বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিষ্যদের এমন পারফরম্যান্স মন ভরিয়ে দিয়েছে কোচ লিওনেল স্কালোনির। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সেটিই ফুটে উঠেছে তাঁর কথায়, ‘আমরা আজকে অনেক ভালো খেলেছি। প্যারাগুয়ের বিপক্ষে এমন ভালো খেলেছিলাম কিছুক্ষণ। ফুটবলে প্রতিপক্ষ যখন আক্রমণ করে, তখন আপনাকে শক্ত থাকতে হবে। আমরা এটা জানতাম ও আজকে এভাবেই খেলেছি। দল যখন এভাবে খেলে, তখন দলের খেলা দেখতে ইচ্ছে হবেই।’

তবে গোল না করলেও উরুগুয়েও যে দুর্দান্ত খেলেছে, সেটাও স্বীকার করেছেন স্কালোনি, ‘ফুটবল খেলায় এমন কিছু মুহূর্ত আসবেই। ওরা আমাদের জন্য বেশ সমস্যার সৃষ্টি করেছিল। তবে আমরা সেগুলো সমাধান করে নিজেদের মতো খেলতে পেরেছি। প্রথম গোল আসার আগ পর্যন্ত ম্যাচটা অনেক কঠিন ছিল। সুয়ারেজের দুটি আক্রমণ আমাদের ভুগিয়েছে। তবে এটা যে আমরা জানতাম না তা নয়। ওদের দলে দুর্দান্ত কিছু ফরোয়ার্ড আছে, রক্ষণভাগটাও অসাধারণ।’

default-image

আর্জেন্টিনার হয়ে মাঝমাঠে লিয়ান্দ্রো পারেদেস আর দি পলের সঙ্গী ছিলেন টটেনহাম হটস্পারে খেলা মিডফিল্ডার জোভান্নি লো সেলসো। মার্তিনেজ আর মেসির গোল দুটি তিনিই বানিয়ে দিয়েছেন। শুধু তাই নয়। মাঝমাঠটাকে যেন একদম নিজের করে নিয়েছিলেন সাবেক এই পিএসজি ও রিয়াল বেতিস তারকা। সফল পাস ঠেলেছেন ৮৩ শতাংশ, ‘কী পাস’ যেটিকে বলে, তা দিয়েছেন ছয়টা। মাঝমাঠ থেকে উঠে গিয়ে নিজেই শট নিয়েছেন ছয়টা।

লো সেলসোর এই পারফরম্যান্সে মুগ্ধ স্কালোনি, ‘লো সেলসো আমাদের সঙ্গে বহুদিন ধরে আছে। আমরা ওর খেলার মানকে সম্মান করি। যেকোনো কারণেই হোক ও কখনই আমাদের হয় অত ভালো খেলতে পারেনি। কিন্তু আমাদের কাছে ও বিশ্বের অন্যতম সেরা একজন খেলোয়াড়।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন