গত রাতে ড্র করেছে চেলসি-রিয়াল
গত রাতে ড্র করেছে চেলসি-রিয়ালছবি : রয়টার্স

এস্তাদিও আলফ্রেদো দি স্তেফানোতে গত রাতে প্রথম হুংকারটা দিয়েছিল চেলসিই। যুক্তরাষ্ট্রের উইঙ্গার ক্রিস্টিয়ান পুলিসিকের গোলে রিয়ালের মাঠে এগিয়ে গিয়েছিল তারা। পরে করিম বেনজেমার কল্যাণে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে রিয়াল, চেলসি কোচ টমাস টুখেলকে হারাতে পারেননি জিদান। আর জিদানের বিপক্ষে না হেরে নিজের রিয়ালের বিপক্ষে নিজের অসাধারণ এক রেকর্ডকে আরেকটু দীর্ঘস্থায়ী করেছেন এই জার্মান কোচ।

অর্জনের খাতায় জিদান বা আনচেলত্তির মতো রিয়াল কোচদের তুলনায় টুখেলকে নস্যিই বলা চলে। কিন্তু তা সত্ত্বেও টুখেল যখন রিয়ালের বিপক্ষে দলকে খেলতে নামান, কী যেন একটা হয়ে যায় তাঁর! চ্যাম্পিয়নস লিগের হ্যাটট্রিক শিরোপাধারীদের বিপক্ষে খেলতে নামলেই টুখেল যেন হারতে ভুলে যান। বরুসিয়া ডর্টমুন্ড, পিএসজি—নিজের সাবেক প্রত্যেক দলেই এই রেকর্ডটা ধরে রেখেছিলেন টুখেল। রিয়াল মাদ্রিদ জিততে পারেনি টুখেলের কোনো দলের সঙ্গে। গত রাতে চেলসির কোচ হিসেবেও রিয়ালের বিপক্ষে অপরাজিত থেকেছেন টুখেল। লস ব্লাঙ্কোসদের বিপক্ষে অজেয় থাকার রেকর্ডটা হয়েছে দীর্ঘস্থায়ী। পাঁচ ম্যাচ খেলে চারটায় ড্র করেছেন, একটায় জিতেছেন টুখেল। রিয়াল একটা ম্যাচেও টুখেলের দলকে হারাতে পারেনি। না আনচেলত্তি পেরেছেন, না জিদান।

বিজ্ঞাপন
default-image

রিয়ালের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচ খেলে অপরাজিত থেকেছেন, ফুটবল ইতিহাসে টুখেল ছাড়া এমন কোনো ম্যানেজার নেই আর।

তবে আরেকটু গভীরে তলিয়ে দেখলে দেখা যায়, শুধু রিয়াল নয়, স্প্যানিশ ক্লাবগুলোর বিপক্ষেই টুখেল অপরাজিত। সাত ম্যাচ দলকে খেলিয়ে তিন ম্যাচ জিতেছেন, ড্র করেছেন চার ম্যাচে।

রিয়ালও টুখেলের দলের বিপক্ষে খেলতে নামলেই কেমন যেন আক্রমণ করতে ভুলে যায়। গত রাতের ম্যাচটাতেই যেমন, চেলসির গোলমুখে ঠিকঠাক শট মারতে পেরেছেই একটা। যে শটে গোল করেছেন করিম বেনজেমা। ব্যস, অতটুকুই। গোলমুখে আর শট মারতে পারেননি রিয়ালের আর কোনো খেলোয়াড়। ২০০৩-০৪ মৌসুমের পর থেকে চ্যাম্পিয়নস লিগে আক্রমণের দিক দিয়ে এমন দৈন্যদশা আর একবার সহ্য করতে হয়েছিল রিয়ালকে। সেটাও টুখেলের দলের বিপক্ষেই। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে টুখেলের পিএসজির বিপক্ষে গোলমুখ বরাবর ঠিকঠাক একটা শটও নিতে পারেননি বেনজেমা-ক্রুসরা।

রিয়ালের বিপক্ষে চেলসির ড্রটা টুখেলের জন্য মহিমান্বিত হয়ে উঠেছে আরও একটা কারণে। এ পর্যন্ত ইয়ুর্গেন ক্লপ, পেপ গার্দিওলা, জোসে মরিনিও, কার্লো আনচেলত্তি, জিনেদিন জিদান, দিয়েগো সিমিওনে—কোনো ম্যানেজারের বিপক্ষেই হারেননি টুখেল। ড্র করেছেন, কিন্তু হার? নৈব চ, নৈব চ!

দেখা যাক, আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া মহাগুরুত্বপূর্ণ দ্বিতীয় লেগে টুখেল এই রেকর্ডগুলো ধরে রাখতে পারেন কি না। ধরে রাখতে পারলেই ফাইনালে উঠে যাবে চেলসি।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন