মেসি কেন খেলছে না, জবাব দাও!

বিজ্ঞাপন
default-image

লিওনেল মেসি কেন খেলছে না? প্রশ্নটা যথাসম্ভব কড়া মেজাজেই জানতে চেয়েছে তারা। রীতিমতো চিঠি লিখে ব্যাখ্যা দাবি করা হয়েছে। কারা খেপেছে? না, আর্জেন্টিনার কোনো সমর্থক নয়, গুচ্ছের টাকা খরচ করে প্রীতি ম্যাচের ভেন্যুতে উড়ে যাওয়া কোনো দর্শকও নয়; ক্ষোভে ফেটে পড়েছে খোদ মরক্কো। যাদের বিপক্ষে আগামীকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টায় মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা।

প্রতিপক্ষ একাদশে মেসি নেই, এটা তো যেকোনো দলের জন্যই সুখবর। তাহলে মরক্কো এত রাগছে কেন? তাঁদের তো খুশিই হওয়ার কথা। একটু ঠান্ডা মাথায় ভাবলে অবশ্য রাগের কারণটা পরিষ্কার হয়ে যাবে। এমনিতেই আর্জেন্টিনার মতো দলের বিপক্ষে খেলার সুযোগ নিয়মিত আসে না। সেই সুযোগও যখন এল, তখন কি না মেসিই একাদশে নেই!

মেসি যে দীর্ঘ বিরতির পর জাতীয় দলে ফিরেছিলেন, ধারণা করা হচ্ছে আগামীকালের ম্যাচটি ছিল তার বড় নেপথ্য কারণ। সাধারণত এ ধরনের প্রীতি ম্যাচ থেকে জাতীয় দলগুলো আয় করে থাকে। সত্যি বলতে, জাতীয় দলগুলোর আয়ের বড় উৎসই এ ধরনের প্রীতি ম্যাচ। আর মেসির মতো তারকা থাকা মানে সেই ম্যাচের দর কয়েক গুণ বেড়ে যাওয়া। না-থাকা মানে উল্টোটা। সাধারণত আর্জেন্টিনার মতো দলের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলার চুক্তি করার আগে শর্তই দেওয়া থাকে মেসির মতো তারকাদের খেলাতে হবে। ন্যূনতম কত মিনিট খেলাতে হবে, এমন উল্লেখও থাকে।

মরক্কো এই ম্যাচের স্বাগতিক। ম্যাচটি খেলার জন্য আর্জেন্টিনাকে বেশ বড় অঙ্কের টাকা তারা দিয়েছে মেসি থাকবে ভেবেই। আর্জেন্টিনা ফুটবল সংস্থা (এএফএ) ও রয়্যাল মরক্কোর ফুটবল ফেডারেশনের (এফআরএমএফ) চুক্তিতে এই শর্ত ছিল বলেই ধারণা করা হচ্ছে। কারণ পাল্টা শর্তে মেসির সঙ্গে কী করা যাবে আর কী করা যাবে না এমন কিছু দাবি ছিল এএফএর তরফ থেকে। যার মধ্যে ছিল মেসির সঙ্গে সেলফি তোলা যাবে না, এমনকি মরক্কোর কোনো খেলোয়াড়ও তা করতে পারবে না। শর্ত ছিল, মেসিকে কড়া ফাউলও করা যাবে না পর্যন্ত।

মেসির এই ম্যাচটি খেলারই কথা ছিল। কিন্তু ৯ মাস পরে জাতীয় দলের জার্সিতে ফিরে মেসি দেখলেন, দলটা আরও জঘন্য হয়ে গেছে। ভেনেজুয়েলার কাছে হেরেছে ৩-১ গোলে। ওই ম্যাচের পরই জানিয়ে দেওয়া হয়, মেসি গ্রোয়েন বা কুঁচকিতে চোট পেয়েছেন। তাই পরের প্রীতি ম্যাচটা খেলছেন না। বার্সেলোনাও নিশ্চিত করেছে মেসির চোটের খবরটা। তবে এও শোনা যাচ্ছে, ৩০ মার্চ মেসি নাকি এসপানিওলের বিপক্ষে ডার্বি ম্যাচটা খেলবেন। মরক্কো তাই সন্দিহান, মেসির চোটটা আদৌ সত্যি কি না!

এফআরএমএফের বিবৃতিতে তাদের হতাশা স্পষ্ট ফুটে উঠেছে, 'গত শনিবার আমরা একটা চিঠি পেয়েছি এই ম্যাচ আয়োজনে যে এজেন্টের সঙ্গে কথা বলেছিলাম তার কাছ থেকে। সেই চিঠিতে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে এই ম্যাচে মেসি খেলছে না। তানজিয়েরে অনুষ্ঠেয় এই ম্যাচে মেসির না থাকার ব্যাপারে আর্জেন্টিনা ফুটবল সংস্থার অনুমোদিত একটি ব্যাখ্যা সেই এজেন্টের কাছ থেকে চেয়েছে এফআরএমএফ। এই ম্যাচ আয়োজনের ব্যাটারে এফআরএমএফ যেসব শর্তে রাজি হয়েছিল তার আর কোনো মূল্যই তো থাকল না। কারণ আর্জেন্টিনা তাদের সেরা দলটাকেই খেলাবে বলে কথা দিয়েছিল।'

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন