লিওনেল মেসির সঙ্গে খেলা উপভোগ করছেন পেদ্রি গঞ্জালেস
লিওনেল মেসির সঙ্গে খেলা উপভোগ করছেন পেদ্রি গঞ্জালেসছবি: টুইটার

আনসু ফাতি নিয়মিত গোল করে ও করিয়ে এই মৌসুমে বার্সেলোনা সমর্থকদের মন জিতে নিয়েছেন। তবে ফাতি ছাড়াও বার্সেলোনার আরেক তরুণ এই মৌসুমে আলো ছড়াচ্ছেন—পেদ্রি গঞ্জালেস। বয়সে তরুণ হলেও এ মৌসুমে তিনি বার্সার তারকাদের একজন।

বিজ্ঞাপন

তবে একটু এদিক-ওদিক হলেই বার্সা নয়, কাতালান ক্লাবটির চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে হয়তো আলো ছড়াতেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। সেটি হয়নি রিয়াল তাঁকে না নেওয়ায়। রিয়ালের প্রতি কোনো উষ্মা নেই পেদ্রির।

বরং স্প্যানিশ রেডিও কাদেনা সেরে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বার্সার তরুণ রিয়ালকে ধন্যবাদ দিয়েছেন! পেদ্রির মতে, রিয়াল তাঁকে না নেওয়ায় এখন সেই ক্লাবে আছেন, যেখানে তিনি সব সময় থাকতে চেয়েছেন!

default-image

শুধু গোল করা আর করানোর হিসাবে গেলে ফাতির সঙ্গে তাঁর তুলনা ঠিক হবে না। দিন বিশেক আগে ১৮-তে পা দেওয়া ফাতি এরই মধ্যে মৌসুমে ৬ গোল করেছেন, ২টি করিয়েছেন।

আর দিন সাতেক পরে ১৮-তে পড়তে যাওয়া পেদ্রি গোল করেছেন ২টি, এখনো কোনো গোল করাতে পারেননি।কিন্তু ফুটবলে তো শুধু গোল অ্যাসিস্টের পরিসংখ্যান দিয়ে সব হিসাব করা যায় না।

বিজ্ঞাপন

পেদ্রি বার্সার জার্সিতে নজর কেড়েছেন তাঁর খেলা গড়ে দেওয়ার ক্ষমতায়, এই তরুণ বয়সেও প্রতিপক্ষ ডি বক্সের সামনে ঠিক সময়ে ঠিক কাজটি করার দক্ষতায়। দারুণ ড্রিবলিংয়ে কয়েক দিন আগে মুগ্ধ করেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগে জুভেন্টাসের বিপক্ষে ম্যাচে।

এই মৌসুমে বার্সার কোচ হয়ে আসা রোনাল্ড কোমানও পেদ্রির খেলায় মুগ্ধতার কথা জানিয়েছেন অনেকবার। শুধু খেলায় পরিপক্বতার জন্য নয়, পেদ্রির কথার ঢংয়েও পরিপক্বতার ছাপ খুঁজে পাওয়া যায়।

default-image

তাঁর চারিত্রিক গড়নের পেছনে কাদের অবদান, জানাতে গিয়ে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বার্সা মিডফিল্ডার বললেন, ‘আপনার মধ্যে যদি বিনয় না থাকে, যদি আপনি আসলে মানুষ হিসেবে যেমন, সেটা আর ঠিক না থাকে, তাহলে আপনি ফুটবলার হিসেবেও ভালো হতে পারবেন না। আমার মা–বাবা, আমার ভাই সব সময় আমাকে উপদেশ-পরামর্শ দেন। আমার ভাই তো সব সময় আমার খেলায় ভুল বের করেন। এটা খুব ভালো, কারণ, এতে আপনার নিজের প্রতি নিজের প্রত্যাশা বেড়ে যায়।’

পেদ্রির নিজের চারিত্রিক গড়ন থেকে সাক্ষাৎকারের প্রসঙ্গ বদলে যায় বার্সেলোনার যেকোনো খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে যে প্রসঙ্গ আসে, সেটিতে—লিওনেল মেসি! এত দিন যাঁকে টিভি পর্দায় বা প্লে–স্টেশনে দেখেছেন, সেই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের সঙ্গে এখন প্রতিদিন অনুশীলন করছেন পেদ্রি।

পার্থক্য টের পাচ্ছেন? পেদ্রির উত্তর, ‘মেসি যেসব মুভ তৈরি করেন, সেটা প্রতিদিন দেখলেও আপনি তাতে অভ্যস্ত হয়ে পড়বেন না। শুধু মেসিই নন, সব সতীর্থই প্রতিদিন ফুটবল পায়ে কিছু না কিছু করে আপনাকে চমকে দেবেন। তাঁদের কাছে শিখতে পারা একটা বিলাসিতা!’

বিজ্ঞাপন
default-image

মেসির সঙ্গে খেলার প্রসঙ্গে পরে আবার বললেন, ‘মেসি বল পায়ে যা করেন, সেসব যখন দেখি...তিনি বল পায়ে যখন যা ইচ্ছা তা-ই করতে পারেন। তাঁকে টিভিতে, প্লে–স্টেশনে দেখেছি। এরপর বাস্তব জীবনে যত দেখছি, মুগ্ধ হচ্ছি। মেসির সঙ্গে খেলার সুযোগটা জীবনের কাছ থেকে পাওয়া আমার উপহার।’

কিন্তু বার্সেলোনায় আসার আগে রিয়াল মাদ্রিদ তাঁকে নিয়ে গেলে তো সেই সুযোগই হতো না, তখন বরং মেসিকে পেদ্রি দেখতেন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে।

তাঁর রিয়ালে যাওয়ার চেষ্টার গল্পটা জানালেন পেদ্রি, ‘মাদ্রিদে এক সপ্তাহের ট্রায়ালে গিয়েছিলাম। তাঁরা আমাকে বলেছিল, আমি (রিয়ালের খেলার) যোগ্য নই। একটা অফিসে নিয়ে আমাকে কথাটা বলেছিল, তখন খুব হতাশ হয়েছিলাম।’

তবে এখন পিছু ফিরে রিয়ালকে ধন্যবাদই দেন বার্সার তরুণ, ‘...তবে সেই ধাক্কার কারণে আমি আরও কঠোর পরিশ্রম করেছি, উন্নতি করেছি। তাঁদের ধন্যবাদ, তাঁদের কারণেই আমি এখন সেই ক্লাবে আছি, যে ক্লাবে আমি সব সময় থাকতে চেয়েছি। খুব ছোটবেলা থেকেই আমি বার্সার ভক্ত।’

মন্তব্য পড়ুন 0