বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গোটা ম্যাচেই একরকম ছন্নছাড়া ফুটবল খেলেছে পিএসজি। দলে তারকা থাকলেই যে শুধু হয় না, দলের মধ্যে একটা যে রসায়নও থাকতে হয়, সেটা যেন বারবার মনে পড়েছে মেসিদের খেলা দেখে। পিএসজির হয়ে মেসি-নেইমার-এমবাপ্পে ত্রয়ীর সবাই খেললেও ছিলেন না মার্কো ভেরাত্তির মতো মিডফিল্ডার। ওদিকে সিটি পায়নি ফিল ফোডেন ও জ্যাক গ্রিলিশের মতো তারকাদের।

লেফটব্যাক ওলেসান্দর জিনচেঙ্কোকে মাঝমাঠে খেলিয়ে চমক দেখিয়েছেন গার্দিওলা। আক্রমণভাগে মাহরেজের সঙ্গে খেলেছেন বের্নার্দো সিলভা আর রাহিম স্টার্লিং।

default-image

প্রথমার্ধে দুই দলের কেউই গোল করতে পারেনি। তবে ৪৯ মিনিটে গোলের গেরো খোলেন পিএসজির এমবাপ্পে। পিছিয়ে পড়েও আশা হারায়নি সিটি। ৭৬ মিনিটের মধ্যেই দুই গোল করে সিটিকে ম্যাচে ফেরান স্টার্লিং আর বিকল্প হিসেবে মাঠে নামা স্ট্রাইকার গাব্রিয়েল জেসুস। ইংলিশ ফুটবলারদের মধ্যে চ্যাম্পিয়নস লিগে এই নিয়ে ২৩ গোল হয়ে গেল রাহিম স্টার্লিংয়ের। তাঁর চেয়ে বেশি গোল আছে কেবল পল স্কোলস আর ওয়েইন রুনির।

ওদিকে এই প্রতিযোগিতায় ১৯ গোল করে কিংবদন্তি রোনালদিনিওকে ছাড়িয়ে গেছেন জেসুস। চ্যাম্পিয়নস লিগে রোনালদিনিওর গোলসংখ্যা ১৮। এই নিয়ে গোটা ক্যারিয়ারে মরিসিও পচেত্তিনোকে ১৩ বার হারালেন পেপ গার্দিওলা। এত বেশি অন্য কোনো ম্যানেজারকে হারাননি তিনি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন