বার্সেলোনার জার্সিতে এ মৌসুম ভালো যাচ্ছে না মেসির।
বার্সেলোনার জার্সিতে এ মৌসুম ভালো যাচ্ছে না মেসির।ফাইল ছবি : রয়টার্স

চোরাগোপ্তা হামলা বুঝি একেই বলে!

বার্সেলোনা ব্যস্ত ছিল পিএসজিকে নিয়ে। মাঠে, মাঠের বাইরেও। চ্যাম্পিয়নস লিগে ফরাসি দলের সঙ্গে শেষ ষোলোর ম্যাচের প্রস্তুতি নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ কাটিয়েছে তারা। ঘরের মাঠে প্রথম লেগে বার্সার ৪-১ গোলের হার বলছে, এতে খুব একটা লাভ হয়নি। আর মাঠের বাইরের ব্যস্ততা ছিল মেসিকে নিয়ে। বার্সেলোনা তারকাকে পিএসজি পেতে চায় বহুদিন ধরেই। এই জানুয়ারির পর যখনই সুযোগ পাচ্ছে, প্রকাশ্যেই মেসিকে পাওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে দলটি।

এ নিয়ে পিএসজিকে বারবার সতর্ক করেছে বার্সেলোনা। কখনো বলেছে, এখনো বড় ক্লাবের মানসিকতা হয়নি পিএসজির, তাই এমন আচরণ করছে তারা। আবার কখনো মেসির বেতনের প্রসঙ্গ তুলে বলেছে, পিএসজি আর্থিক সংগতির নিয়ম ভাঙছে, এটা জানিয়ে ফিফার কাছে বিচার দেবে তারা। মোট কথা, মেসিকে কেউ বার্সেলোনা থেকে নিলে সেটা পিএসজিই—এমনই এক ধারণা সৃষ্টি হয়েছিল।

এর মধ্যেই বোমা ফাটাল ইংলিশ মিডিয়া। কাল প্রায় সব ইংলিশ পত্রিকাই দ্য সানের বরাতে বলেছে, মেসিকে এরই মধ্যে ৪৩ কোটি পাউন্ডের প্রস্তাব পাঠিয়ে দিয়েছে সিটি। আগামী পাঁচ বছরে মেসিকে বেতন–ভাতা বাবদ বাংলাদেশি মূল্যমানে ৫ হাজার ১০৮ কোটি টাকা দিতে চায় তারা! যদিও ম্যানচেস্টার সিটি এমন খবরের সত্যতা অস্বীকার করছে।

বিজ্ঞাপন

গত আগস্টে মেসি যখন বার্সা ছাড়তে চেয়েছিলেন, ম্যানচেস্টার সিটিতে পেপ গার্দিওলার উপস্থিতির কারণে তখন ইংলিশ ক্লাবটিই মেসিকে পেতে এগিয়ে আছে বলে মনে করা হচ্ছিল। মেসির বড় অঙ্কের বেতন দেওয়ার ক্ষমতাও বিশ্ব ফুটবলে ম্যান সিটি ছাড়া আর মাত্র একটি দলেরই আছে, পিএসজি। তখন পিএসজিকে খুব একটা গোনায় ধরা হচ্ছিল না। কিন্তু মেসি থেকে গেছেন বার্সেলোনায়। আর মৌসুম যত এগিয়েছে, ততই পিএসজির গুঞ্জন ভারী হয়েছে। নেইমার বলেছেন, আগামী মৌসুমে মেসির সঙ্গে এক ক্লাবে খেলতে চান। পিএসজির দুই আর্জেন্টাইন আনহেল দি মারিয়া ও লিয়ান্দ্রো পারেদেসও মেসির সঙ্গে খেলতে ‘মন আঁকুপাঁকু’ করছে বলে জানিয়েছেন।

আর্জেন্টাইন মরিসিও পচেত্তিনো জানুয়ারিতে কোচ হয়ে পিএসজিতে যোগ দেওয়ার পর মেসির ভবিষ্যৎ ক্লাবের আলোচনায় হঠাৎ করেই ‘নাই’ হয়ে গিয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি। পচেত্তিনো যখনই সুযোগ পেয়েছেন মেসির গুণগান গেয়েছেন। মেসিকে কোচিং করানো তাঁর স্বপ্ন, জানিয়েছেন সবাইকে। বার্সেলোনাও বারবার পিএসজিকে সতর্ক করে দিচ্ছিল এমনভাবে মেসিকে ডাকাডাকি বন্ধ করার জন্য। সিটি যে মেসিকে নিতে চাইতে পারে, সেটাই যেন কারও মাথায় নেই!

এর মধ্যেই সান খবর জানাল, মেসিকে পাওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে সিটি। জুনেই যেহেতু বার্সেলোনার চুক্তি থেকে মুক্ত হয়ে যাবেন, জুনে ৩৪-এ পড়তে যাওয়া আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডকে নিতে কোনো খরচ হবে না সিটির। বরং মেসিকে বেতন হিসেবে কত দেওয়া যায়, সেদিকেই মনোযোগ সিটির। সে প্রস্তাবে পাঁচ বছরে ৪৩ কোটি পাউন্ড দিতে চায় সিটি। এর মধ্যে প্রথম দুই বছর ম্যানচেস্টার সিটিতেই খেলবেন। আর যদি সম্ভব হয়, তাহলে সেটা আরও এক বছর বাড়িয়ে নেওয়া যাবে। চুক্তির বাকি সময়টা নিউইয়র্ক সিটির হয়ে খেলতে হবে মেসিকে (সিটিতে দুই বছর হলে নিউইয়র্কে তিন বছর, আর সিটিতে তিন বছর হলে নিউইয়র্কে দুই)। সিটির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবেও নাকি কাজ করবেন মেসি।

default-image

এমন এক খবর কাল ছড়িয়ে পড়ে ব্রিটিশ মিডিয়ায়। স্প্যানিশ পত্রিকাগুলোও বেশ গুরুত্ব নিয়ে দেখছিল এ খবরকে। কারণ, গত মৌসুমেই মেসির জন্য ৬০ কোটি পাউন্ড দিতে চেয়েছিল সিটি। করোনাকালে সে অঙ্ক কমিয়ে আনাতেই নাকি খবরটি বেশি বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠেছিল। কিন্তু সিটি এমন খবরকে উড়িয়ে দিয়েছে। ক্লাবের এক মুখপাত্র গোল ডটকমকে বলেছেন, মেসির জন্য কোনো প্রস্তাব তাঁরা পাঠাননি এবং এ ব্যাপারে মেসির সঙ্গে তাঁরা কোনো আলাপও চালাচ্ছেন না। যদিও মেসির চুক্তির শর্ত অনুযায়ী এখন চাইলেই স্পেনের বাইরে যেকোনো ক্লাবের সঙ্গে আলাপ করতে পারবেন দলের অধিনায়ক। চুক্তির আর ছয় মাসও বাকি না থাকায় বার্সেলোনা এ ব্যাপারে আপত্তি জানাতেও পারবে না।

মেসি অবশ্য জানুয়ারিতেই জানিয়েছেন, জুনের আগে অন্য কোনো ক্লাবের সঙ্গে কথা বলবেন না। জুনে চুক্তির মেয়াদ শেষ হলেই সিদ্ধান্ত নেবেন। ওদিকে ক্লাব সভাপতি না থাকায় মেসির চুক্তি নবায়নের কথাবার্তাও এগোচ্ছে না। ৭ মার্চ বার্সেলোনার সভাপতি নির্বাচনে ভিক্তর ফন্ত বা হোয়ান লাপোর্তা—যে-ই জিতুন না কেন, তাঁদের প্রথম কাজ হবে মেসিকে বার্সেলোনায় থেকে যেতে রাজি করা।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন