বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২৫ বছর বয়সী এই তরুণ গোলকিপার হিসেবে ফরাসি ফুটবলে ভালোই প্রশংসা কুড়িয়েছেন। ইসরায়েলি ক্লাব ম্যাকাবি তেল আবিব থেকে ২০১৯ সালে তিনি যোগ দেন রেইমসে। এদয়ার্দ মেন্দি চেলসিতে যাওয়ায় তাঁর বিকল্প হিসেবে রাইকোভিচকে কিনেছে ক্লাবটি। এখন তাঁর সামনে পাহাড়প্রমাণ চ্যালেঞ্জ। রোববার পিএসজি ত্রিফলা আক্রমণভাগ নিয়ে ছক কষলে খুব স্বাভাবিকভাবেই অনেকের চোখ থাকবে রাইকোভিচের ওপর। তবে মেসি–নেইমার–এমবাপ্পে জুটিকে গোলবঞ্চিত রাখতে পারলে সেটা অলৌকিক বলেই মনে হবে তাঁর কাছে।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’কে তিনি বলেছেন, ‘হ্যাঁ, এটা অলৌকিক বলেই মনে হবে যদি এই তিন তারকাকে গোলবঞ্চিত রাখতে পারি, অবশ্য সে জন্য তাদের একসঙ্গে খেলতে হবে। তারা অন্য গ্রহের খেলোয়াড়।’ তা, অন্য গ্রহের এই তিন খেলোয়াড়ের জুটির বিপক্ষে প্রথম গোলকিপার হিসেবে গোলপোস্টে দাঁড়াতে কেমন লাগবে? স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি মোটেও স্বস্তিদায়ক হবে না। মুঠোফোনে আলাপচারিতায় রাইকোভিচের উত্তর, ‘আমরা জানি ম্যাচটা খুব কঠিন হবে। তবে আমরা মাঠে নিজেদের সর্বস্বই নিংড়ে দেব।’

default-image

মেসি–নেইমার–এমবাপ্পের মধ্যে কাউকে নির্দিষ্টভাবে সেরা হিসেবে বেছে নেননি রাইকোভিচ। তাঁর চোখে, ‘তিনজনই খুব উঁচুমানের খেলোয়াড়। (রোববার) আমাকে নিজের সেরাটা ঢেলে দিতে হবে।’ তবে রাইকোভিচ একটি বিষয় খুব ভালোভাবেই বুঝতে পারছেন, মেসি আসায় লিগ আঁ–র দর্শকসংখ্যা বাড়বে, ‘এসব তারকারা একসঙ্গে খেলায় এখন অনেকেই লিগ আঁ দেখবেন।’

প্রায় দুই সপ্তাহ হয়ে গেল পিএসজিতে যোগ দিয়েছেন মেসি। সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, মরিসিও পচেত্তিনোর একাদশের হয়েই তাঁর মাঠে নামার সম্ভাবনা রয়েছে। নেইমার ফিরেছেন পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিয়ে। অনুশীলন করেছেন ফুরফুরে মেজাজে, তাঁর খেলার সম্ভাবনাই বেশি। সন্দেহ যদি কাউকে নিয়ে থেকে তিনি এমবাপ্পে। পিএসজি ছাড়ি ছাড়ি করছেন ফরাসি তারকা। এই পরিস্থিতিতে পিএসজি তাঁকে খেলাবে কি না, সেটি অবশ্যই প্রশ্নসাপেক্ষ। তবে সময় হলেই সব জানা যাবে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন