটি এমনিতেই গত কয়েক মৌসুম ধরে আর্থিকভাবে বাজে অবস্থা পার করছে। দেনার পরিমাণ শত কোটি ইউরো ছাড়িয়েছে আগেই। এমন পরিস্থিতিতে ক্লাব ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়কে ধরে রাখতে ‘ভবিষ্যৎ’কে বেচে দেওয়ার প্রস্তাব দেয় আর্থিক বিভাগ।

কিন্তু লাপোর্তা রাজি হননি। ফাতিকে ধরে রাখতে অনড় ছিলেন তিনি। অন্যদিকে ৩৪ বছর বয়সী মেসি ফ্রি এজেন্ট হয়ে যোগ দেন পিএসজিতে। কাতালান টিভি চ্যানেল ‘টিভি৩’তে ফাতিকে ধরে রাখার কারণও ব্যাখ্যা করেছিলেন তিনি।

এআরএ আরও জানিয়েছে, বার্সায় মেসিকে ধরে রাখার পক্ষের মহল শুধু ফাতি নয়, বেশ কিছু তরুণ খেলোয়াড়কে বেচে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল। কিন্তু লাপোর্তা এই পরামর্শ কানে তোলেননি। আর সে কারণেই ফাতি এখন বার্সার সঙ্গে চুক্তি নবায়নের দ্বারপ্রান্তে।

হাঁটুর চোট থেকে প্রায় সেরে উঠেছেন ফাতি। ১০ মাস মাঠের বাইরে থাকার পর ক্লাবের অনুশীলনে ফিরেছেন তিনি। খুব দ্রুতই মাঠে ফিরতে পারবেন বলে আশা করছে বার্সা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন