default-image
>

বার্সেলোনার কাছ থেকে লা লিগার শিরোপা যে এবার রিয়াল মাদ্রিদের ঘরে যাচ্ছে, এটা মোটামুটি নিশ্চিত। কিন্তু শিরোপাজয়ের উৎসব আদৌ হবে তো?

দুই বছর পর আবারও স্প্যানিশ লিগের শিরোপা ফিরছে রিয়াল মাদ্রিদের ঘরে। লিগ শেষ হতে আর মাত্র দুই ম্যাচ বাকি। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বার্সার চেয়ে চার পয়েন্টে এগিয়ে রিয়াল। একদম অতি অকল্পনীয় কিছু না ঘটলে ধরেই নেওয়া যায় লিগের শিরোপা জিতছে রিয়াল। এর আগে টানা দুইবার শিরোপা জেতা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার 'হ্যাটট্রিক' হচ্ছে না এবার। আনন্দটা বাঁধনহারা হওয়াই স্বাভাবিক রিয়াল ভক্তদের। কিন্তু করোনার থাবায় সেটি আর হচ্ছে কোথায়!

করোনাভাইরাস তাদের আনন্দ একটু হলেও ম্লান করে দিয়েছে। এখন আর একসঙ্গে জড়ো হয়ে শিরোপা উদযাপন করা যাবে না। করা যাবে না আনন্দ উল্লাস, রং ছোড়াছুড়ি। কারণ ঐ একটাই, মানুষের ভিড় মানেই যে করোনা ছড়ানোর ভয়, জীবন নিয়ে শঙ্কা! সাধারণত শহরের সিবেলেস ফোয়ারার নিচে জমায়েত হয়েই শিরোপাজয়ের উল্লাস করে থাকেন রিয়াল সমর্থকেরা। দলের খেলোয়াড়েরাও সেখানে যান সমর্থকদের আনন্দ স্রোতে মিশে যেতে।

কিন্তু এবার সমর্থকদের স্বাস্থ্যসুরক্ষার কথা চিন্তা করে সিবেলেস ফোয়ারার নিচে শিরোপা উদযাপন করার পরিকল্পনা বাদ দেওয়া হয়েছে। এর পরিবর্তে, রিয়ালের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতেই হবে শিরোপা-উৎসব, সেটিও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে। আগামীকাল বা রবিবার, যে দিনই রিয়ালের শিরোপা নিশ্চিত হবে, সে দিনই হয়তো সমর্থকেরা রাস্তায় নেমে উদযাপন শুরু করবে। তবে এরকম পরিস্থিতি যেন না হয়, এ জন্য মাদ্রিদ শহরের কাউন্সিল এর মধ্যেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে।

কিছুদিন আগেই দ্বিতীয় বিভাগ থেকে প্রথম বিভাগে উঠে এসেছে আরেক ক্লাব কাদিজ। সে খবর নিশ্চিত হওয়ামাত্র মানুষজন রাস্তায় নেমে আনন্দ-উল্লাস করেছে এবং তাতে দেখা দিয়েছে করোনা ছড়ানোর শঙ্কা। এমন ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়, সে ব্যাপারে মাদ্রিদ বেশ সতর্ক। মাদ্রিদের মেয়র হোসে লুইস মার্তিনেজ আলমেইদা এর মধ্যেই সমর্থকদের অনুরোধ করেছেন ভিড় না করার জন্য, 'অনুগ্রহ করে উদযাপন করার জন্য সিবেলেসে আসবেন না। এর চেয়ে বরং নিজেদের বারান্দায় রিয়ালের পতাকা-জার্সি নিয়ে উদযাপন করুন।'

স্বাস্থ্যমন্ত্রী সালভাদর ইয়াও ব্যাপারটা নিয়ে বেশ শঙ্কিত, 'প্রথম বিভাগে ওঠার আনন্দ উদযাপনের বেশ কিছু ছবি আমাদের নজরে এসেছে। এ নিয়ে আমরা চিন্তিত। আমরা আনন্দ করতে পারি, তবে অবশ্যই ভাইরাসকে ভুলে গিয়ে নয়। আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।'

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0