বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ম্যাচের তখন ৮২ মিনিট। বল ক্লিয়ার করতে জোন্সের হেড গিয়ে পড়ে জোয়াও মুতিনিও-র পায়ে। উলভারহ্যাম্পটনের এই পর্তুগিজ মিডফিল্ডার প্রায় এক বছর ধরে গোল না পেলেও এ যাত্রায় তাঁর শট জাল খুঁজে পেল। গোল!

শেষ পর্যন্ত এই ১-০ ব্যবধানেই ঘরের মাঠে উলভসের কাছে হেরে বসে ইউনাইটেড। বেচারা জোন্স, ফেরার ম্যাচে দলের সেরা পারফরমারদের একজন হয়েও শান্তি নেই!

default-image

যেমন শান্তিতে নেই ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ১৪ বছর পর ইউনাইটেড অধিনায়ক হয়ে মাঠে নেমেছিলেন। ম্যাচটা হেরে বসায় মাঠ ছাড়তে হয় পানসে মুখে। তাঁর সামনেই স্মরণীয় এক জয় উদযাপন করেছে উলভস।

গত ৪২ বছরের মধ্যে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে স্বাগতিকদের বিপক্ষে উলভসের প্রথম জয়ের স্বাদ একটু আলাদা হবেই। মুতিনিও-র জন্যও আলাদা কিছু। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ৩৫ বছর ১১৭ দিন বয়সে গোল করেছেন মুতিনিও। প্রিমিয়ার লিগে প্রতিপক্ষ দলের হয়ে এ মাঠে সবচেয়ে বেশি বয়সে জয়সূচক গোল এনে দেওয়ার রেকর্ড এখন এই পর্তুগিজের।

রাংনিকের জন্যও ম্যাচটা ভিন্ন অভিজ্ঞতার হয়ে থাকল। ইউনাইটেডের অন্তবর্তীকালিন কোচ হিসেবে তাঁর প্রথম হার, ছেদ পড়েছে টানা (৫ ম্যাচ) অপরাজিত থাকার ধারায়। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে কোচ হয়ে এসে প্রেসিং ফুটবল খেলানোর চেষ্টা করেছেন রাংনিক।

উলভসের বিপক্ষে এডিনসন কাভানি-রোনালদো কিংবা লুক শ-দের কাছ থেকে তা দেখা যায়নি। অগোছাল ফুটবল খেলেছে ইউনাইটেড।

default-image

প্রথমার্ধে গোলের সুযোগ নষ্ট করেন কাভানি। বিরতির পরও গোলের সুযোগ নষ্ট করে স্বাগতিকরা। তবে যোগ করা সময়ে ব্রুনো ফার্নান্দেজের ফ্রি কিক উলভস গোলকিপার হোসে সা রুখে না দিলে পয়েন্ট পেতেও পারত ইউনাইটেড। ১৯ ম্যাচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের সাতে রইল রাংনিকের দল। সমান ম্যাচে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে আটে উলভস।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন