বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পর্তুগিজ সংবাদমাধ্যম ‘আরটিপি স্পোর্টস’ এর আগে জানায়, এ বছর সপ্তমবারের মতো ব্যালন ডি’অর জিতবেন পিএসজি তারকা মেসি। সংক্ষিপ্ত তালিকায় রবার্ট লেভানডফস্কি, আরলিং হরলান্ড, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর মতো প্রতিদ্বন্দ্বীদের পেছনে ফেলে প্রথা অনুযায়ী ‘ফ্রান্স ফুটবল’কে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মেসি।

আর্জেন্টাইন তারকা নিজেও নাকি খবরটা জানেন, এমনটাই বলা হয় কিছু সংবাদমাধ্যমে। কিন্তু এই সাময়িকীর সম্পাদক প্যাসকেল ফেরে সংবাদমাধ্যমের এসব প্রতিবেদনকে ‘ডাহা মিথ্যা’ বলেছেন।

আর্জেন্টিনার হয়ে কোপা আমেরিকা জেতায় এ বছর ব্যালন ডি’অর জয়ে মেসি খুব শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী। কিন্তু বর্ষসেরা হিসেবে এখনো কাউকে বেছে নেওয়া হয়নি—এ খবর নিশ্চিত করে জার্মান সংবাদমাধ্যম ‘বিল্ড’কে প্যাসকেল ফেরে বলেছেন, ‘গত ১০ দিনে বেশ কিছু ডাহা মিথ্যা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। বড় ধোঁকাবাজি সেগুলো।’

গত জুলাইয়ে আর্জেন্টিনার হয়ে কোপা আমেরিকা জেতেন মেসি। দেশের হয়ে এটা তাঁর প্রথম শিরোপা। এরপর থেকেই জুয়ার বাজারে ব্যালন ডি’অর জয়ে মেসিই এগিয়ে।

করোনার কারণে গত বছর ব্যালন ডি’অর দেওয়া হয়নি। গত বছর ফিফার বর্ষসেরা ‘বেস্ট’জয়ী লেভানডফস্কি এবারও মেসির বড় প্রতিদ্বন্দ্বী। এ মৌসুমে ১৭ ম্যাচে ২৩ গোল করেছেন বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ স্ট্রাইকার।

দৌড়ে আরও আছেন চেলসির ইতালিয়ান মিডফিল্ডার জর্জিনিও। চেলসির হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার পাশাপাশি তিনি ইউরো জিতেছেন ইতালির হয়ে। লিভারপুলের হয়ে এ মৌসুমে দারুণ খেলা মোহাম্মদ সালাহও ব্যালন ডি’অর জয়ের শক্ত দাবিদার। ব্যালন ডি’অর বিজয়ী বেছে নিতে ইতিমধ্যেই আন্তর্জাতিক দলগুলোর কোচ, অধিনায়ক ও সংবাদকর্মীদের ভোট নেওয়া হয়েছে।

বার্সেলোনা ছেড়ে এ মৌসুমে পিএসজিতে যোগ দেওয়া মেসি এর আগে বলেছিলেন, এবার ব্যালন ডি’অর জিততে পারলে সেটি হবে দারুণ ব্যাপার, ‘সাত নম্বর ব্যালন ডি’অর জয়টা হবে পাগলাটে ব্যাপার। না জিতলেও সমস্যা নেই। যা যা অর্জন করতে পেরেছি, সেসব নিয়ে আমি খুশি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন