বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইনডিপেনডেন্টে নিজের কলামে ডেলানি লিখেছেন, সিটিতে সপ্তাহে ২ লাখ ৫০ হাজার পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩ কোটি টাকা) বেতন পাবেন রোনালদো। সিটিতে তাঁর ভূমিকা কী হবে, এ নিয়ে সিটি কোচ পেপ গার্দিওলার সঙ্গে রোনালদোর কথা হয়েছে বলেও জানাচ্ছেন ডেলানি।

রোনালদোর মুখপাত্র জর্জ মেন্দেস বুধবার রাতে তুরিন উড়ে যান। এরপর থেকেই বোঝা যাচ্ছিল, রোনালদোর ভবিষ্যৎ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়তো আসতে পারে দু-একদিনের মধ্যে। রোনালদো যে জুভেন্টাস ছাড়তে চান, সে নিয়ে জোর আলোচনা তো আগে থেকেই ছিল।

৩৬ বছর বয়সী পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডকে বিক্রি করতে জুভেন্টাসও আগ্রহী বলে লিখেছেন ডেলানি। কারণ করোনাকালে আর্থিকভাবে বেশ নড়বড়ে হয়ে পড়া জুভ রোনালদোর বেতনের ভার বইতে পারছে না। তারওপর এই মৌসুমে মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রি জুভেন্টাসের কোচ হয়ে ফেরার পর ক্লাবটাকে নতুন করে গড়তে চাইছেন, সে লক্ষ্যে রোনালদোর বেতনের বোঝা বইতে খুব একটা আগ্রহী ছিল না জুভেন্টাস। ইতালিয়ান ক্লাবটিতে রোনালদোর চুক্তির আর বাকি আছে এক বছর।

default-image

তবে রোনালদোর জন্য জুভেন্টাসের সঙ্গে ম্যান সিটির দর কষাকষি এখন কোন অবস্থায় দাঁড়ায়, সেটিই দেখার। সিটি রোনালদোর পেছনে কোনো অর্থ খরচে রাজি নয়, তবে জুভেন্টাস ২৫-৩০ মিলিয়ন ইউরো চায়। সে ক্ষেত্রে খেলোয়াড়ের অদলবদলও হতে পারে একটা সমাধান। গতকাল পর্যন্ত শোনা গিয়েছিল, জুভেন্টাস রোনালদোর বদলে সিটি থেকে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার গাব্রিয়েল জেসুসকে চায়, কিন্তু গার্দিওলা জেসুসকে ছাড়তে চান না। সিটির স্প্যানিশ কোচ বরং ইংলিশ উইঙ্গার রাহিম স্টার্লিং কিংবা পর্তুগাল দলে রোনালদোরই সতীর্থ বের্নার্দো সিলভাকে ছাড়তে রাজি বলে শোনা যাচ্ছে।

ডেলানি লিখেছেন, রোনালদোর মুখপাত্র মেন্ডেস পর্তুগিজ তারকার ভবিষ্যৎ গন্তব্য হিসেবে প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের কথা ভেবেছিলেন। রোনালদোও আগ্রহী ছিলেন। রোনালদো সেখানে গেলে মেসি, নেইমার, রোনালদোর স্বপ্নের ত্রয়ীও দেখতে পেত ফুটবল। কিন্তু পিএসজি রোনালদোর ব্যাপারে আগ্রহী ছিল না।

default-image

ম্যান সিটিও প্রথমে রোনালদো নয়, টটেনহামের ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেইনের প্রতি আগ্রহী ছিল। সের্হিও আগুয়েরো চলে যাওয়ার পর সিটির একজন স্ট্রাইকারও দরকার ছিল। কিন্তু টটেনহামে চুক্তির বেড়াজালে বাঁধা পড়া কেইনকে পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না সিটির, কেইনও গতকাল টটেনহাম ছাড়ার সংকল্পে হার মেনে নিয়েছেন। জানিয়ে দিয়েছেন তিনি টটেনহামেই থাকবেন। এরপর থেকে রোনালদোর দিকেই চোখ পড়েছে সিটির।

রোনালদো সিটিতে গেলে ম্যান ইউনাইটেডে ২০০৩ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত সময়ে তাঁর যে দারুণ গল্প লেখা হয়েছিল, সেটি একটু রঙ হারাবে নিশ্চিত। তবে ডেলানি লিখেছেন, রোনালদো এই মুহূর্তে সেসব নিয়ে ভাবছেন না। তিনি এমন একটি দলে যেতে চান, যাদের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগসহ অন্য শিরোপা জেতার সম্ভাবনা বেশি থাকবে, যা পরে তাঁর আরেকটি ব্যালন ডি’অর জয়ের সম্ভাবনা বাড়াবে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন