বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পিএসজি এখন ইউরোপে বড় শক্তি। কিন্তু অভীষ্ট লক্ষ্যটা এখনো ছুঁয়ে দেখা হয়নি। চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতে ইউরোপের সেরা দল হওয়া, রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাতারে নিজেদের নাম খোদাই করার স্বপ্ন নিয়েই তো প্রতি মৌসুমে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করে চলেছে দলটি। কিন্তু ২০২০ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে ওঠা ছাড়া কিছুই করতে পারেনি তারা। এবার পিএসজিতে আছেন মেসি, সঙ্গে নেইমার, এমবাপ্পে, দি মারিয়া, সের্হিও রামোস, ভাইনালডামদের মতো তারকা। অনেকেই তো বলছেন, এবার যদি পিএসজি চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে না পারে, তাহলে তারা নাকি আর কোনো দিনই জিততে পারবে না। এটি পিএসজির জন্য বড় চাপই।

অধিনায়ক মার্কুইনহোস অবশ্য ব্যাপারটিকে খুব আমল দিতে চান না, ‘পিএসজিতে আমরা সব সময় চাপ নিয়েই খেলি। ভালো করার, বড় কিছু করার চাপ। সে হিসাবে আমরা চাপের সঙ্গে বাস করতে শিখে গেছি। এই চাপ আমাদের দৈনন্দিন জীবনেরই অংশ। এবার আমাদের যে দল, তাতে মানুষ আরও বেশি করে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার কথা বলছে। আমরা দারুণ খুশি, আমাদের দলটা এত ভালো। কিন্তু আমরা কেবল ইতিবাচক ব্যাপারগুলোই নিতে চাই।’

default-image

মার্কুইনহোস নিজেও বলতে পারছেন না আজ ক্লাব ব্রুগার বিপক্ষে মেসি-নেইমার-এমবাপ্পে একসঙ্গে খেলবেন কি না! একাদশ কেমন হবে, সে ভাবনা কোচ পচেত্তিনোর ওপরই ছেড়ে দিতে চান, ‘এ নিয়ে বলার কিছু থাকলে আমি বলতাম। আমি জানি না দলটা কেমন হবে। যদি এই তিন তারকা একসঙ্গে খেলে, তারা অভিজ্ঞ, জানে কী করতে হবে। আমাদের দলটাকে আঁটসাঁট করে গড়তে হবে। রক্ষণ হতে হবে ভালো। রক্ষণ যদি ওপরে উঠে খেলতে পারে, তাহলে তাদেরও ভালো কিছু করার সুযোগ সৃষ্টি হবে।’

পিএসজিতে কোচ পচেত্তিনোর ভাবনায় মেসি-নেইমার-এমবাপ্পে আছেন, থাকবেন। কিন্তু তাঁকে যে আরও একটা পজিশনে সিদ্ধান্ত নিতে বেগ পেতে হচ্ছে। সেটি গোলকিপিং। দলে অভিজ্ঞ, পরীক্ষিত কেইলর নাভাস আছেন। এ মৌসুমে ইতালিকে ইউরো জিতিয়ে পিএসজিতে যোগ দিয়েছেন জিয়ানলুইজি দোন্নারুম্মা। এখন কাকে খেলাবেন? পচেত্তিনো অবশ্য ‘ম্যাচ বাই ম্যাচ ভাবনা’র কথা শুনিয়ে প্রশ্নটা এড়িয়েছেন।

দলে এত সব দুর্দান্ত তারকার সমাবেশ কোচকে নিশ্চিন্ত করে, এটা ভুল কথা। এত তারকার নিয়ে কোচের পরীক্ষাটা যে আরও কঠিন হয়ে ওঠে। পচেত্তিনো হাড়ে হাড়েই বুঝতে পারছেন তা!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন