default-image

এবারের ব্যালন ডি’অরের সেরা তিনে কারা থাকবেন, সেটি মোটামুটি অনুমিতই ছিল। প্যারিসে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে হয়েছেও তাই। রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো ব্যালন জিতেছেন লিওনেল মেসি। বেশির ভাগের অনুমান সত্য করে দ্বিতীয় হয়েছেন লিভারপুলের ভার্জিল ফন ডাইক, আর তৃতীয় হয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তবে হাফিজ মারিকারের কাছে এ ফল খুব একটা পছন্দ হওয়ার কথা নয়। পুরস্কার জয়ী তিন ফুটবলারের কেউ যে তাঁর সেরা পাঁচেই ছিলেন না!

হাফিজ মারিকারের পরিচয়টা আগে দেওয়া যাক। শ্রীলঙ্কার পত্রিকা ডেইলি নিউজের সাংবাদিক তিনি। ব্যালন ডি’অরের বিজয়ী নির্বাচনে সাংবাদিকদের ভোট বরাবরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অন্যদের মতো ভোটাভুটিতে অংশ নিয়েছিলেন হাফিজও। কিন্তু সবাইকে অবাক করেছে তাঁর ভোটগুলো। বিজয়ী মেসি, রানার্সআপ ফন ডাইক কিংবা তৃতীয় হওয়া রোনালদো- কেউই তাঁর সেরা পাঁচে ঠাঁই পাননি!

হাফিজ তাঁর বর্ষসেরা ফুটবলার হিসেবে বেছে নিয়েছেন লিভারপুলের রাইটব্যাক ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ডকে। গত মৌসুমে দুর্দান্ত ফুটবল খেলা লিভারপুলের মূল একাদশের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন আলেক্সান্ডার-আরনল্ড। হাফিজের দ্বিতীয় বর্ষসেরা আর্সেনালের গ্যাবনিজ স্ট্রাইকার পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াং। আর তৃতীয় হিসেবে তিনি বাছাই করেছেন ফ্রান্সের বিশ্বকাপজয়ী তারকা আতোঁয়া গ্রিজমানকে।

বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচনে বেশির ভাগ সাংবাদিকই বেছে নিয়েছেন লিওনেল মেসি, ভার্জিল ফন ডাইক কিংবা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। কিন্তু শ্রীলঙ্কার এক সাংবাদিক এই তিনজনের কাউকেই সেরা পাঁচে রাখেননি।

সেরা তিনে তো রাখেনইনি, মেসি-রোনালদো-ফন ডাইককে পরের দুটি স্থানে রাখার যোগ্যও মনে করেননি হাফিজ! চার নম্বরে তিনি রেখেছেন বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডোফস্কিকে। আর পঞ্চম হিসেবে বাছাই করেছেন মেসির বার্সা সতীর্থ মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেনকে।

হাফিজের এই ‘অভ্যাস’ অবশ্য নতুন নয়। গত বছরের ভোটাভুটিতেও মেসি-রোনালদো-মদ্রিচের কাউকে সেরা তিনে রাখেননি তিনি! গত বছর তাঁর সেরা তিন ফুটবলার ছিলেন এডেন হ্যাজার্ড, রবার্তো ফিরমিনো ও পল পগবা। রোনালদোকে তাও চার নম্বরে জায়গা দিয়েছিলেন, মেসিকে গতবারও রাখেননি সেরা পাঁচে!

হাফিজের মতো অনেকটা একই কাজ করেছেন গুয়াতেমালার সাংবাদিক ফ্রান্সিসকো আগুইলার চ্যাংও। তাঁর সেরা পাঁচে ফন ডাইক থাকলেও নেই মেসি-রোনালদোর কেউ। সেরা পাঁচের মধ্যে চারজনই লিভারপুলের। তাঁর বর্ষসেরা ফুটবলার লিভারপুলের ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকার, দ্বিতীয় সেরা হিসেবে বাছাই করেছেন অ্যালিসনের ক্লাব সতীর্থ ফন ডাইককে। তৃতীয়তে রেখেছেন ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংকে, চারে ফিরমিনো ও পঞ্চম স্থানে রেখেছেন মোহামেদ সালাহকে।

হাফিজ-চ্যাংয়ের ভোট না পেলেও অবশ্য নিজের ষষ্ঠ ব্যালন জিততে সমস্যা হয়নি মেসির। ফন ডাইককে সাত পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়ে ইতিহাসের প্রথম ফুটবলার হিসেবে ষষ্ঠবারের মতো মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কার নিজের করে নিয়েছেন বার্সেলোনা তারকা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0