default-image

ডিয়েগো ম্যারাডোনার দেশে লিওনেল মেসিদের বিপক্ষে খেলার সুযোগ। এমন কিছু দক্ষিণ এশিয়ার কোনো দেশের জন্য অকল্পনীয় ছিল এত দিন। জুনের মাঝামাঝি শুরু হয়ে জুলাইয়ে শেষ হবে ২০২১ কোপা আমেরিকা। প্রতিটি টুর্নামেন্টেই কোনো না দলকে আমন্ত্রণ জানানো হয় দক্ষিণ আমেরিকার এই মহাদেশীয় টুর্নামেন্টে।

হঠাৎ করেই সে টুর্নামেন্টে ভারতের খেলার সুযোগ এসেছিল। করোনাভাইরাসের সুবাদে সূচি বদলানোতেই এসেছিল সে সুযোগ। সেটা আবার কেড়ে নিল মহামারিই। আচমকা কোপা খেলার সুযোগটা আবার উবে গেছে ভারতের। গতকাল দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা জানিয়ে দিয়েছে, এবার আর কোনো দলকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না।

কনফেডারেশনের অধীনে থাকা ১০ দল নিয়েই আয়োজিত হবে এবারের কোপা আমেরিকা। আর সে কোপায় আমন্ত্রিত দল হিসেবে ডাক পাওয়া ভারতকে দেখা যাবে না।

default-image
বিজ্ঞাপন

প্রতি টুর্নামেন্টেই অন্য কোনো ফেডারেশন থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। গত কোপাতে আমন্ত্রিত হিসেবে খেলেছে জাপান ও কাতার। ২০১৬ কোপা আমেরিকায় তো আমন্ত্রিত দলই ছিল ৬টি। ২০২০ যা ২০২১ কোপা আমেরিকায় রূপ নিয়েছে। এতেও দুটি দলকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক কাতারের সঙ্গে এশিয়া থেকেই অস্ট্রেলিয়াকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু ১৩ জুন থেকে ১০ জুলাই সময়টায় বিশ্বকাপ বাছাই নিয়ে ব্যস্ত থাকায় দুই দেশ নিজেদের অপারগতার কথা জানিয়ে দিয়েছে।

গতকাল এক বিবৃতিতে এ দুই দেশের পরিবর্তে অন্য কোনো দলকেই যে আর আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না, সেটা কনমেবল জানিয়ে দিয়েছে, 'আমাদের রীতি অনুযায়ী এবারও অন্য ফেডারেশন থেকে দল আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু স্থগিত ম্যাচ (বিশ্বকাপ বাছাইয়ের) ও মহামারির কারণে সূচি পিছিয়ে দেওয়ায় বিশ্ব ফুটবলের অন্য সব দেশকেই অংশ নেওয়া থেকে বঞ্চিত করছে।’

প্রথমবারের মতো দুই দেশ আয়োজন করছে কোপা। উদ্বোধনী ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে আর্জেন্টিনার বুয়েনেস এইরেসে। ওদিকে কলম্বিয়ার বারানকিয়ায় হবে টুর্নামেন্টের ফাইনাল। আমন্ত্রিত দুই দেশসহ ১২টি দল দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে দুই দেশে খেলার কথা ছিল। তাতে আর্জেন্টিনার গ্রুপে থাকা উরুগুয়ে, চিলি, প্যারাগুয়ে, বলিভিয়া ও অস্ট্রেলিয়া খেলত আর্জেন্টিনার দুই ভেন্যুতে। ওদিকে ব্রাজিল, কলম্বিয়া, ইকুয়েডর, পেরু, ভেনেজুয়েলা ও কাতার খেলত কলম্বিয়ার দুই মাঠে।

অস্ট্রেলিয়া নিজেদের নাম সরিয়ে নিয়ে নিজ থেকেই ভারতের নাম প্রস্তাব করেছিল কনমেবলের কাছে। কনমেবলও দলটিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। সে অনুযায়ী আর্জেন্টিনার গ্রুপে পড়ত ভারত। লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা ও লুইস সুয়ারেজের উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলার অনন্য এক অভিজ্ঞতা পাওয়ার সম্ভাবনায় উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠেছিল সুনীল ছেত্রীর দেশ।

এ ব্যাপারে গত ফেব্রুয়ারিতে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের (আইএফএ) সাধারণ সম্পাদক কুশল দাস বলেছিলেন, ‘কোপা আমেরিকায় এশিয়া থেকে এবার দুটি দেশের খেলার কথা ছিল, অস্ট্রেলিয়া ও কাতার। তারা খেলতে পারবে না বিভিন্ন কারণে। অস্ট্রেলিয়া কনমেবলের সঙ্গে কথা বলে ভারতের প্রসঙ্গ তুলেছে। কনমেবলও ভারতের সম্ভাব্য অংশগ্রহণের কথা ভেবে অনেক খুশি। তারা চায় আমরা যেন কোপা আমেরিকা খেলি।’

তবে জুন-জুলাইয়ের সময়টায় বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ ছিল ভারতেরও। এ কারণে, মূল দল পাঠাতে পারত না তারা। সে সমস্যার সমাধানে দ্বিতীয় আরেকটি জাতীয় দল পাঠানোর সিদ্ধান্তও নিয়ে রেখেছিল ভারত। কিন্তু কনমেবলের কালকের ঘোষণায় সব ধরনের আশাই উবে গেছে ভারতের।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন